পুজোর মুখে ফের বীরভূমে ভয়াবহ বিস্ফোরণ, উড়ে গেল দুবরাজপুরে আস্ত একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র, আতঙ্কে গ্রামবাসী

300
প্রাতীকি চিত্র
পুজোর মুখে ফের বীরভূমে ভয়াবহ বিস্ফোরণ, উড়ে গেল দুবরাজপুরে আস্ত একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র, আতঙ্কে গ্রামবাসী 1

ওয়েব ডেস্ক: পুজো কাটলেই সামনেই বিধানসভা নির্বাচন। ইতিমধ্যেই সেই তোড়জোড় শুরু হয়ে গিয়েছে। এদিকে নির্বাচনের মুখে অনুব্রত-র গড়ে ফের ভয়াবহ বিস্ফোরণ। মঙ্গলবার রাতে এই ভয়াবহ বিস্ফোরণের জেরে উড়ে গেল বীরভূমের দুবরাজপুরে আস্ত একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র। বিস্ফোরণের তীব্রতা এতোটাই যে আচমকা আওয়াজে কেঁপে ওঠে গোটা গ্রাম। শব্দ পেয়ে গ্রামবাসীরা বেরিয়ে এসে দেখেন গোটা স্বাস্থকেন্দ্রটি ভেঙে গুড়িয়ে গিয়েছে। রীতিমতো ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি। চারিদিকে পোড়া বারুদের গন্ধ। ঘটনায় মঙ্গলবার রাত থেকেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গোটা গ্রামে।

আরও পড়ুন -  স্বাস্থ্য ভবনেই করোনার থাবা, আক্রান্ত ১৪ জন স্বাস্থ্য আধিকারিক, কপালে ভাঁজ প্রশাসনের

এই ঘটনায় স্থানীয় বাসিন্দাদের তরফে জানা গিয়েছে, দুবরাজপুরের হেমতাপুর পঞ্চায়েতের চাঁপানগরী গ্রামের ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে সেভাবে চিকিৎসক না থাকায় লকডাউনের জেরে দীর্ঘদিন স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি বন্ধ ছিল। মঙ্গলবার গভীর রাতে আচমকা বিকট শব্দে বিস্ফোরণ হয়। বিস্ফোরণের তীব্রতায় কেঁপে ওঠে গোটা এলাকা৷ স্থানীয়রা ছুটে গিয়ে দেখেন, ভেঙে পড়েছে স্বাস্থ্যকেন্দ্রের দেওয়াল, উড়ে গিয়েছে পাকা ছাদ। এদিকে গভীর রাতে আচমকা বিস্ফোরণে স্বাভাবিকভাবেই গোটা গ্রামে আতঙ্ক ছড়ায়। ঘটনার সঙ্গে সঙ্গেই থানায় খবর দেওয়া হলে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ।

পুজোর মুখে ফের বীরভূমে ভয়াবহ বিস্ফোরণ, উড়ে গেল দুবরাজপুরে আস্ত একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র, আতঙ্কে গ্রামবাসী 2

এদিকে এই ঘটনায় বুধবার সকাল থেকেই আরও বিস্ফোরণ মজুত আছে কিনা তার খোঁজে গোটা গ্রামে তল্লাশি চালানো হয়। ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রের আশেপাশে কোথাও বিস্ফোরক মজুত রয়েছে কি না তা ইতিমধ্যেই জানার চেষ্টা করছেন পুলিশকর্মীরা। যদিও ঘটনার তদন্তের পর পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে অনুমান, স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার সুযোগ নিয়ে কেউ বা কারা সেখানে বিস্ফোরক মজুত রেখেছিল। কিন্তু মঙ্গলবার রাতে কোনোভাবে বিস্ফোরণ হয়ে যায়। তবে মজুত রাখা বিস্ফোরণগুলি কী ধরণের বিস্ফোরক ছিল তা জানতে ঘটনাস্থলে ফরেন্সিক দল গিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখবে বলেই বীরভূম জেলা পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন -  জেলাতেই ফিরছে কোভিড হাসপাতাল, ঝাড়গ্রামে তৈরি পরিকাঠামো

তবে এই প্রথম নয়, বীরভূমে এই ধরণের বিস্ফোরণ অতীতে একাধিকবার ঘটেছে। এলাকার দখল রাখতে বিভিন্ন জায়গায় প্রচুর বিস্ফোরক মজুত করে রাখে দুষ্কৃতীরা। আর সেগুলি অসতর্কতার কারণে মাঝে মধ্যেই ফেটে গিয়ে বিস্ফোরণের সৃষ্টি হয়৷ কিছুদিন আগেই একটি শিশুকেন্দ্রে মজুত রাখা বিস্ফোরক আচমকা ফেটে গিয়ে বিস্ফোরণ হয়েছিল। ভেঙে গিয়েছিল স্কুলের পাঁচিল। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই ফের এই ঘটনা স্বাভাবিকভাবেই ভাবাচ্ছে এলাকাবাসীদের।