মাত্র ১কিলোমিটারের কর্মসূচি নিয়ে রবিবার খড়গপুরে অমিত শাহ! গুরুত্ব ঝাড়গ্রামেই, খড়গপুর নিয়ে ‘রিল্যাক্স’ মুডেই বিজেপি

851
মাত্র ১কিলোমিটারের কর্মসূচি নিয়ে রবিবার খড়গপুরে অমিত শাহ! গুরুত্ব ঝাড়গ্রামেই, খড়গপুর নিয়ে 'রিল্যাক্স' মুডেই বিজেপি 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: রবিবার কার্যত নাম কে ওয়াস্তে খড়গপুর শহরে প্রচারে আসছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। দিলীপ ঘোষের হারানো আসনে বিজেপি কী তাহলে কম গুরুত্ব দিচ্ছে? প্রশ্নটা উঠে আসছে স্বাভাবিকভাবেই। বিজেপির একটি সূত্র জানাচ্ছে খড়গপুর নয়, বিজেপির কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ঝাড়গ্রাম জেলার চারটি আসন তাই সোমবার দিনভর ঝাড়গ্রামেই ঝাঁপাবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

মাত্র ১কিলোমিটারের কর্মসূচি নিয়ে রবিবার খড়গপুরে অমিত শাহ! গুরুত্ব ঝাড়গ্রামেই, খড়গপুর নিয়ে 'রিল্যাক্স' মুডেই বিজেপি 2

বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তুষার মুখার্জী জানিয়েছেন, “অমিত জী খড়গপুর শহরের অতুলমনি হাই স্কুলের সামনে থেকে মালঞ্চ পেট্রলপাম্প অবধি একটি র‍্যালিতে অংশ নেবেন ব্যস্, ওই টুকুই ওনার কর্মসূচি। বিকাল ৫ টায় এই কর্মসূচি শুরু হবে। সন্ধ্যা ৭টায় ৬নম্বর এবং ৬০নম্বর জাতীয় সড়কের সংযোগস্থলে বিজেপির কর্মকর্তাদের সঙ্গে একটি বৈঠক করবেন তিনি। পরের দিন ঝাড়গ্রামে চলে যাবেন তিনি।” যতটুকু এখনও অবধি জানা গেছে মালঞ্চ সংলগ্ন ধোবিঘাট ময়দানে হেলিকপ্টারে অবতরণ করবেন তিনি।

মাত্র ১কিলোমিটারের কর্মসূচি নিয়ে রবিবার খড়গপুরে অমিত শাহ! গুরুত্ব ঝাড়গ্রামেই, খড়গপুর নিয়ে 'রিল্যাক্স' মুডেই বিজেপি 3

পরের দিন সোমবার ঝাড়গ্রামের সার্কাস ময়দানে জনসভায় অংশ নিচ্ছেন শাহ। এই উপলক্ষ্যে লক্ষাধিক মানুষের সমাবেশ করার উদ্যোগ নিয়েছে জেলা বিজেপি। ঝাড়গ্রামের চার বিধানসভা থেকেই মানুষজনকে এই সভায় সমবেত করার উদ্যোগ নিয়ে ইতিমধ্যেই ঝাঁপিয়ে পড়েছেন বিজেপি কর্মকর্তারা।

ঝাড়গ্রামের সাংসদ কুনার হেমব্রম জানিয়েছেন, “ওইদিন বেলা ১টায় সভা শুরু করছি আমরা। অমিত জী তাঁর সময় মত আসবেন। সভা ছাড়াও ওই দিন জঙ্গলমহলের ঝাড়গ্রাম, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, আংশিক পশ্চিম মেদিনীপুরের উপজাতি অধ্যুষিত এলাকা গুলির জন্য আমরা যে ‘সিধু-কানহু-বিরসা মুন্ডা যাত্রা’ শুরু করব তার উদ্বোধন করবেন অমিত শাহ জী।” বিজেপির তরফে জানানো হয়েছে ঝাড়গ্রাম জেলার চারটি বিধানসভাই জিততে মরিয়া বিজেপি। লোকসভা নির্বাচনে এই চারটির তিনটিতেই এগিয়ে ছিল বিজেপি। পিছিয়ে থাকা বিনপুর বিধানসভাতে তাই বাড়তি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

কিন্তু খড়গপুর সদর নিয়ে বিজেপি যে ততটা মাথা ঘামাচ্ছে না তা প্রার্থীতেই বুঝিয়ে দিয়েছে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব। একে তো কলকাতা থেকে আনা তায় আবার হিরনের মত অভিনেতা যাঁর অভিনেতা হিসেবে তেমন বাজার দর নেই। বিজেপির খড়গপুর কর্মীরাই মনে করছেন, লড়াই এখানে জমছেনা। বিজেপির এক নেতার কথায়, “খেলা এখানে ভোটের আগে নয়, ভোটের পরে হবে। শুভেন্দুদা বলেছিলেন খড়গপুর উনি বিজেপিকে ফিরিয়ে দেবেন। আমরা জানি কথা রাখবেন উনি। ফলে শুধু শুধু ময়দানে নেমে গা ব্যথা করার কী দরকার দাদা?”

কিন্তু মোদি আসছেন তো জনসভা করতে? বিজেপি নেতার জবাব, “১২টি বিধানসভার সুবিধা জনক স্থান হিসেবে খড়গপুর শহরকে বাছা হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জনসভার জন্য। ২০১৬তে খড়গপুর শহরে মোদি শুধু দিলীপ ঘোষের জন্য সভা করেছিলেন, আপনি কী মনে করেন হিরণ কে জেতাতে মোদি সভা করতে আসছে? খড়গপুর জিতলেও আমাদের, না জিতলেও।” সব মিলিয়ে খড়গপুর নিয়ে রিল্যাক্স মুডে রয়েছে বিজেপি। যদিও নিচু তলায় লড়াই লড়াই খেলাটা চালিয়ে রাখা হয়েছে।

Previous articleদলের গোপন তথ্য ফাঁস করেছে শঙ্কর; বিস্ফোরক অভিযোগ বাম নেতা অশোকের
Next articleকেশিয়াড়ীতে বিদ্রোহ শিকেয় তুলে মুখ্যমন্ত্রীর সভার প্রস্তুতিতে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন কল্পনা-পবিত্র-সঞ্জয়রা