করোনা মোকাবিলায় দেশবাসীর উদ্দেশ্যে সাহায্যের হাত বাড়ালেন বিগ বি; পোল্যান্ড থেকে কিনলেন ৫০ টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর

108
Advertisement

নিউজ ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় তরঙ্গ পুরো দেশটিতে আছড়ে পড়েছে। এই কঠিন সময়ে, সাধারণ মানুষের পাশাপাশি বলিউড সেলিব্রিটিরাও ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তা করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করছেন। এই ভীষণ পরিবেশে অমিতাভ বচ্চন সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। অমিতাভ বচ্চন তাঁর ব্লগে জানান যে, তিনি পোল্যান্ড থেকে ৫০ টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর কিনেছেন। ২০ টি ভেন্টিলেটরের অর্ডারও দেওয়া হয়েছে, যার মধ্যে ১০ টি তার কাছে পৌঁছেছে।

Advertisement

বিগ বি তার ব্লগে জানিয়েছেন যে পোল্যান্ড থেকে ৫০ টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটার অর্ডার করা হয়েছে। এর আগে অমিতাভ বচ্চন কোভিড ত্রাণ তহবিলে দিল্লি শিরোমণি গুরুদ্বার ম্যানেজমেন্ট কমিটিতে দুই কোটি টাকা অনুদানও দিয়েছিলেন। অমিতাভ বলেন যে, এই অক্সিজেন, জরুরী পরিস্থিতিতে তিনি দান করবেন। অমিতাভ পোলিশ এয়ারলাইনসকে তাদের আনা দ্রব্যের চার্জ মুকুব করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

Advertisement
Advertisement

অমিতাভ বচ্চন, যিনি বিএমসি এবং পৌর হাসপাতালে ভেন্টিলেটর অনুদান দিয়েছেন, অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটার ছাড়াও ২০ টি ভেন্টিলেটরও আনছেন। এর মধ্যে ১০ টি ভেন্টিলেটর বিএমসি এবং পৌর হাসপাতালে পৌঁছেছে। বাকি ১০ টি শীঘ্রই পৌঁছাতে চলেছে। অমিতাভ বচ্চন ব্লগে আরও লিখেছেন যে, এই বিপজ্জনক ভাইরাসটি কেবল দৃঢ় ইচ্ছাশক্তি নিয়েই লড়াই করা যেতে পারে এবং ঈশ্বরের আশীর্বাদে আমরা অবশ্যই এই যুদ্ধে জয়ী হব।

অন্যদিকে, সোনু সুদ কিছুদিন আগে কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য চীন ও ফ্রান্স থেকে অক্সিজেন প্লান্ট অর্ডার করেছিলেন। এ সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে সোনু সুদ বলেন, “আমাদের এই চ্যালেঞ্জটি একসাথে মোকাবেলা করতে হবে এবং আমাদের যথাসাধ্য চেষ্টা করতে হবে, যাতে এই মহামারী থেকে আগত সময়ে আরও বেশি লোককে প্রাণ হারাতে না হয়।”

এর আগে,মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে করোনার তৃতীয় তরঙ্গের সম্ভাবনা সম্পর্কে রাজ্যের জনগণকে সতর্ক করেছেন। তৃতীয় তরঙ্গের ঘটনায় মেডিকেল অক্সিজেনের চাহিদা মেটাতে রাজ্য সরকার যে প্রস্তুতি নিয়েছে সে সম্পর্কেও তিনি কথা বলেছেন। মহারাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা দিবসের প্রাক্কালে টেলিভিশন ভাষণে ঠাকরে বলেছিলেন যে, বর্তমানে অক্সিজেনের চাহিদা খুব কমই পূরণ করা হয়েছে তবে আগামী ২০-২৫ দিনের মধ্যে সমস্ত সরকারী হাসপাতালে অক্সিজেন প্লান্ট থাকবে।

উদ্ধব ঠাকরে বলেছিলেন যে, আমরা চাই না তৃতীয় তরঙ্গ আসুক, তা আসলেও আমরা অক্সিজেনের অভাব হতে দেব না। ঠাকরে বলেছিলেন যে, আমরা চিকিৎসক বেড , নার্স বা অক্সিজেন বাড়ানো যায় তা ভেবে দেখেছি। তিনি বলেন, আরও অনেক রাজ্য থেকে অক্সিজেন আনার চেষ্টা চলছে। তারা বাইরে থেকে আসা অক্সিজেন এবং এর ট্র্যাফিকের জন্যও অর্থ প্রদান করে। সময় মতো অক্সিজেন আনার জন্য সব প্রচেষ্টা চলছে। করোনার কেসগুলি বাড়লে ঝামেলা আরও বাড়তে পারে, তবে ভাল কথাটি হচ্ছে যে কেসগুলি বাড়ছে না।