শুভেন্দু-দিলীপের মিছিলে ইটবৃষ্টি, পাল্টা বিজেপির, বাইক ভাঙচুর, ধুন্ধুমার কাণ্ড দক্ষিণ কলকাতায়

316
শুভেন্দু-দিলীপের মিছিলে ইটবৃষ্টি, পাল্টা বিজেপির, বাইক ভাঙচুর, ধুন্ধুমার কাণ্ড দক্ষিণ কলকাতায় 1

অশ্লেষা চৌধুরী:নাড্ডার পর শুভেন্দু র‍্যালিতে হামলা। দক্ষিণ কলকাতার শাসমলে শুভেন্দুর মিছিলে হামলা, চারু মার্কেট সহ ৩ জায়গায় হামলার খবর। শুভেন্দুর মিছিল লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টি। পাল্টা ইট ছোঁড়া ও বাইক ভাংচূর বিজেপির। ঘটনা ঘিরে তীব্র উত্তেজনা। অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে, অভিযোগ অস্বীকার শাসক শিবিরের।

শুভেন্দু-দিলীপের মিছিলে ইটবৃষ্টি, পাল্টা বিজেপির, বাইক ভাঙচুর, ধুন্ধুমার কাণ্ড দক্ষিণ কলকাতায় 2

সোমবার বিকেলে টালিগঞ্জ ট্রাম ডিপো থেকে শুরু করে রাসবিহারী অ্যাভেনিউর উদ্দেশে রওনা হয় শুভেন্দু অধিকারীর মিছিল। সঙ্গে ছিলেন বঙ্গ বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। কিন্তু সেই মিছিল পিএসসি ভবনের কাছে পৌঁছতেই রাস্তার ওপার থেকে ধেয়ে এল একের পর ইট। আধলা ইট নিয়ে ছোঁড়া হল বিজেপির মিছিলে। অভিযোগ, মিছিল চলাকালীন রাস্তার অপর প্রান্ত থেকে বিকৃত অঙ্গভঙ্গি করা হয় এবং তৃণমূলের পতাকা হাতে কয়েকজন মিছিল লক্ষ্য করে ইট ছোঁড়ে।

শুভেন্দু-দিলীপের মিছিলে ইটবৃষ্টি, পাল্টা বিজেপির, বাইক ভাঙচুর, ধুন্ধুমার কাণ্ড দক্ষিণ কলকাতায় 3

এরপরেই বিজেপি সমর্থকদের ধৈর্যের বাঁধ ভাঙ্গে; তাদের পক্ষ থেকেও চলে পাল্টা ইট বৃষ্টি। চলে বাইক ভাংচুর। পুরো ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। যদিও এলাকায় পুলিশের নজরদারি ছিল কড়া। তবে এই প্রথম নয়, মাস খানেক আগে ডায়মন্ড হারবারে বিজেপি সভাপতি জগৎপ্রকাশ নাড্ডার মিছিলে ইট ছুঁড়েছিল দুষ্কৃতিরা। তাতে আহত হয়েছিলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়, মুকুল রায়ের মতো নেতারাও। তাঁদের ও সাংবাদিকদের গাড়ি ভাঙচুর হয়েছিল সেদিন। এবার সোমবার প্রকাশ্য দিবালোকে ফের ঢিল ছোঁড়া হল শুভেন্দু-দিলীপের মিছিলে। বিজেপির দাবী, রোড শো-তে এসে তাঁদের এক কর্মীর মাথা ফেটেছে। আহত বহু।

সোমবার এ ঘটনার নিন্দা করেছে সমস্ত বিরোধী দল। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী বলেন, “তৃণমূল আর রাজনৈতিক মোকাবিলা করতে পারছে না। গুন্ডামিতে নেমে পড়েছে।” তাঁর কথায়, “আমি তো বলেছি, বাংলায় গণতন্ত্র নেই। তা আবার প্রমাণ হয়ে গেল।”

বিজেপি মুখপাত্ররা বলেন, “পঞ্চায়েত ভোটে গ্রামে তৃণমূল যা করেছিল, এ বার তা শহরেও করতে চাইছি। বিরোধীদের মেরে ধরে ভয় দেখিয়ে ভোট লুঠ করার ধান্দা করছে। কিন্তু এ বার তা আর হবে না। মানুষ প্রতিরোধ করবে।” দলের এক রাজ্য নেতার কথায়, “নির্বাচন কমিশনের কর্তারা ইতিমধ্যে কয়েক দফায় বাংলায় এসেছেন। তাঁরাও নিশ্চয়ই এ সব ফুটেজ দেখবেন। ফলে বিরোধীদের আর তাঁদের কাছে নতুন করে অভিযোগ জানাতে হবে না।”

তবে ঘটনা অস্বীকার করেছে শাসকদল। শাসক শিবিরের কলকাতার এক নেতা বলেন, ‘পুরোটাই বিজেপির সাজানো। ঘটনায় তৃণমূলের কোনও হাত নেই। বিজেপিই গোটা ব্যাপারটা সাজিয়েছে। তৃণমূলের পতাকা তো বাজারে সব জায়গা থেকেই কেনা যায়।’

Previous articleচিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীদের বরাদ্দ টিকায় ভাগ তৃণমূলের! আমফানের চাল চুরি, টাকা চুরির পর এবার টিকা চুরি শাসকের, কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের
Next articleখড়গপুরকে লেনিন ফিরিয়ে দিলেন প্রদীপ সরকার! আপ্লুত বাম সমর্থকরা