পদ্মশ্রী পেলেন বাংলার তাঁতশিল্পী বীরেন বসাক,খুশির হাওয়া তাঁতি মহলে

187
পদ্মশ্রী পেলেন বাংলার তাঁতশিল্পী বীরেন বসাক,খুশির হাওয়া তাঁতি মহলে 1

নিউজ ডেস্ক: প্রতি বছর প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন পদ্মশ্রী, পদ্মভূষণ,পদ্মবিভূষণ পুরস্কার প্রাপকদের নাম ঘোষণা করেন রাষ্ট্রপতি। ২০২১ সালের পদ্মশ্রী সম্মান প্রাপকদের তালিকায় শান্তিপুরের তাঁতশিল্পী বীরেনকুমার বসাকের নাম উঠে এসেছে।খুশি তাঁতি মহল। বীরেনবাবু আনন্দের সঙ্গে বলেন, তিনি অত্যন্ত খুশি এবং এই পুরস্কার দেওয়ার জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এই পুরস্কার কঠোর পরিশ্রমের একটা স্বীকৃতি তার কাছে।

পদ্মশ্রী পেলেন বাংলার তাঁতশিল্পী বীরেন বসাক,খুশির হাওয়া তাঁতি মহলে 2

২০১৩ সালে বীরেনবাবু জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিলেন। রামায়ণের যুগের শাড়ি তৈরি করায় তিনি সাম্মানিক ডক্টরেট লাভ করেছিলেন। সবচেয়ে বন শাড়ি তৈরি করার জন্য তাঁর নাম গিনিস বুকেও উঠেছিল। ফুলিয়া এবং শান্তিপুর মিলিয়ে প্রায় তিন লক্ষ তাঁতশিল্পী আছেন। সেখানে তৈরি হয় জামদানি, টাঙ্গাইল, সিল্ক, তসর, মটকা, মুগা শাড়ি। এই স্বীকৃতি তার শিল্পীদেরও বলে তিনি জানান।

পদ্মশ্রী পেলেন বাংলার তাঁতশিল্পী বীরেন বসাক,খুশির হাওয়া তাঁতি মহলে 3

এই মুহূর্তে তার কাছে ৫,০০০ তাঁতশিল্পী রয়েছেন। তাদের মধ্যে ২,০০০ মহিলা। তারা এখানে কাজ করে আজ স্বনির্ভর। এই পুরস্কার আসলে তাদেরই। ষাটের দশকে বাংলাদেশ থেকে ভারতে চলে আসতে হয়েছিল। পড়াশোনাও খুব একটা হয়নি। ১৩ বছর বয়স থেকে তাঁতশিল্পী হিসাবে কাজ শুরু করি। তখন দৈনিক আয় ছিল আড়াই টাকা।

আজ তার কাছ থেকে শাড়ি কেনেন স্বয়ং বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, ওস্তাদ আমজাদ আলি খান, আশা ভোঁসলে, লতা মঙ্গেশকর। অতীতে সত্যজিৎ রায় এবং হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ও তাঁর ক্রেতা ছিলেন।

Previous articleআমি এখানকার ভূমিপুত্র, ভোটে দাঁড়ালে ডোমজুড় থেকেই দাঁড়াবো; দলবদলের জল্পনা উস্কে ঘোষণা রাজীবের
Next articleঅধিবেশনের আগেই উত্তাল বিধানসভা চত্বর,গেটে চড়ে বসলেন আন্দোলনরত শিক্ষকরা