বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার; মেরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে অভিযোগ বিজেপির, উত্তেজনা চাকুলিয়ায়

359
বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার; মেরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে অভিযোগ বিজেপির, উত্তেজনা চাকুলিয়ায় 1

নিজস্ব সংবাদদাতা, উত্তর দিনাজপুর: বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার ঘিরে আবারও চাঞ্চল্য। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার ডালখোলা থানার চাকুলিয়া বিধানসভার বেগুয়া এলাকার সীতাদীঘি গ্রামে। বিজেপির অভিযোগ, তাকে পিটিয়ে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। অভিযোগের তির তৃণমূল কংগ্রেসের দিকে। মৃত ব্যক্তির নাম সত্যজিৎ সিংহ। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিশাল পুলিশবাহিনী। মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, সোমবার ভোর বেলায় বাড়ির কাছে থেকে মৃতদেহ দেখতে পায়, বিজেপি কর্মীর মৃত্যুর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেব্রশী চৌধুরী ও চাকুলিয়া বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থী ডাঃ সচীন প্রসাদ ও করণদিঘী বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সুভাষ সিনহা। বিজেপি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেব্রশী চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, তৃণমূলের দুষ্কৃতিরা মৃত সত্যজিৎ সিংহ মাথায় মারধর করে তাকে মেরে ঝুলিয়ে দিয়েছে।

বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার; মেরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে অভিযোগ বিজেপির, উত্তেজনা চাকুলিয়ায় 2

চাকুলিয়া বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী ডক্টর সচীন প্রসাদ অভিযোগ করে বলেন যে, তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিরা সত্যজিৎকে প্রথমে মারধর করে এবং তারপরে তাকে একটি গাছে ঝুলিয়ে দিয়েছে। এই ঘটনায় তিনিও দোষীদের শাস্তির দাবী তুলেছেন। তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, তৃণমূল কংগ্রেস বুঝতে পেরেছে এই এলাকায় বিজেপি জিতছে তাই তারা এই ধরনের ঘটনা ও সন্ত্রাস করছে এলাকায়। যদি দোষীদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে শাস্তি না দেওয়া হয় তাহলে বিজেপি পথে নামবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন বিজেপি প্রার্থী।

নির্বাচন প্রাক্কালে একের পর এক বিজেপি কর্মী ও নেতাদের রহস্য মৃত্যুর ঘটনা প্রকাশ্যে আসছে। সম্প্রতি কোচবিহার জেলার দিনহাটায় পশু হাসপাতালের বারান্দায় দেখতে পাওয়া যায় বিজেপি-র মণ্ডল সভাপতি অমিত সরকারের ঝুলন্ত দেহ। তা নিয়ে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত দফায় দফায় উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। ঘটনার কথা জানাজানি হতেই রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। এই ঘটনার জন্য কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ তথা দিনহাটা বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামানিক সরাসরি শাসক শিবিরকে নিশানা করেন।

এছাড়াও দ্বিতীয় দফা ভোটের দিন নন্দীগ্রামের ভেকুটিয়ায় বিজেপি কর্মীর ঘরের ভিতর থেকেই উদ্ধার হয় তাঁর ঝুলন্ত দেহ। তৃণমূলের হুমকির জেরেই আত্মহত্যা, অভিযোগ পরিবারের। মৃত বিজেপি কর্মীর নাম উদয়শঙ্কর দুবে। পরিবারের দাবি, বুধবার রাতে তৃণমূলের দল হুমকি দেওয়ার পর নিজের ঘরে চলে যান উদয়। তাঁকে দেখে কিছুটা অবসাদগ্রস্ত বলে মনে হচ্ছিল। বৃহস্পতিবার ভোরে ঘুম থেকে উঠে বাথরুমে যান তিনি। এর কিছুক্ষণ পরেই ঘর থেকে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। আতঙ্কের আবহ তৈরি হয় গোটা গ্রাম জুড়ে।

এসব ছাড়াও বঙ্গের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিজেপি কর্মী থেকে শুরু করে প্রার্থীদেরও আক্রান্ত হওয়ার খবর সামনে আসছে। প্রতিটি ক্ষেত্রেই কাঠগড়ায় উঠছে রাজ্যের শাসক দল, যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে তারা। এর আগেও উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদে বিজেপি বিধায়কের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় তোলপাড় হয়ে উঠেছিল গোটা বাংলা। এ মৃত বিজেপি বিধায়কের পকেট থেকে সেসময় (২০২০ সালের ১৩ জুলাই) একটি সুসাইড নোট উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার তদন্তে নামে সিআইডি। গ্রেপ্তার করা হয় সুসাইড নোটে উল্লিখিত দুই ব্যক্তিকেও। এরপর কেটে গিয়েছে বেশ কয়েকটা মাস, এসেছে ২০২১- এর বিধানসভা নির্বাচন। তবে সেই পুরোনো চিত্র যেন বদলাল না এখনও।