নিউ নর্মালে পর্যটকদের ঠিকানা হোক হিমালয় ঘেঁষা বাংলা! শুরু হচ্ছে বেঙ্গল হিমালয় কার্নিভাল

229
নিউ নর্মালে পর্যটকদের ঠিকানা হোক হিমালয় ঘেঁষা বাংলা! শুরু হচ্ছে বেঙ্গল হিমালয় কার্নিভাল 1

নিউজ ডেস্ক: শিলিগুড়ি: হিমালয় মানেই সিকিম, নেপাল, ভুটান নয় এই বাংলার মুকুট জুড়েও হিমালয়! সেই বাংলার হিমালয় বা হিমালয় ঘেঁষা বাংলাকে পর্যটকদের কাছে তুলে ধরতেই এবার একটি বিশেষ কার্নিভালের আয়োজন করছে রাজ্য পর্যটন দপ্তর। আগামী ৫ই ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হতে চলেছে তিনদিনের সেই বর্ণাঢ্য আয়োজনের। জানা গেছে লকডাউন পরবর্তী কালে রাজ্য পর্যটন দপ্তরের উদ্যোগে এটাই প্রথম উদ্যোগ যেখানে দপ্তর চাইছে নিউ নর্মাল পরিস্থিতিতে পর্যটকদের ঠিকানা হোক হিমালয় ঘেঁষা বাংলা। যে কারনে তিনদিনের কার্নিভালের জন্য হিমালয়ের কোলে থাকা বাংলার তিনটি মনোরম স্থানকে বেছে নেওয়া হয়েছে।

নিউ নর্মালে পর্যটকদের ঠিকানা হোক হিমালয় ঘেঁষা বাংলা! শুরু হচ্ছে বেঙ্গল হিমালয় কার্নিভাল 2

রাজ্যের পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব একটি সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন, এই ‘বেঙ্গল হিমালয়ান কার্নিভাল’-এর সূচনা হচ্ছে ৫ ফেব্রুয়ারি। রাজ্য পর্যটন দপ্তরের সঙ্গে সহযোগিতা করছে জিটিএ, ফরেস্ট ডিপার্টমেন্ট, হিমালয়ান হসপিটালিটি অ্যান্ড টুরিজম ডেভেলপমেন্ট নেটওয়ার্ক।
পর্যটন দপ্তর সূত্রে জানানো হয়েছে, ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে পরপর তিনদিন কার্নিভাল শুরু হচ্ছে। ৫ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ১০টায় দার্জিলিংয়ের চৌরাস্তায় অনুষ্ঠান শুরু হবে। অনুষ্ঠানে বহু স্টল থাকছে। পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও হবে।

নিউ নর্মালে পর্যটকদের ঠিকানা হোক হিমালয় ঘেঁষা বাংলা! শুরু হচ্ছে বেঙ্গল হিমালয় কার্নিভাল 3

দার্জিলিং, কালিম্পং ও গজলডোবায় অনুষ্ঠান হওয়ার কথা আগেই জানানো হয়েছিল। ‘হেরিটেজ ওয়াক’ থেকে স্টোরি টেলিং, পাখি দেখা থেকে আদিবাসী নাচ, স্থানীয় হস্তশিল্প থেকে খাওয়া-দাওয়া থাকছে সবকিছুই। ৬ ফেব্রুয়ারি কালিম্পংয়ের ডেলোর মাঠে ও ৭ ফেব্রুয়ারি গজলডোবায় কার্নিভাল হবে। হিমালয়ের অংশীদার হিসাবে বাংলাকে হাজির করে করোনা পরিস্থিতিতে পর্যটন বিকাশই কার্নিভালের উদ্দেশ্য। তবে সমস্ত সরকারি বিধি মেনেই অনুষ্ঠান চলবে।

পর্যটন দপ্তর সূত্রে এও জানা গেছে যে, লকডাউন পর্বে দেশের সঙ্গে সঙ্গে রাজ্যেরও পর্যটন শিল্প মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তার মধ্যেও সর্বাধিক ক্ষতি হয়েছে পাহাড়ের কারন করোনা বিধি শিথিল হওয়ার পর পর মানুষ বিশেষ করে সমতলের মানুষ কাছে পিঠের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। তাছাড়া ট্রেন পরিষেবা এখনও স্বাভাবিক না হওয়ায় উত্তরমুখি হচ্ছেন না পর্যটকরা।

পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে ভাঁড়ারে টান পড়েছে খোদ পর্যটন দপ্তরের রাজস্বতেও। আর সেই কারনে বিভিন্ন সংস্থার সহায়তা নিয়ে ক্ষুদ্র পরিসরে এই কার্নিভালের আয়োজন করা হয়েছে। পর্যটন দপ্তর আশা করছে এই প্রচারোৎসব ফের হিমালয়ের কোলে পর্যটকদের আসতে উৎসাহিত করবে। হিমালয়ের কোলে বাংলার নতুন কিছু জায়গায় ছবি প্রোজেক্ট করা হবে এখানে।

Previous articleতাল কাটল আরও এক তৃনমূল বিধায়কের! মুখ্যমন্ত্রীর সভায় গরহাজির থেকে জল্পনা বাড়ালেন উত্তরপাড়ার বিধায়ক
Next articleগোয়ালতোড়ে কুকুরের তাড়া খেয়ে পুকুরে পড়ে মৃত্যু হল হরিণীর