শাসক শিবিরে আবারও ছন্দপতন, অব্যাহতি চেয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি চিরঞ্জিতের, পদ্ম পথেই হিরণ

358
শাসক শিবিরে আবারও ছন্দপতন, অব্যাহতি চেয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি চিরঞ্জিতের, পদ্ম পথেই হিরণ 1

অশ্লেষা চৌধুরী: ভোটের মুখে ফের বেসুরো আরও এক তৃণমূল বিধায়ক। ‘রাজনীতির লোক নই, ছেড়ে দিন আমাকে’- এই বলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে অব্যাহতি চাইলেন বারাসতের বিধায়ক অভিনেতা চিরঞ্জিত চক্রবর্তী। আর একই সঙ্গে বুধবারই বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন যুব তৃনমূলের প্রাক্তন সহ সভাপতি অভিনেতা হিরণ।

সর্বভারতীয় এক সংবাদ মাধ‍্যমকে চিরঞ্জিৎ জানান, তিনি প্রথম থেকেই অরাজনৈতিক লোক। তাও মমতা বন্দ‍্যোপাধ‍্যায়ের সঙ্গে ছিলেন। আগে সরকার গঠনের জন‍্য অনেক সিটের প্রয়োজন ছিল তৃণমূলের। তাই মমতা বন্দ‍্যোপাধ‍্যায়ের কথাতেই ২০১১ ও ২০১৬ তে ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এবারে অব‍্যাহতি চান রাজনীতি থেকে।

শাসক শিবিরে আবারও ছন্দপতন, অব্যাহতি চেয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি চিরঞ্জিতের, পদ্ম পথেই হিরণ 2

কিন্তু বিধানসভা নির্বাচনের মুখে কেন বারাসতের তৃণমূল বিধায়কের এই সিদ্ধান্ত? তাঁর এই বক্তব্য ঘিরে তৈরি হয়েছে দল বদলের জল্পনা। কিন্তু জল্পনা উড়িয়ে অভিনেতার বক্তব্য, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানিয়েছি, ছেড়ে দিন অন্য কাজ করি। ছবি আঁকা, গান, সিনেমা নিয়ে থাকতে চাই। অনেক বয়স হয়েছে। দল বদলের প্রশ্ন নেই। আমি রাজনৈতিক নেতা নই। আমার নিজের দল আছে, যা হল অরাজনৈতিক।”

তিনি এও বলেন, “২০১১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ১৪৬ আসন দরকার ছিল। তার বেশ কয়েকবছর আগে থেকেই আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিভিন্ন জায়গায় অনুষ্ঠান, সভায় গিয়েছি। আমার মনে হয়েছিল ওঁ একমাত্র ব্যক্তি যে সত্যি পরিবর্তন আনতে পারবেন। ওই বছর ওঁর অনুরোধেই ভোটে দাঁড়াই। ২০১৬ সালেও অব্যাহতি চেয়েছিলাম। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজি হননি। বলেছিলাম আমাকে ছেড়ে দিন। এবারও তাই চেয়েছি।”

আর সে কথা জানিয়ে ইতিমধ্যেই মমতাকে চিঠিও লিখেছেন বিধায়ক। তবে এখনও নেত্রীর তরফে কোনও উত্তর মেলেনি।

সামনেই বিধানসভা নির্বাচন। আর এই সময়েই একের পর এক ধাক্কা শাসক শিবিরে। শুভেন্দু অধিকারী দলত্যাগের পর থেকেই যেন দলত্যাগের ব্যাপারটা কেমন যেন একটা ছোঁয়াচে রোগ হয়ে প্রকট হয়ে ধরা দিয়েছে, যা বিশেষ করে চাপ সৃষ্টি করছে শাসক শিবিরে। শুভেন্দুর পর, রাজীব, রথীন সহ অনেক হেভিওয়েট নেতারাই ঘাসফুল ছেড়ে পদ্মফুলের সুবাসে গা ভাসিয়েছেন। সেই তালিকায় তারকারাও রয়েছেন যারা ঘাসফুল ছেড়ে নাম লিখিয়েছেন পদ্ম শিবিরে। এনাদের মধ্যে একদিকে যেমন রুদ্রনীল ঘোষ রয়েছেন, তেমন রয়েছে অভিনেতা হিরণ চট্টোপাধ্যায়ও। যুব তৃণমূলের সহ-সভাপতি পদে ছিলেন এই অভিনেতা। গত কয়েকদিন আগেই তৃণমূল ছাড়ার কথা জানিয়েছিলেন তিনি। তাঁর মন্তব্যে স্পষ্ট ছিল পদ্ম শিবিরে যোগদানের বিষয়টি। তবে বুধবার এই যোগদানের বিষয়ে অভিনেতা জানিয়েছেন, অমিত শাহের সঙ্গে কথা হয়েছে। সূত্রের খবর, সম্ভবত এদিনেই মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন তিনি।

তবে এনাদের সাথে একই ছকে অবশ্য বারাসতের বিধায়ক চিরঞ্জিতকে ফেলা যাবে না, কারণ তিনি শাসক শিবির ছাড়লেও অন্য কোনও দলে যে যোগ দিচ্ছেন না, সেকথা সাফ জানিয়েছেন, যদিও জল্পনা থেমে নেই। তবে তারকা বিধায়কের দল বদলের জল্পনা আদৌ ফলপ্রসু হয় কিনা, তা সময়ই বলবে।