প্যাঙ্গোলিনের আঁশ পাচার কান্ডে গ্রেফতার বিজেপি নেতা সহ আরও ২ ,ষড়যন্ত্রের অভিযোগ বিজেপির

184
প্যাঙ্গোলিনের আঁশ পাচার কান্ডে গ্রেফতার বিজেপি নেতা সহ আরও ২ ,ষড়যন্ত্রের অভিযোগ বিজেপির 1
প্যাঙ্গোলিনের আঁশ পাচার কান্ডে গ্রেফতার বিজেপি নেতা সহ আরও ২ ,ষড়যন্ত্রের অভিযোগ বিজেপির 2

নিউজ ডেস্ক,শিলিগুড়ি: উত্তরবঙ্গে প্যাঙ্গোলিনের পাচার চক্রে এবার জড়িয়ে পড়ল এক স্থানীয় বিজেপি নেতার নাম। মঙ্গলবার রাতে শিলিগুড়ির মাটিগাড়া সীমান্ত হয়ে নেপাল যাওয়ার পথে কয়েক লক্ষ টাকার প্যাঙ্গোলিনের আঁশ সহ যে ব্যক্তি গ্রেপ্তার হয়েছিল তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করেই ওই বিজেেপি নেতার উঠে এসেছে বলে দাবি বনদপ্তরের। এদিকে আন্তর্জাতিক এই পাচার চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে বিজেপি নেতার নাম জড়িয়ে খবর চাউর হতেই সমালোচনার ঝড় রাজনৈতিক মহলে।

বৃহস্পতিবার রাতেই প্যাঙ্গোলিনের আঁশ পাচারের অভিযোগে বিজেপি নেতা সহ আরও এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে সারুগাড়া বনদপ্তর। সব মিলিয়ে এই ঘটনায় এখনও অবধি মোট ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে বনদপ্তর। গত মঙ্গলবার রাতে প্যাঙ্গোলিনের আঁশ পাচারের অভিযোগে মুরশিদ আলম নামে একজনকে গ্রেফতার করে বনদপ্তর।অভিযুক্তকে শিলিগুড়ি আদালতে পেশ করে রিমান্ডে নেওয়া হয়। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের পর দুই অভিযুক্তের নাম জানতে পারে বনদপ্তর।

প্যাঙ্গোলিনের আঁশ পাচার কান্ডে গ্রেফতার বিজেপি নেতা সহ আরও ২ ,ষড়যন্ত্রের অভিযোগ বিজেপির 3

গোপন সূত্রের খবরের ভিত্তিতে গতকাল রাতে সেবক রোড থেকে দুই পাচারকারীকে গ্রেফতার করে বনদপ্তরের কর্মীরা। মঙ্গলবার বন দপ্তরের ফাঁদ কেটে বেরুতে সক্ষম হলেও এরা শিলিগুড়ি ছাড়তে পারেনি বনদপ্তর ও পুলিশের কড়া নজরদারির জন্য। উল্লেখ্য মঙ্গলবার প্যাঙ্গোলিনের আঁশ পাচারের সময় বনদপ্তরের ফাঁদে ১জন ধরা পড়লেও ৫জন পালাতে সক্ষম হয়। এরপর থেকেই কড়া নজরদারি ছিল বনদপ্তরের। মঙ্গলবার গ্রেপ্তার হওয়া মুর্শিদকে জিজ্ঞাসাবাদ চালিয়ে এই এলাকায় কয়েকটি ডেরার সন্ধান মেলে। তারই মধ্যে ছিল সেবকের ডেরাটি। জানা গেছে ওই দুই অভিযুক্তের নাম সুজন দাস এবং সুব্রত বিশ্বাস।

সূত্র বলছে , সুজন দাস বিজেপির আলিপুরদুয়ার জেলার ফালাকাটা বিধানসভা অঞ্চলের আইটি সেলের আহ্বায়ক ও সক্রিয় কর্মী। শুক্রবার দুজনকে শিলিগুড়ি আদালতে তোলা হয়। সারুগাড়া বনদপ্তর সূত্রে খবর, সুজন দাস প্যাঙ্গোলিন এর দেহাংশ পাচার চক্রের মুখ্য কিংপিন। ঘটনার তদন্তের স্বার্থে দুই অভিযুক্তকে শিলিগুড়ি আদালতে পেশ করে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হয়েছে।

যদিও বিজেপির পক্ষে গোটা ঘটনাটিকে শাসকদলের পরিকল্পিত চক্রান্ত ও বিজেপিকে খারাপ প্রতিপন্ন করার চেষ্টা বলেই অভিহিত করা হয়েছে। অভিযুক্ত সুজন দাসের আইনজীবী অখিল বিশ্বাস বলেন, ‘বড়সড় ষড়যন্ত্র করে সুজন দাসকে প্যাঙ্গোলিনের দেহাংশ পাচারের মামলায় ফাঁসানো হয়েছে’।  এদিকে দার্জিলিং জেলা তৃণমুলের মুখপাত্র বেদব্রত দত্ত জানান,বিজেপি নেতাদের আসল রূপ মানুষের সামনে আসছে।দলে সুস্থ মানুষ নেই বলে তিনি কটাক্ষ করেন।