করোনা কালে রক্তদান শিবির।, রক্তদান করলেন খড়গপুর শহর ও সবংয়ের বাসিন্দারা

648
করোনা কালে রক্তদান শিবির।, রক্তদান করলেন খড়গপুর শহর ও সবংয়ের বাসিন্দারা 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: শনিবার এবং রবিবার সপ্তাহান্তের দুদিন রক্তদান অনুষ্ঠান হয়ে গেল খড়গপুর শহর ও সবংয়ের মত গ্রামীন এলাকাতেও। করোনা কালীন সময়ে যা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বলেই জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। খড়গপুর রক্তদান শিবির দুটির আয়োজক ছিল খড়গপুর এক্সপ্লোরার্স এ্যসোশিয়েশন এবং মালঞ্চ সুপার মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতি। অন্যদিকে সবংয়ের মোহাড়ে রক্তদান শিবিরের আয়োজক ছিল ভারতের গণতান্ত্রিক যুব ফেডারেশন বা DYFI.

রবিবার মালঞ্চ সুপার মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির রক্তদান শিবিরে এক মহিলা সমেত ২৩ জন রক্ত দান করেছেন বলে জানিয়েছেন সংগঠনের সম্পাদক তন্ময় রায়। এই সংগঠনের ২য় বর্ষ এই রক্তদান শিবিরে উপস্থিত ছিলেন খড়গপুর শহরের বিধায়ক প্রদীপ সরকার, সভাপতি দেবাশিস চৌধুরী প্রমুখ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

করোনা কালে রক্তদান শিবির।, রক্তদান করলেন খড়গপুর শহর ও সবংয়ের বাসিন্দারা 2

অন্যদিকে শনিবার শহরের দন্ডপাঠ কমপ্লেক্সের সাথী সোসাইটির প্রাঙ্গনে সদ্য প্রয়াত চিকিৎসক গৌরাঙ্গ বিশ্বাস এবং সান্তনা রথ স্মরণে আয়োজিত রক্তদান শিবিরে রক্তদান করেছেন প্রায় ৩০জন রক্তদাতা। উপস্থিত ছিলেন ডাঃ সুশীল কুমার বেহেরা, ডাঃ ডাঃ এস. এ. নাজমি, ডাঃ ঝুমা মুখার্জী, ডাঃ অনুপ মল্লিক, ডাঃ এস. এস মাইতির মত শহরের এক ঝাঁক প্রখ্যাত চিকিৎসক ছাড়াও শ্রীমতি মধুমিতা বিশ্বাস, পলাশ দাসের মত ব্যক্তিত্বরা।

শনিবারই সবং থানা এলাকার মোহাড় বাজারের সৃজনী পাঠাগারে আয়োজিত যুব ফেডারেশনের মোহাড় লোকাল কমিটি আয়োজিত
রক্তদান শিবির রীতিমত সাড়া ফেলেছে এলাকায়। রক্ত দান করেছেন ৬১ জন ছাত্র যুব ও সাধারন মানুষ। সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রত্যেক রক্তদাতার হাতে তুলে দেওয়া হয় ফলের চারাগাছ। অন্যতম উদ্যোক্তা অভিজিৎ খাটুয়া জানিয়েছেন, “একটি প্রত্যন্ত এলাকায় দাঁড়িয়ে অভাবনীয় সাড়া পেয়েছি মানুষের। সব্বাইকে অভিনন্দন জানাই। যাঁরা রক্ত দিয়েছেন এবং যাঁরা এই শিবির আয়োজনে আমাদের বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করেছেন তাঁদের প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতা রইল।”