সন্ধ্যায় হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল বর্ধমান জংশনের সামনের অংশ, একাধিক মানু্ষের চাপা পড়ে থাকার আশংকা

68

নিজস্ব সংবাদদাতা : শনিবার সন্ধ্যায় ভরা ব্যস্ততার সময় ভেঙে পড়ল পুর্ব রেলের বর্ধমান জংশনের সামনের অংশ। ভেঙে পড়ল পুরোনো ভবনের একাংশ। গোটা ঘটনায় হতভম্ব সাধারন মানুষ। নিচে কয়েকজনের চাপা পড়ে থাকার আশংকা করা হচ্ছে ।  প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য ঘটনাটি ঘটেছে ৮টা ১৫ মিনিট নাগাদ। আচমকাই কড়কড় শব্দে ভেঙে পড়তে থাকে স্টেশনের প্রায় ১০০বছরের পুরনো ভবনের  একাংশ।


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
ঘটনার সময় প্রচুর লোকের সমাগম ছিল ঠিক ওই ভবনের নিচে। বহু মানুষ যেমন যাতায়ত করছিলেন তেমনই অনেকেই অপেক্ষা করছিলেন নিচে । বাড়ি ধসে পড়ায় আতঙ্ক ছড়ায় যাত্রীদের মধ্যে। আতঙ্কে চিৎকার ছোটাছুটি শুরু হয়ে যাত্রীদের মধ্যে ।  খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে ছুটে আসে বিপর্যয় মোকাবিলা দল, রেলপুলিশ, বর্ধমান জেলা পুলিশ ও রেলের উর্ধ্বতন আধিকারিকরা । সূত্রের খবর, ঘটনার সময় স্টেশনে ঢুকছিল আপ বর্ধমান লোকাল। ট্রেন থেকে নামছিলেন যাত্রীরা। প্ল্যাটফর্মেও ছিল বহু মানুষের ভিড়। এমন সময় এই ঘটনা ঘটায় আতঙ্কে যাত্রীদের কেউ কেউ রেললাইনে নেমে পড়েন, কেউ আবার ট্রেনে উঠে পড়েন। ছোটাছুটি শুরু হয়ে যায় গোটা প্ল্যাটফর্মে। ঘটনায় রেল কর্তৃপক্ষের গাফিলতির দিকেই আঙুল তুলেছেন অনেকে।

দেখুন সেই ভিডিও 

নিত্যযাত্রীদের আভিযোগ , “দীর্ঘদিন ধরেই ভগ্নদশায় রয়েছে এই বাড়িটি। বহু প্রাচীন এই বাড়ির  রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে আগেও বহুবার রেল কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে, কিন্তু লাভ হয়নি। বাড়িটিকে দেখলেই মনে হত যে কোনও দিন এর চাঙড় খসে পড়বে। সেটাই হল। ”

আরও পড়ুন -  রক্তের বন্ধনেই প্রথম বিবাহ বার্ষিকী উদযাপন খড়গপুরের মুখার্জী দম্পতির,রক্ত দিলেন প্রতিবেশীরাও


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে দমকলের ইঞ্জিন। ধ্বংসস্তূপ সরানোর কাজ শুরু হয়েছে। কয়েকজন আহত যাত্রীকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে স্টেশন চত্বর। জানা গেছে, হাওড়া-বর্ধমান মেন এবং কর্ড কোনও শাখারই ট্রেন বর্ধমান পর্যন্ত যাচ্ছে না। মেন লাইনের ট্রেন গাঙপুর পর্যন্ত যাচ্ছে।
অনেকে জানিয়েছেন অন্তত ২জন সেই সময় নিচে বসেছিলেন যাঁরা সরে যেতে পারেননি। সম্ভবত তারা চাপা পড়ে রয়েছে।