বিধানসভার আগেই লোকসভার আসনে তৃনমূলের বরাবর হয়ে গেল বিজেপি! এবার এগিয়ে যাওয়ার পথেও, দেখে নিন কে কটা আসনে এগিয়ে

1389
বিধানসভার আগেই লোকসভার আসনে তৃনমূলের বরাবর হয়ে গেল বিজেপি! এবার এগিয়ে যাওয়ার পথেও, দেখে নিন কে কটা আসনে এগিয়ে 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: লোকসভার আসন সংখ্যার নিরিখে পশ্চিমবাংলার বড় জয় পেল বিজেপি। রবিবার পূর্ব মেদিনীপুরের এগরার বালিঘাইতে অমিত শাহের সভায় কাঁথির সাংসদ শিশির অধিকারীর বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরই তৃনমূলের সমান সমান হয়ে গেল গেরুয়া শিবির। শুধু তাই নয় হিসাব বরাবর থাকলে আগামী ৩ দিনের মাথায় এরাজ্যে লোকসভার আসন সংখ্যার নিরিখে এগিয়ে যাচ্ছে বিজেপি।

বিধানসভার আগেই লোকসভার আসনে তৃনমূলের বরাবর হয়ে গেল বিজেপি! এবার এগিয়ে যাওয়ার পথেও, দেখে নিন কে কটা আসনে এগিয়ে 2

রবিবার অমিত শাহের মঞ্চে বিজেপিতে শিশির অধিকারী সরকারিভাবে যোগ দেওয়ায় তৃণমূলের সমান হবার স্বপ্নপূরণ হয়েছে বিজেপির। শিশির অধিকারীর যোগদানে বিজেপি তৃণমূলের সমান হল পাটিগাণিতিক নিয়মে। ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি ১৮টি আসনে জয়লাভ করেছিল। তৃণমূল পেয়েছিল ২২টি আসন। মাস দুয়েক আগে দলবদলের হিড়িকে তৃণমূল সংসদ সুনীল মণ্ডল শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। ফলস্বরূপ তৃণমূল কমে দাঁড়িয়েছিল ২১ আর বিজেপি ১৯। এবার কাঁথির তৃণমূল সাংসদ শুভেন্দুর পিতৃদেব শিশির অধিকারী বিজেপিতে যোগদান করায় তৃণমূল হল ২০, বিজেপিও ২০।

বিধানসভার আগেই লোকসভার আসনে তৃনমূলের বরাবর হয়ে গেল বিজেপি! এবার এগিয়ে যাওয়ার পথেও, দেখে নিন কে কটা আসনে এগিয়ে 3

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ২৯৪ সদস্যের রাজ্য বিধানসভায় তৃণমূল এগিয়ে থাকলেও গত তিনবছরে দুরন্ত গতিতে উঠে আসছে বিজেপি। লোকসভা নির্বাচনের প্রেক্ষিতে রাজ্যে তৃণমূল এগিয়ে ১৬৪টি বিধানসভা আসনে, অন্য দিকে বিজেপি এগিয়ে আছে ১২১টি আসনে। এমনকি লোকসভায় মুখ্যমন্ত্রীর নিজের নির্বাচনী কেন্দ্র ভবানীপুরেও কোনও রকমে নামমাত্র ভোটে নিজের লিড ধরে রাখতে পেরেছে তৃণমূল।

লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী মাত্র তিন বছরে ওলটপালট হয়ে গিয়েছে রাজ্যের রাজনৈতিক মানচিত্র। ২০১৪ লোকসভা নির্বাচন তো বটেই, ২০১৬ সালের শেষ বিধানসভা নির্বাচনেও গোটা রাজ্যে নিজের নিরঙ্কুশ একাধিপত্য বজায় রেখেছিল তৃণমূল। সেই নির্বাচনে রাজ্যের ২৯৪টি আসনের মধ্যে ২১১টি আসনে জিতেছিল তৃনমূল যা লোকসভার নিরিখে ৪৭ টি কমে গিয়েছে। এরপর ২০২০ সালের শেষ ফের আরেকদফার ধসে আরও শক্তি কমেছে তৃনমূলের পদত্যাগ করেছেন একঝাঁক বিধায়ক ও মন্ত্রী।

এখানেই অবশ্য শেষ নয়। আগামী ২৪শে মার্চ কাঁথিতে জনসভা করতে আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। অধিকারী পরিবারের আরেক সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারীর কাছে আমন্ত্রণ গিয়েছে সেই সভার। বিজেপির এক ঝাঁক কেন্দ্রীয় নেতা সেই আমন্ত্রণপত্র পৌঁছে দিয়েছেন অধিকারীদের কাঁথির শান্তিকুঞ্জের বাড়িতে গিয়ে। এর আগে জানুয়ারি মাসে হলদিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি সভায় আমন্ত্রণ পেয়েও যাননি তমলুকের সাংসদ তবে  এবার খবর আছে প্রধানমন্ত্রীর সভায় তিনি শুধু যাচ্ছেনই এমনটা নয়, ওই সভা থেকেই বিজেপির পতাকা ধরবেন তিনি। আর যদি তাই হয় তবে বিধানসভা নির্বাচন শুরুর আগেই ২১/১৯ য়ে এগিয়ে যাবে বিজেপি।

Previous articleনির্বাচনের মুখে ব্যাপক ধস ময়নাগুড়ি তৃণমুলে,দল ছাড়লেন ছাত্রনেতা সহ মোট ৩০ জন
Next articleমুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে আমরাই লুঠ করেছিলাম পঞ্চায়েত ভোটে; বিস্ফোরক অর্জুন