মেদিনীপুর কুইজ কেন্দ্রের উদ্যোগে শিক্ষক দম্পতির বিবাহ বার্ষিকীতে রক্তদান শিবির

100
Advertisement

নিজস্ব সংবাদদাতা, মেদিনীপুর: চেনা ছকের বাইরে গিয়ে পারিবারিক সামাজিক অনুষ্ঠান বিবাহ বার্ষিকীতে রক্তদান শিবির আয়োজিত হলো মেদিনীপুর কুইজ কেন্দ্র সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির উদ্যোগে। বৃহস্পতিবার শিক্ষক দম্পতি তথা মেদিনীপুর কুইজ কেন্দ্রের সহ-সভাপতি স্নেহাশিস চৌধুরী ও সদস্যা শবরী বসু চৌধুরীর যোড়শ বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে মেদিনীপুর শহরের বিবেকানন্দ নগরে স্নেহাশিস বাবুদের বাসভবনে অনুষ্ঠিত হলো একটি রক্তদান শিবির। শিবিরের চার জন মহিলা সহ মোট ৩৩ জন রক্তদান করেন।রক্তদেন চৌধুরী দম্পতিও। শিবিরে রক্তদাতাদের উৎসাহিত করতে উপস্থিত ছিলেন কুইজ কেন্দ্রের সভাপতি রিংকু চক্রবর্তী,শিক্ষা প্রশাসক কৌস্তুভ বন্দ্যোপাধ্যায়, চিকিৎসক ডাঃ সহদেব ঘোষ, ব্লাড ডোনার্স ফোরামের কর্মকর্তা অসীম ধর,জয়ন্ত মুখার্জি প্রধান শিক্ষক নারায়ন প্রসাদ চৌধুরী,সুরেশ পড়িয়া, প্রধান শিক্ষিকা স্বর্ণলতা বেরা, কুইজ কেন্দ্রের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সম্পাদক সুভাষ জানা,ঝেঁতলা ঐক্য সম্মিলনীর সভাপতি শিবপ্রসাদ সেন,গড়সেনাপত্যা জুনিয়র হাইস্কুলের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক মানস কুমার মল্লিক সহ অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

Advertisement

এছাড়াও কুইজ কেন্দ্রের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন অরন্দিম দাস, সুদীপ কুমার খাঁড়া,সূর্যশিখা ঘোষ,পায়েল পাল,প্রিয়াংঙ্কা মাইতি, অপূর্ব কুমার জানা,নরসিংহ দাস, শুভঙ্কর ভূঁঞ্যা,শুভরাজ আলি খান প্রমুখ। রক্ত সংগ্রহ করেন নয়াগ্রাম ব্লাড ব্যাংক। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন অরিন্দম দাস। এদিনের শিবিরে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন ঝেঁতলা ঐক্য সম্মিলনী সহ অন্যান্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। ছিলেন স্নেহাশিস চৌধুরী ও শবরী চৌধুরীর বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকারা। রক্ত দিতে এগিয়ে আসেন স্নেহাশীষবাবু যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেই গড়সেনাপত্যা এলাকার বেশকিছু প্রাক্তন ছাত্র ও অভিভাবকরা। ছিলেন দুঃস্থের ছায়ার ওয়াসিম আহমেদ, দিশারী ফাউন্ডেশনের সেক ইসমাইল,অঞ্জন ঘোষ ,গড়সেনাপত্যা আমরা সবাই সংস্থার কর্মকর্তা অচিন্ত্য দোলই ও পাঁচকৌড়ি দেব প্রমুখ। এদিনের শিবিরে কেশপুর-১ চক্রের প্রাথমিক শিক্ষকদের অনেকে উপস্থিত ছিলেন। এদিনের শিবিরে চৌধুরী দম্পতি সহ আরও দুই দম্পতি রক্তদান করেন। রক্তদান করেন দেবাশীষ মাইতি ও টুম্পা মাইতি এবং পূর্ণেন্দু মন্ডল ও মঞ্জুশ্রী ধাড়া মন্ডল। এদিনের শিবিরে সবুজায়নের বার্তা দিতে সমস্ত রক্তদাতা ও অতিথিদের হাতে একটি করে চারা গাছ তুলে দেওয়া হয়।

Advertisement
Advertisement