রবিয়াণী

প্রতাপ সিংহের পাঁচটি কবিতা

✒️কলমে: প্রতাপ সিংহ

অজগর

প্রতিদিন স্বপ্নে একটা অজগর দেখি।
সেই অজগর আমাকে পেঁচিয়ে ধরেছে।
আমার চোখ ঠেলে বেরিয়ে আসছে।
গলা শুকিয়ে কাঠ।
আমি অজগরের ভয়াল প্যাঁচ ছাড়াতে পারি না।
কষ্টে যন্ত্রণায় আমার চোখের জল শুকিয়ে যায়।
স্বপ্ন ক্রমশ ছোট হয়ে আসে।

জন্তু ও মানুষ

মানুষ এবং জন্তু পেশিশক্তিতে এখন দুজনেই বলীয়ান ,কেউ কারও চেয়ে একচুল কম যায় না।

সকাল থেকে দুজনেই, প্রকাশ্যে
রাজপথের দখল নিয়েছে।

ভয়

ভয় আমাকে ছেড়ে কথা বলে না।
নখ দেখাচ্ছে, আঁচড় দেখাচ্ছে,
দাঁত দেখাচ্ছে, কামড় দেখাচ্ছে।
ভয়কে সঙ্গে না নিলে,
আমি এই প্রাণহীন শহরে বাঁচব কী করে!

লোভ

লোভের কথা এখন বলব না।
একদিন গোপনে একটু একটু করে শোনাব।
লোভের জন্যই আকাশের চাঁদ হাতে পেয়েছিলাম।
সেই চাঁদ এখন মাঠেঘাটে ঘুরে বেড়াচ্ছে
ধরতে গেলেই ছাই আর ভস্ম।

জ্বালা

জ্বালা যেদিন আপাদমস্তক
আমাদেরকে জড়িয়ে ধরল
সেদিন বুঝলাম জ্বালা কী জিনিস।
অন্ধকারে আমরা ছটফট করতে লাগলাম,
মাটি দু’ফাঁক হয়ে গেল
তবু জ্বালা কমল না।

কবি পরিচিতি : প্রতাপ সিংহ কবি ও শিক্ষক। জন্ম -১৯৭১।বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের ছাত্র। লিখেছেন ছোটদের ও বড়দের জন্য বাংলা ভাষার বিভিন্ন কাগজে।বর্তমানে কলকাতায় থাকেন। প্রিয় শখ – গান শোনা ও দেশবিদেশের বিভিন্ন খেলা দেখা।

বিজ্ঞাপন
Live Corona Update
error: Content is protected !!
Close
Close