প্রশাসনিক পদে রদবদল; চতুর্থ দফা ভোটের আগেই ৩ জেলাশাসকে সরিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন

495
প্রশাসনিক পদে রদবদল; চতুর্থ দফা ভোটের আগেই ৩ জেলাশাসকে সরিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন 1

বিশ্বজিৎ দাস: চতুর্থ দফা ভোটের আগেই প্রশাসনিক পদে রদবদল। দুই বর্ধমান ও দক্ষিণ দিনাজপুরের জেলাশাসককে  সরিয়ে নতুন মুখ আনল নির্বাচন কমিশন। বদলি করা হল কলকাতার রিজেন্ট পার্ক ও বাঁশদ্রোণী থানার ওসি-কে।

রাজ্যে ইতিমধ্যেই আট দফায় বিধানসভা ভোটের তিনটি দফায় ভোট পর্ব সম্পন্ন হয়েছে। আগামী শনিবার, চতুর্থ দফা ভোট। পূর্ব বর্ধমানে ১৬টি বিধানসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ পঞ্চম ও ষষ্ঠ দফায়, আর সপ্তম দফায় পশ্চিম বর্ধমান ও দক্ষিণ দিনাজপুরে ভোট হবে। তার আগেই এই রদবদল করা হল;  দক্ষিণ দিনাজপুরের নির্বাচনী আধিকারিক নিখিল নির্মলকে সরিয়ে তাঁর জায়গায় দায়িত্বে এলেন সি মুরুগান। অপসারিত করা হয়েছে পূর্ব বর্ধমানের নির্বাচনী আধিকারিক এনাউর রহমানকেও। তাঁর জায়গায় জেলার নতুন নির্বাচনী আধিকারিক হচ্ছেন শিল্পা গৌরিসারিয়া। পশ্চিম বর্ধমানের জেলা নির্বাচনী আধিকারিক হলেন অনুরাগ শ্রীবাস্তব। এর আগে পূর্ণেন্দু কুমার মাঝি সেই দায়িত্বে ছিলেন। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার মধ্যে এই তিনজনকে সরিয়ে নতুন তিনজনকে কাজে যোগ দেওয়ার নির্দেশ কমিশনের। রাজ্য সরকারকে নির্বাচন কমিশন স্পষ্ট জানিয়েছে, অপসারিত ওই তিন জনকে নির্বাচন সংক্রান্ত কোনও কাজ করানো যাবে না।

প্রশাসনিক পদে রদবদল; চতুর্থ দফা ভোটের আগেই ৩ জেলাশাসকে সরিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন 2

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশনের ভোট ঘোষণার পর থেকেই রাজ্য পুলিসে রদবদল চলছে। এই রদবদল তালিকায় বাদ যাননি ডিজি, এডিজি(আইনশৃঙ্খলা)-র মতো শীর্ষ পদাধিকারীরাও। তৃতীয় দফায় ভোটে আগেও আলিপুরদুয়ারের পুলিস সুপার অমিতাভ মাইতি, ডায়মন্ড হারবারের (শিল্পাঞ্চল) ডেপুটি পুলিস কমিশনার মিঠুন দে ও চন্দননগরের ডেপুটি পুলিস কমিশনার তথাগত বসুকে সরিয়ে দিয়েছিল কমিশন। কিন্তু জেলাশাসক পদে একমাত্র ব্যতিক্রম ছিলেন আয়েশা রানি। ঝাড়গ্রামের জেলাশাসককে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে মুখ্যসচিবের দফতরে। তাঁর জায়গায় দায়িত্বে এসেছেন জয়সী দাশগুপ্ত। চুতর্থ দফার ভোটের আগে এবার দুই বর্ধমান ও দক্ষিণ দিনাজপুরে জেলাশাসক বদল করল নির্বাচন কমিশন।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি, নির্বাচন কমিশন কলকাতার ৮ জন এই রিটার্নিং অফিসারকে পক্ষপাতমূলক আচরণের অভিযোগে সরিয়ে দিয়েছে বলে জানা গিয়েছে, যদিও কমিশন জানিয়েছে, কোন অভিযোগের কারণে নয়, এটা নেহাতই রুটিন বদলি। এই তালিকায় রয়েছে জোড়াসাঁকো, কলকাতা বন্দর, ভবানীপুর, এন্টালি, চৌরঙ্গী, শ্যামপুকুর, কাশীপুর-বেলগাছিয়া, বেলেঘাটা। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, এই ৮ রিটার্নিং অফিসারের বিরুদ্ধে,পক্ষপাতিত্ব, বিরোধীদের অভিযোগে গুরুত্ব না দেওয়ার মতো বিষয়ে কমিশনে নালিশ জানায় বিভিন্ন বিরোধী রাজনৈতিক দল। তাই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। তারও কয়েক দিন আগে সরানো হয়েছে বালিগঞ্জের রিটার্নিং অফিসারকে। সব মিলিয়ে রাজ্যে বিধানসভা ভোট চলাকালীন মাত্র কয়েকদিনের ব্যবধানেই মোট ১২ জন রিটার্নিং অফিসারকে সরিয়ে দিল কমিশন।