মাথাভাঙা বিধানসভায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু ৪ জন তৃণমুল কর্মীর,রণক্ষেত্র এলাকা

178
মাথাভাঙা বিধানসভায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু ৪ জন তৃণমুল কর্মীর,রণক্ষেত্র এলাকা 1

নিউজ ডেস্ক: শনিবার সকাল থেকেই উত্তপ্ত কোচবিহার জেলার বিভিন্ন বিধানসভা কেন্দ্রগুলি। বিক্ষিপ্ত অশান্তি লেগে রয়েছে প্রায় সর্বত্র। এদিন মাথাভাঙা বিধানসভার জোড়পাটকিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু হল ৪ জনের। আহত আরও চারজন। বিনা প্ররোচনায় গুলি চালানোর অভিযোগ উঠল কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে।

মাথাভাঙা বিধানসভায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু ৪ জন তৃণমুল কর্মীর,রণক্ষেত্র এলাকা 2

তৃণমূলের দাবি, মৃত ৪ জনই তাদের সক্রিয় কর্মী। ইতিমধ্যেই এই ঘটনার রিপোর্ট তলব করেছে কমিশন। জোড়পাটকির ১ নম্বর বুথের ভোটার হামিদুল হক, মনিরুল হক, সামিয়ুল মিঞা, আমজাদ হোসেন নামে ওই চার যুবক। তৃণমূল কর্মীদের দাবি, এদিন সকাল থেকে মোটের উপর শান্ত ছিল এলাকা। ভোট দিতে গিয়েছিলেন ওই চার যুবক। তারা ভোটের লাইনে থাকাকালীন কেন্দ্রীয় বাহিনী এলোপাথারি গুলি চালায়। রক্তাক্ত হন বহু তৃণমূল কর্মী। আহতদের তড়িঘড়ি উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা ওই চার যুবককে মৃত বলে ঘোষণা করে। মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা।

মাথাভাঙা বিধানসভায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু ৪ জন তৃণমুল কর্মীর,রণক্ষেত্র এলাকা 3

কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ করেন ওই এলাকার তৃণমূল কর্মী ও মৃতের পরিবারের সদস্যরা। তাঁদের দাবি, শুক্রবার রাত থেকেই মদ্যপ অবস্থায় এলাকায় তাণ্ডব চালাচ্ছিল বাহিনীর জওয়ানরা। তৃণমূলের অভিযোগ, বিজেপির হয়ে কাজ করছে বাহিনী।

ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ওঠা গুলি চালানোর অভিযোগ স্বীকার করে নিয়েছে কমিশন। বলা হয়েছে, প্রায় ৩০০ জনের একটি দল কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপর হামলা করেছিল। সেই কারণেই গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছে CRPF।

Previous articleভোটের সকালে উত্তপ্ত কোচবিহারের শীতলকুচি,প্রথমবার ভোট দিতে গিয়ে মৃত্যু যুবকের
Next articleআগামীকাল শীতলকুচিতে আসছেন তৃণমুল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, দেখা করবেন মৃতের পরিজনদের সঙ্গে