এখন খবররাজ্য

দুর্নীতির অভিযোগে ৭৬১ জন রেশন ডিলারকে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত রাজ্যের

ওয়েব ডেস্ক : লকডাউনে বিনামূল্যে ৬ মাস রেশন দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু রেশন আনতে গিয়ে চরম হয়রানির শিকার হতে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। কোথাও দেওয়া হয়েছে পোকা চাল, কোথাও চলেছে দেদার কারচুপি। আবার অনেকক্ষেত্রে রেশন সামগ্রী সাধারণ মানুষের কাছে না পৌঁছে রাতের অন্ধকারে তা চলে গিয়েছে বাজারে, কখনও আবার শাসক দলের ত্রান শিবিরে। সাধারণ মানুষের প্রাপ্য চাল দিয়েই ঘুর পথে ত্রানের নামে সেই চাল মানুষের কাছে পৌঁছেছেন শাসকদলের বেশ কিছু নেতা কর্মী। এমনকী শাসকদলের কর্মীদের চাল দিতে বাধ্য করার অভিযোগ রয়েছে খোদ খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের বিরুদ্ধে। কিন্তু এইসমস্ত দায় ঝেড়ে ফেলে সব দোষ রেশন ডিলারদের ঘাড়ে চাপিয়ে ইতিমধ্যেই ২৫০ জন ডিলারকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার। এমনটাই জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

এবিষয়ে খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, লকডাউনের সময় রাজ্য সরকারের তরফে যে বিনামূল্যে রেশন বিতরণের ঘোষণা করা হয়েছিল তাতে গোটা রাজ্যে মোট ৭৬১ জন রেশন ডিলারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এসেছিল। তাদের ইতিমধ্যেই খাদ্য দফতরের তরফে শো-কজ ও জরিমানা করা হয়েছে। এদের মধ্যে প্রায় ৩৫০ জন ডিলারের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ ওঠায় তাদের বিরুদ্ধে আদালতে শুনানি হয়। তাতে প্রায় ২৫০ জন রেশন ডিলার দোষী প্রমাণিত হয়েছে। ফলে খাদ্য দফতরের তরফে দ্রুত তাদের বরখাস্ত করা হবে । তিনি আরও বলেন, যে সব এলাকার রেশন ডিলারদের বরখাস্ত করা হবে সেখানে পরবর্তীতে বিজ্ঞাপণ নিয়ে নতুন ডিলার নিয়োগ করবে সরকার। কিন্তু সেই প্রক্রিয়া শেষ করতে বেশ কয়েক মাস সময় লেগে যাবে। এক্ষেত্রে ততদিন পার্শ্ববর্তী এলাকার রেশন ডিলাররা ওই সব এলাকার দায়িত্ব সামলাবেন।

প্রসঙ্গত, করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউনের জেরে রাজ্য সরকারের তরফে এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়। কিন্তু প্রথম দিন থেকেই দেখা যায় বহু জায়গায় নির্দিষ্ট পরিমাণ চাল না পেয়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে সাধারণ মানুষ। আবার অনেকক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে ত্রাণ বিলি করবে বলে রেশন ডিলারকে হুমকি দিয়ে বস্তা বস্তা রেশনের চাল নিয়ে যাচ্ছে শাসকদলের নেতা কর্মীরা৷ ফলে খাদ্য দফতরের যেকোনো দুর্নীতিতেই দায় বর্তায় খাদ্য মন্ত্রীর বিরুদ্ধে কিন্তু এক্ষেত্রে খাদ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কোনোরকম কোনওরকম পদক্ষেপ না নিয়ে সরকারের তরফে দ্বিচারিতা করে খাদ্য দফতরের সচিব মনোজ আগরওয়ালকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
Live Corona Update
error: Content is protected !!
Close
Close