এখন খবররাজ্য

সন্দেশখালি পরিদর্শনে গিয়ে কালীঘাটে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাওয়ের ডাক দিলেন সাংসদ অর্জুন সিং

ওয়েব ডেস্ক : ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে ইতিমধ্যেই নির্বাচনের স্ট্র‍্যাটেজি তৈরি করে ফেলেছে বঙ্গ বিজেপি। সে অনুযায়ী মানুষের সাথে জনসংযোগ বাড়াতে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ছুটছেন বিজেপির নেতা কর্মীরা। গত কয়েকদিন আগেই আমফানের ক্ষতিপূরণ নিয়ে রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছিল উত্তর ২৪ পরগণার সন্দেশখালি। সোমবার সন্দেশখালি পরিদর্শনে গিয়ে বাংলার শান্তি রক্ষায় সন্দেশখালি থেকে কালীঘাটে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাওয়ের ডাক দিলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। পাশপাশি, এদিন মুখ্যমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি তোলেন সাংসদ অর্জুন সিং।

গত কিছুদিন যাবত রাজ্যের বিভিন্নপ্রান্তে আমফানের ক্ষতিপূরণ নিয়ে সাধারণ মানুষের বিক্ষোভ লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷ প্রায়সই দেখা যাচ্ছে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের মেলেনি ক্ষতিপূরণের টাকা, কিন্তু যারা টাকা পাচ্ছে তারা শাসকদল ঘনিষ্ঠ। এই নিয়ে গত কয়েকদিন আগে তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালি। ঘটনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন মহিলা, শিশু-সহ মোট ১২ জন। আক্রান্তদের মধ্যে অনেকেই এখনও বসিরহাট জেলা হাসপাতালে ভরতি। এই পরিস্থিতিতে সোমবার ক্ষতিগ্রস্তদের সাথে দেখা করতে সন্দেশখালি যান ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং ও বনগাঁর সাংসদ শান্তনু ঠাকুর। এলাকা পরিদর্শনের পর সাংসদ অর্জুন সিং স্থানীয়দের কালিঘাটে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও করে তার পদত্যাগের দাবি তোলার কথা বলেন।

এদিন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং বলেন, “রাজ্যে পিসি-ভাইপো প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানির যে ভাইগুলো রয়েছে, তাঁরাই অত্যাচার চালাচ্ছে। তাঁরাই বাংলার গর্ব। আর উনি নবান্নে বসে সারাবাংলাকে শান্ত দেখতে পাচ্ছে। আর এখানে এরা এখনও আতঙ্কে ভুগছে। বলছে, আপনারা চলে গেলে আমাদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেবে। এটা দেখে মুখ্যমন্ত্রীর লজ্জা হওয়া উচিত। ওনার পদত্যাগ করা উচিত। কারণ, প্রশাসন সামলাতে পারছেন না উনি। বাংলার মানুষকে রক্ষা করতে পারছেন না।” এরপরই রীতিমতো হুমকির সুরে বিজেপি সাংসদ বলেন, “দরকার পড়লে বাংলার শান্তি ফেরাতে কালীঘাটে মমতার বাড়ি ঘেরাও করব। আমাদের কর্মীদের পাশে আমাদের দাঁড়াতে হবে। তাঁর দাবি, শুধু সন্দেশখালি তাই নয়। সারা বাংলায় ইচ্ছাকৃত বিজেপি কর্মীদের হেনস্তা করা হচ্ছে।”

বিজ্ঞাপন
error: Content is protected !!
Close
Close