করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে প্রথম মৃত্যু পশ্চিম মেদিনীপুরে, পূর্বে আক্রান্ত হলেন বিজেপি প্রার্থী! রাজ্যে দৈনিক সংক্রমন প্রায় সাড়ে ৬০০

3671
করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে প্রথম মৃত্যু পশ্চিম মেদিনীপুরে, পূর্বে আক্রান্ত হলেন বিজেপি প্রার্থী! রাজ্যে দৈনিক সংক্রমন প্রায় সাড়ে ৬০০ 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় প্রথম মৃত্যুর খবর পাওয়া গেল পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে। স্বাস্থ্য দপ্তরের সূত্রে জানানো হয়েছে শুক্রবার রাজ্যে মোট চারজনের মৃত্যু হয়েছে করোনা সংক্রমন নিয়ে। তার মধ্যে উত্তর ২৪ পরগনায় ২ জন মারা গিয়েছেন। কলকাতা এবং পশ্চিম মেদিনীপুরে ১ জন করে রোগীর মৃ্ত্যু হয়েছে। যদিও মৃত ব্যক্তি পশ্চিম মেদিনীপুরের কোথাকার বাসিন্দা কিংবা তাঁর নাম পরিচয় এখনও অবধি জানা যায়নি। পাশাপাশি এও জানা গেছে যে শুক্রবার পশ্চিম মেদিনীপুরে নতুন করে ৩ জন আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে।

উল্লেখ্য গত ২২ শে মার্চ এই জেলায় চারজন আক্রান্তের সন্ধান মিলেছিল। তারপর তিন দিনের মাথায় ২৫শে মার্চ একলাফে একই দিনে ১২ জন আক্রান্তের সন্ধান মিলেছিল। ২৬ শে মার্চ স্বস্তির কারন ঘটিয়ে সেই সংখ্যাটা অনেকটাই কমে মাত্র ৩ জনের সন্ধান মিলেছিল কিন্তু ১জনের মৃত্যুর খবর পাওয়ায় সেই স্বস্তি স্থায়ী হলনা বেশিক্ষণ বরং আশঙ্কা কিছুটা বাড়লই। সব মিলিয়ে রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ১০ হাজার ৩২০ জন কোভিড রোগী মারা গিয়েছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে প্রথম মৃত্যু পশ্চিম মেদিনীপুরে, পূর্বে আক্রান্ত হলেন বিজেপি প্রার্থী! রাজ্যে দৈনিক সংক্রমন প্রায় সাড়ে ৬০০ 2

পশ্চিমের মতই পূর্বেও করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সেই ঢেউয়ের কবলে পড়েছেন বিজেপির এগরা বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থী অরূপ দাস। গত বুধবার থেকে হঠাৎই গৃহবন্দী হয়ে গেছিলেন অরূপ। এমনকি কাঁথিতে প্রধানমন্ত্রীর সভায় দেখা যায়নি তাঁকে। জানা যায় ওই দিনই অর্থাৎ ২৪শে মার্চ তাঁর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল। শনিবার, প্রথম দফায় ভোট তার আগে বৃহস্পতিবার প্রচারের শেষ বেলাতেও বেরুতে পারেননি তিনি যা নিয়ে কিছুটা দুশ্চিন্তা তৈরি হয় কর্মীদের মধ্যে। কার্যত গৃহবন্দি হয়ে রয়েছেন তিনি। এই পরিস্থিতিতে ভোটের আগে চিন্তা বেড়েছে পদ্ম শিবিরে। যদিও কাঁথি সাংগঠনিক জেলা সভাপতি অনুপ চক্রবর্তী জানিয়ে দিয়েছেন, ‘‘কোন চিন্তার কারন নেই। বিজেপি সংগঠিত দল। এখানে কর্মীরাই আসল সম্পদ। তা ছাড়া মানুষ এ বার পরিবর্তন চাইছেন। তাই তাঁরা পদ্ম প্রতীকে ভোট দেবেন।’’ আপাততঃ বাড়িতেই নিভৃতবাসে থেকে ফোনেই কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন অরূপ।

এদিকে রাজ্যেও করোনা ঢেউয়ের প্রকোপ যথেষ্ট বাড়ছে। বৃহস্পতি বারের পর ফের শুক্রবার দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা যথেষ্ট পরিমাণ বেড়েছে। রাজ্যের দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা একধাক্কায় প্রায় সাড়ে ৬০০ ছুঁয়ে ফেলেছে। ফেব্রুয়ারিতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর এক দিনে এই প্রথম নতুন করে আক্রান্ত হলেন ৬৪৬ জন। এর আগে ১৬ জানুয়ারি সর্বোচ্চ ৬০৯ ছিল দৈনিক সংক্রামিতের সংখ্যা। এদিন
কলকাতায় দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ২৩৯ এবং উত্তর ২৪ পরগনায় ১৫৩জন আক্রান্ত হয়েছেন। নির্বাচন চলাকালীন রাজ্যে সংক্রমনের এই চিত্র রীতিমত ভাবনার বিষয় হয়ে দাঁড়ালো।

স্বাস্থ্য দপ্তরের হিসাব অনুযায়ী রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ৫ লক্ষ ৮৩ হাজার ২৭ করোনার সংক্রমিত হয়েছেন যার মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫ লক্ষ ৬৮ হাজার ৪৭৬ জন। ফলে এই মুহূর্তে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৪ হাজার ২৩১ জন। আর পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগী রয়েছেন ৪৭ জন। এই জেলায় সব মিলিয়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ২০ হাজার ৩৪৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৯ হাজার ৯৮৩ জন। স্বাস্থ্য দপ্তরের হিসাব অনুযায়ী জেলায় মৃত্যু হয়েছে ৩১৩ জন সংক্রমিত ব্যক্তির।