নভেম্বরের শুরুতেই দক্ষিণবঙ্গ সফরে আসছেন অমিত শাহ, খতিয়ে দেখবেন দলের সাংগঠনিক নির্বাচনী প্রস্তুতি

197
Advertisement

ওয়েব ডেস্ক : এ রাজ্যে আসার পরিকল্পনা আগেই ছিল। মাঝে কিছু কারণ বশত সফর বাতিল হলেও ফের নভেম্বরের শুরুতেই দক্ষিণবঙ্গ সফরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এদিকে বছর ঘুরতেই রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। ফলে দুর্গাপুজো মিটতেই জোরকদমে নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব৷ এর মধ্যেই নির্বাচনের আগে দলের সাংগঠনিক প্রস্তুতি খতিয়ে দেখতে আগামী ৫ ও ৬ নভেম্বর দক্ষিণবঙ্গ সফরে আসছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷

Advertisement

জানা গিয়েছে, এ রাজ্যে বিজেপি সংগঠনকে মোট ৫ টি সাংগঠনিক জোনে ভাগ করা হয়েছে। তার মধ্যে উত্তরবঙ্গে ১ টি জোন ও বাকি ৪ টি দক্ষিণবঙ্গে৷ শুক্রবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান, আগামী মাসের শুরুতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ রাজ্যে এসে মূলত ৪ টি সাংগঠনিক জোনের নেতৃত্বদের সঙ্গে বৈঠক করবেন৷ তাদের মধ্যে ৫ নভেম্বর বৈঠক হবে বর্ধমান ও মেদিনীপুর জোনে সাথে আর ৬ নভেম্বর কলকাতা ও নবদ্বীপ জোনের বিজেপি নেতৃত্বদের সাথে বৈঠক করবেন অমিত শাহ।

Advertisement
Advertisement

এদিকে প্রথমদিকে অমিত শাহের রাজ্যে আসার পরিকল্পনা থাকলেও পরবর্তীতে সেই পরিকল্পনা বাতিল হয়ে যায়। এরপর বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ প্রাথমিকভাবে জানিয়েছিলেন আগামী ৬ এবং ৭ নভেম্বর রাজ্যে আসবেন বিজেপি সভাপতি জে পি নাড্ডা৷ কিন্তু সেই সূচিও পরিবর্তন করে পুন্রায় দিলীপ ঘোষ জানান, জেপি নাড্ডা নয়, বরং পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী নির্বাচনের আগে সাংগঠনিক নেতৃত্বদের সাথে বৈঠকে রাজ্যে আসছেন অমিত শাহ৷ তবে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব অবশ্য চেয়েছিলেন নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরুর আগে শাহ, নাড্ডা দুজনেই রাজ্যে এসে নেতা, কর্মীদের সঙ্গে কথা বলুন, এতে কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা হবে৷ সে অনুযায়ী তাদের অনুরোধও করেছিল৷

রাজ্য বিজেপি সংগঠনকে মোট ৫ টি জোনে ভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১ টি কোন রয়েছে উত্তরবঙ্গে। সেখানে জোনের পুজোর আগেই সাংগঠনিক নেতৃত্বদের সাথে বৈঠক করে গিয়েছেন বিজেপি সভাপতি জে পি নাড্ডা৷ এবার বাকি ৪টি জোনের সঙ্গে বৈঠক করতে চান খোদ অমিত শাহ৷
এদিকে বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে দিনকয়েক আগেই রাজ্য বিজেপি-র সাংগঠনিক স্তরে বড়সড় পরিবর্তন করা হয়েছে। বিজেপি-র সাংগঠনিক সাধারণ সম্পাদক সুব্রত চট্টোপাধ্যায়কে সরিয়ে সেই জায়গায় দায়িত্বে আনা হয়েছে অমিতাভ চক্রবর্তীকে৷ এই নিয়ে ইতিমধ্যেই রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সাথে বিজেপির অন্দরে বেশ কিছুটা মন কষাকষি চলছে বলেই মনে করা হচ্ছে।