ফের আক্রান্ত বিজেপি! দলীয় বৈঠকে যাওয়ার পথে ফলতায় বিজেপি নেতাকে রাস্তায় ফেলে মার, অভিযোগের তির তৃণমূলের বিরুদ্ধে

264
ফের আক্রান্ত বিজেপি! দলীয় বৈঠকে যাওয়ার পথে ফলতায় বিজেপি নেতাকে রাস্তায় ফেলে মার, অভিযোগের তির তৃণমূলের বিরুদ্ধে 1

ওয়েব ডেস্ক : এমনিতেই মণীশ শুক্লার খুনের ঘটনায় রবিবার থেকেই পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য-রাজনীতি চাপানোতরের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যেই মঙ্গলবার ফের আক্রান্ত হলেন এক বিজেপি নেতা। এদিন দলীয় সভায় যাওয়ার পথে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ফলতার কাছে আক্রান্ত হলেন বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য। ঘটনায় বিজেপি নেতা শমিক ভট্টাচার্যের অভিযোগ, মঙ্গলবার ফলতার কাছে আচমকা তাঁর গাড়ি লক্ষ্য করে হামলা চালায় প্রায় ১৫০-২০০ জন দুষ্কৃতি। এমনকি ভেঙে দেওয়া হয়েছে বিজেপি নেতার গাড়ির কাঁচ। এরপর শমিক ভট্টাচার্যকে রীতিমতো গাড়ি থেকে হেঁচরে বার করে রাস্তায় ফেলে মারধর করা হয়। এদিকে এই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই শাসকদলের বিরুদ্ধে আঙুল তুলেছে গেরুয়া শিবির।

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডায়মন্ড হারবারে একটি দলীয় সভায় যোগ দিতে যাচ্ছিলেন শমীক ভট্টাচার্য। সে সময় একই গাড়িতে আরও বেশ কয়েকজন ছিলেন। বিজেপি নেতার জানান, এদিন তাদের গাড়ি ফলতায় ঢোকার মুখে আচমকা কয়েক কমপক্ষে ১৫০-২০০ জন তাদের গাড়ি আটকাতে এগিয়ে আসেন। তাঁদের প্রত্যেকের হাতে অস্ত্র। কারও হাতে তরোয়াল, আগ্নেয়াস্ত্র, কারও হাতে আবার লোহার রড ছিল বলে দাবি করেছেন শমীক ভট্টাচার্য। ঘটনায় বিজেপি নেতার অভিযোগ, ওই দুষ্কৃতিরা তাদের গাড়ি ভেঙে দেয়। শমিক সহ প্রত্যেককে গাড়ি থেকে টেনেহিঁচড়ে বের করে মারধর করতে শুরু করে। এতটাই জনরোষ যে তাদের কোনওভাবেই ঠেকানো যাচ্ছিল না। এমনকি তাদের উপর লুঠপাটও চালানো হয়। কেড়ে নেওয়া হয় তাদের মোবাইল, টাকা-পয়সা।

ফের আক্রান্ত বিজেপি! দলীয় বৈঠকে যাওয়ার পথে ফলতায় বিজেপি নেতাকে রাস্তায় ফেলে মার, অভিযোগের তির তৃণমূলের বিরুদ্ধে 2

ঘটনায় শমীক ভট্টাচার্যের সাথে থাকা এক ব্যক্তির অভিযোগ, শুধু যে মারধর করেই ক্ষান্ত থেকেছেন তা নয়৷ সেই সাথে শমীকের হাতের সোনার আংটিও খুলে নেওয়ার চেষ্টা করে ওই দুষ্কৃতিরা। এমনকি আংটি দিতে না চাইলে শমীকের আঙুলও কেটে নেওয়ারও হুঁশিয়ারি দেয় তারা। ঘটনার পর কোনোরকমে গাড়িতে উঠেই এলাকা ছাড়েন শমিক। জানা গিয়েছে, এদিনের ঘটনায় বেশ খানিকটা আহত হয়েছেন বিজেপি নেতা। তাঁর পায়ে ও মাথায় চোট লাগায় ইতিমধ্যেই তাঁর পায়ের এক্স-রে করা হয়েছে। জানা গিয়েছে,প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য এদিন জোকার কাছে একটি হাসপাতালে তাঁর ভর্তির সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে দলের নেতার উপর হামলার ঘটনা জানতে পেরে এই ঘটনায় শাসকদলকেই কাঠগড়ায় তুলেছে গেরুয়া শিবির। এদিন বিজেপির তরফে শাসকদলের প্রতি ব্যাঙ্গাত্মক সুরে বলা হয়, এই রাজ্যের অবস্থা এতটাই শোচনীয় যে দলীয় বৈঠকে যাওয়ার সময়ও বিরোধীদের উপর হামলা চালানো হচ্ছে। যদিও বিজেপির এই অভিযোগ একেবারেই অস্বীকার করেছে শাসকদল। এই ঘটনায় দক্ষিণ ২৪ পরগনার তৃণমূল জেলা সভাপতি শুভাশিস চক্রবর্তী জানান, ইদানীং যা ঘটছে তা সব তৃণমূলের উপর চাপিয়ে দিচ্ছে বিজেপি। পাশাপাশি তিনি দাবি করেন এদিন শমীক ভট্টাচার্যের উপর হামলার ঘটনায় তৃণমূলের কেউ জড়িত নন। এদিকে মণীশ শুক্ল-র খুনের ৪৮ ঘন্টা কাটতে না কাটতেই মঙ্গলবার ফের বিজেপি নেতার উপর হামলার ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই ফুঁসছে গেরুয়া শিবির।