দিলীপ ঘোষ সহ বাংলার একাধিক জায়গায় নাশকতার ছক ছিল ধৃত আল-কায়দা জঙ্গিদের, দাবি NIA-র

296
দিলীপ ঘোষ সহ বাংলার একাধিক জায়গায় নাশকতার ছক ছিল ধৃত আল-কায়দা জঙ্গিদের, দাবি NIA-র 1

ওয়েব ডেস্ক : সম্প্রতি আল-কায়দা জঙ্গি সন্দেহে মুর্শিদাবাদ থেকে ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে NIA। কলকাতায় একপ্রস্থ জিজ্ঞাসাবাদের পর ইতিমধ্যেই তাদের ফের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দিল্লী নিয়ে যাওয়া হয়েছে। দিল্লিতে NIA গোয়েন্দাদের জেরার মুখে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন ওই ছয় জঙ্গি। NIA সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত জঙ্গিদের দাবি, মূলতঃ পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি রাজ্য সভাপতির উপরই তাদের হামলার ছক ছিল। শুধু তাই নয়, NIA সূত্রে জানা গিয়েছে, জেরার মুখে ধৃত জঙ্গিরা জানিয়েছে, শুধুমাত্র রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষই নয়, সেই সাথে পশ্চিমবঙ্গ সহ রাজধানী দিল্লীতেও বড়সড় নাশকতার ছক কষছিল ধৃত ৬ আল-কায়দা জঙ্গি। এদিকে দিলীপ ঘোষের উপর হামলার পরিকল্পনার কথা প্রকাশ্যে আসতেই স্বাভাবিকভাবেই রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

আরও পড়ুন -  বাতিল হচ্ছে না 'জেইই ২০২০' ও 'নিট ২০২০', বিক্ষোভ পরীক্ষার্থীদের

এবিষয়ে NIA গোয়েন্দাদের দাবি, জঙ্গিদের টার্গেটের তালিকার একেবারে প্রথমে ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিকে ধৃত জঙ্গিদের গ্রেফতারের পর তাদের বাড়ি তল্লাশিতে বোমা তৈরির মেশিন, বন্দুক তৈরির সামগ্রী এবং বেশ কিছু নথি পাওয়া গিয়েছে, এমনকি ধৃত এদের মধ্যে একজন আবু সুফিয়ানের বাড়ি থেকে বোমা মজুতের সড়ঙ্গ পাওয়া গিয়েছে, এমনকি পাওয়া গিয়েছিল বোমা তৈরির লেদ মেশিন। যা থেকে একথা স্পষ্ট যে ধৃত ৬ জন জঙ্গি কার্যকলাপের সাথে যুক্ত। একই সাথে NIA-র দাবি, এদিন গোয়েন্দাদের জেরার মুখে তারা স্বীকার করেন খুব শীঘ্রই পশ্চিমবঙ্গের বেশ কিছু জায়গা সহ দিল্লীর একটি রেল স্টেশনে নাশকতার ছক ছিল তাঁদের।

দিলীপ ঘোষ সহ বাংলার একাধিক জায়গায় নাশকতার ছক ছিল ধৃত আল-কায়দা জঙ্গিদের, দাবি NIA-র 2

অন্যদিকে, মুশির্দাবাদ থেকে ৬ জঙ্গি গ্রেফতারের দিন কয়েক কাটত্র না কাটতেই সোমবার বীরভূমের শান্তিনিকেতন থেকে গ্রেফতার ৪ বাংলাদেশী জঙ্গি। সোমবার আচমকা তল্লাশি চালিয়ে NIA-র জালে ৪ জঙ্গি৷ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃতদের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, নাইন এমএম পিস্তল, বোমা তৈরির মশলা উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনায় স্থানীয়দের তরফে জানানো হয়েছে। মাস কয়েক আগে ওই এলাকাতে এক ব্যক্তির বাড়িতে বাড়ি ভাড়া নেয় ৪ অভিযুক্ত৷ তবে যেহেতু বাড়ির মালিক ওই বাড়িতে থাকেন না, সেকারণে তারা কি করতো তা সেভাবে খতিয়ে দেখেননি কেউই। এমনকি আশেপাশের কারো সাথেই কথা বলতেন না তারা। ঘটনার পর ইতিমধ্যেই ওই বাড়িতে পুলিশের তল্লাশি শুরু করেছে গোয়েন্দারা। তবে মুর্শিদাবাদ থেকে ধৃত ৬ আল-কায়দা জঙ্গির সাথে কোনোভাবে বীরভূমের এই ৪ জঙ্গির কোনোভাবে যোগসূত্র রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা দল।