একদিনের অন্তরেই ফের সেই অন্ধ্রপ্রদেশেই ভয়াবহ দুর্ঘটনা; পর্যটকের পর এবার মৃত্যু নারী শিশু সহ ১৪ তীর্থযাত্রীর

264
Advertisement

অশ্লেষা চৌধুরী:আরাকুর পর এবার কুর্নুল আর পর্যটকের বদলে এবার তীর্থযাত্রী! মাত্র ২৪ঘন্টার ব্যবধান ফের এক ভয়াবহ দুর্ঘটনা অন্ধ্রপ্রদেশে। শনিবার ৮জনের পর রবিবার ঝরে গেল ১৪টি প্রাণ। এখনও অবধি পাওয়া খবর অনুযায়ী অন্ধ্রপ্রদেশের কুর্নুলে তীর্থ ভ্রমণে যাওয়া বাসের সঙ্গে ট্রাকের ভয়াবহ সংঘর্ষে একটি শিশু সহ মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। আহত হয়েছেন আরও ৪ জন। দুর্ঘটনায় কেবল চারটি শিশু বেঁচে গেলেও তাদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। প্রাপ্ত আঁধার কার্ড ও ফোন নম্বরের ভিত্তিতে পুলিশ তাঁদের সম্পর্কে বিশদে জানার চেষ্টা করছে। রবিবার ভোরে কুর্নুল জেলার মাদাপুরম গ্রামের ভেলদুরতি মন্ডলের কাছে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

Advertisement

কুর্নুল পুলিশের মুখ্য কর্মকর্তা কে ফাকিরাপ্পা সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানান, ১৮ জন যাত্রী সহ একটি মিনি বাস অত্যন্ত দ্রুত গতিতে রোদ ডিভাইডারে ধাক্কা মারে এবং নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রোডের ওপর দিক থেকে আসা একটি লরিতে সজোরে ধাক্কা মারে। এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে ভোর ৪ টা নাগাদ মাদাপুরাম গ্রামের নিকটে ভেলদুরতি মন্ডল, যেটি কুর্নুল থেকে ২৫ কিমি দূরে অবস্থিত।

Advertisement
Advertisement

তিনি আরও বলেন, “এই দলটি চিত্তর জেলার মাদানাপল্লী থেকে রাজস্থানের আজমেরে যাচ্ছিল।” বাসে থাকা যাত্রীরা ভিতরেই চাপা পড়েছিল এবং যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে মৃতদেহগুলি উদ্ধার করতে হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন এবং তাঁর অফিস ট্যুইট করেছে, “অন্ধ্র প্রদেশের কর্নুল জেলায় সড়ক দুর্ঘটনা দুঃখজনক। এই দুঃখের মুহুর্তে আমার চিন্তাভাবনা তাদের সাথে রয়েছে, যারা তাদের প্রিয়জনকে হারিয়েছেন। আমি আশা করি আহতরা খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠবে।” অন্ধ্র প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ওয়াইএস জগন মোহন রেড্ডিও ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি ত্রাণ কাজ ও চিকিৎসা সহায়তা ত্বরান্বিত করার জন্য কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন এবং যারা মারা গেছেন তাদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। তিনি আহতদের দ্রুত পুনরুদ্ধার কামনা করেছেন।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার সন্ধ্যায় অন্ধ্রপ্রদেশের বিশাখাপত্তনমে আরাকুঘাট রোডের পাশে অনন্ত গিরিতে খাদে পড়ে যায় একটি পর্যটকবাহী বাস। দুর্ঘটনার পরে মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের অফিস থেকে বলা হয়েছে, বাসটিতে ১৮ জন ছিলেন। ঘটনাস্থলেই চারজনে মৃত্যু হয়েছে। বাকিদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এই বিবৃতির পরেই আরও ৪ জনের মৃত্যু হয়। স্থানীয় সূত্রে খবর, যাত্রীরা তেলেঙ্গানায় বসবাসকারী, যারা বাসে করে আরাকু যাচ্ছিলেন, যেটি একটি পাহাড়ি এলাকা। বাস চালক সম্ভবত অনভিজ্ঞ হওয়ায় ঘাট রোডে এসে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

আহতদের উদ্ধার করে উন্নততর চিকিৎসার জন্য বিশাখাপত্তনমের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুরো ঘটনার তদারক করেছেন অন্ধ্রের মুখ্যসচিব সোমেশ কুমার। দুর্ঘটনার মূল কারণ খুজতে তদন্তে নেমেছে পুলিশ।