Homeএখন খবরপোস্ত চাষে বাধা , মুখ্যমন্ত্রীর শপথ গ্রহনের আগেই ঝাড়খণ্ডে কমিউনিটি সেণ্টার উড়িয়ে...

পোস্ত চাষে বাধা , মুখ্যমন্ত্রীর শপথ গ্রহনের আগেই ঝাড়খণ্ডে কমিউনিটি সেণ্টার উড়িয়ে দিল মাওবাদীরা

Advertisement

নিজস্ব সংবাদদাতা: যে কায়দায় সন্ত্রাসবাদীরা নিষিদ্ধ ড্রাগের কারবার করে নিজেদের সন্ত্রাস কায়েম রাখার জন্য অর্থ উপার্জন করে অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ মজুত করার জন্য ঠিক সেই কায়দাতেই মাওবাদীরা পোস্তর চাষ করছে বিভিন্ন এলাকায়। বেসরকারি ভাবে পোস্ত চাষ নিষিদ্ধ কারন পোস্ত থেকেই আফিম আর আফিম থেকেই উৎপন্ন হয় নিষিদ্ধ ড্রাগ।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
মাওবাদীদের নিজস্ব নিয়ন্ত্রনে থাকা এলাকায় একের পর এক গ্রামে চলে আফিমের চাষ। চাষিদের জোর করে এই চাষ করতে বাধ্য করা হয় অনেকটাই ইংরেজ আমলের নীল চাষের মতই।
এই পোস্ত চাষ বন্ধ করতে পারলে মাওবাদীদের অর্থনীতিতে আঘাত করা যাবে এমনটাই ভেবে সম্প্রতি তৎপর হয়েছে ঝাড়খন্ড পুলিশ। খুঁটি  জেলার যে অংশে পোস্ত চাষ হয় সেখানে বেছে বেছে বসানো হচ্ছে যৌথ বাহিনীর ক্যাম্প। আর তার বিরুদ্ধেই হুঁশিয়ারি দিয়ে রবিবার একটি কমিউনিটি সেন্টার উড়িয়ে দিল মাওবাদীরা।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
রবিবার ভোরে খুঁটি জেলার সেলদা গ্রামে মাওবাদীদের ঘটানো এই  জোরালো বিস্ফোরনের জেরে কমিউনিটি সেন্টারের একাংশ উড়ে যায়। রবিবার দুপুরেই ঝাড়খণ্ডের নতুন মুখ্যমন্ত্রীর শপথ গ্রহণের কয়েকঘণ্টা আগেই মাওবাদীদের এই কার্যকলাপ নির্বাচিত সরকারের উপর যে চাপ বাড়াবে, তা নিশ্চিত ।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
রবিবার দুপুর দু’টো নাগাদ রাঁচির মোরাদাবাদি গ্রামে শপথ নেবেন নব নির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন। তাঁর শপথ গ্রহনের  মঞ্চ থেকে মাত্র ৭০ কিলোমিটার দূরে বিস্ফোরণ ঘটে। তবে কোনও হতাহতের খবর নেই। তবে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া মাওবাদী পোস্টারে ওই গ্রামের স্কুল থেকে পুলিশি ক্যাম্প সরিয়ে নেওয়ার জন্য হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। লেখা হয়েছে, স্কুল থেকে পুলিশি ক্যাম্প সরিয়ে নেওয়া হোক। শিশুদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ছেলেখেলা বন্ধ হোক।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশের ধারণা, স্কুল থেকে পুলিশি ক্যাম্প সরাতেই এই বিস্ফোরণ। সেলদা গ্রামে বেআইনিভাবে পোস্ত চাষ করা হচ্ছে। যার মূল উদ্দেশ্য, আফিম মজুত করা। আর সেই আফিম বাজারে বিক্রি করে মাওবাদী সংগঠনগুলি টাকা রোজগার করবে। কিন্তু এই চাষ রুখতে গ্রামে চলছে পুলিশি অভিযান। স্কুলে তৈরি হয়েছে পুলিশ ক্যাম্প। ফলে পোস্ত বা আফিম চাষ সম্ভব হচ্ছে না। তাই পুলিশকে সরাতে তৎপর মাও সংগঠনগুলি ।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
এ প্রসঙ্গে খুঁটির ডিএসপি আশিস মাহালি বলেন, “রবিবার ভোরে বিস্ফোরণ ঘটে। প্রাথমিক তদন্তের পর মনে করা হচ্ছে, বিস্ফোরণের পিছনে মাওবাদীদের হাত রয়েছে। গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।” তিনি আরও জানান, এখন আফিম চাষের সময়। এই আফিম বিক্রি করে প্রচুর টাকা আয় করে মাও সংগঠনগুলি। গত বছর এই গ্রামে তল্লাশি চালিয়ে প্রায় দুই কুইন্ট্যাল আফিম উদ্ধার হয়েছিল। এবার তাই আগেভাগে সতর্কতা নেওয়া হয়েছে। পুলিশি নজরজারি চলছে। সেই পুলিশি প্রহরা সরাতেই এই বিস্ফোরণ। প্রসঙ্গত, মাও অধ্যুষিত ছাতড়া জেলার পর খুঁটিতে সবচেয়ে বেশি আফিম চাষ হয়।

Advertisement

Advertisement

RELATED ARTICLES

Most Popular