বাহিনীর তৎপরতা সত্ত্বেও নির্বাচনী হিংসার অভিযোগ; সিঁথিতে বিজেপি সমর্থক যুবতীর ওপর হামলা, তমলুকে আইসিইউতে ভর্তি বিজেপি প্রার্থী

201
বাহিনীর তৎপরতা সত্ত্বেও নির্বাচনী হিংসার অভিযোগ; সিঁথিতে বিজেপি সমর্থক যুবতীর ওপর হামলা, তমলুকে আইসিইউতে ভর্তি বিজেপি প্রার্থী 1

নিউজ ডেস্ক: মারধোরের শিকার হলেন খোদ প্রার্থী নিজেই, আঘাত এতটাই গুরুতর যে বর্তমানে আইসিইউতে ভর্তি আক্রান্ত বিজেপি। জানা যায়, তমলুক থানার সামনে আক্রান্ত হন তমলুকের বিজেপি প্রার্থী হরেকৃষ্ণ বেরা। গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে ভর্তি করতে হয় জেলা হাসপাতালের আইসিইউতে। পদ্ম শিবিরের অভিযোগ, তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিরাই এই কাণ্ড ঘটিয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে খবর, সোমবার রাত দেড়টা নাগাদ বিজেপি প্রার্থী থানায় অভিযোগ দায়ের করতে গিয়েছিলেন। সেই সময় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিরা তাঁকে বেধড়ক মারধর করে। থানার সামনেই ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। মঙ্গলবার সকালে তাঁকে দেখতে হাসপাতালে আসেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। প্রার্থীর উপর হামলার প্রতিবাদে পথ অবরোধের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

বাহিনীর তৎপরতা সত্ত্বেও নির্বাচনী হিংসার অভিযোগ; সিঁথিতে বিজেপি সমর্থক যুবতীর ওপর হামলা, তমলুকে আইসিইউতে ভর্তি বিজেপি প্রার্থী 2

অপরদিকে বিজেপি লেখা টি–শার্ট পরায় মারধর করার অভিযোগ উঠল সিঁথি থানা এলাকায়। অভিযোগ, প্রচণ্ড মারের চোটে ফুলে গিয়েছে মেয়ের চোখ। এমনকী কালশিটে পড়ে গিয়েছে। এখানেও অভিযোগের তির তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। এই ঘটনার ভিডিও ট্যুইট করে কড়া ভাষায় তোপ দেগেছে বিজেপিও।

স্থানীয় সূত্রে খবর, সিঁথি ক্লাবের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলেন ওই ব্যক্তি ও তাঁর মেয়ে। ক্লাবে তখন পালিত হচ্ছিল দোল, খেলা হবে গানও বাজছিল। ব্যক্তির পরনে ছিল বিজেপি লেখা গেঞ্জি। ওখানে কিছু লোক তাঁর সাইকেল টেনে ধরে। সাইকেল থেকে নামিয়ে তাঁর গেঞ্জি ছিড়ে দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ। এরপর মারধরও করা হয় তাঁকে। মেয়ে বাধা দিতে গেলে তাঁকেও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। ১৫ বছরের মেয়ের চোখের তলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ঘটনায় সিঁথি থানার দ্বারস্থ হয় ওই পরিবার।

বিজেপির পক্ষ থেকে কড়া সমালোচনা করে বলা হয়েছে, ‘এটা তৃণমূল কংগ্রেসের বর্বরতার নিকৃষ্টতম উদাহরণ। একটা বাচ্চা মেয়েকে বেধড়ক মারা হল, কারণ সে তৃণমূল কংগ্রেসের গুন্ডাদের হাত থেকে তার বাবাকে বাঁচাতে গিয়েছিল! এই মেয়েটি কি বাংলার মেয়ে নয়?’ ঘটনায় তদন্ত করছে সিঁথি থানার পুলিশ। এই ঘটনায় দু’জনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। তবে ঘটনার দায় অস্বীকার করছে শাসকশিবির।

প্রথম দফায় নির্বাচন পর বঙ্গ রাজনীতিতে উত্তাপ বাড়ছে ক্রমশই। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে একের পর এক হিংসা-মারামারির ঘটনা প্রকাশ্যে আসছে।