ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনায় মৃত অন্ততঃ ১৪জন তীর্থযাত্রী, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশংকা

172
ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনায় মৃত অন্ততঃ ১৪জন তীর্থযাত্রী, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশংকা 1
ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনায় মৃত অন্ততঃ ১৪জন তীর্থযাত্রী, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশংকা 2
ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনায় মৃত অন্ততঃ ১৪জন তীর্থযাত্রী, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশংকা 3

নিজস্ব সংবাদদাতা: রবিবার সকাল সাড়ে আটটা নেপালের সিন্ধুপালচক জেলার সানকোশী এলাকায় এক ভয়াবহ পথ দুর্ঘটনায় কমপক্ষে ১৪জন তীর্থযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে বলে এখনও অবধি খবর পাওয়া গেছে। এই দুর্ঘটনায় আরও ২৮ জন জখম হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। আহতদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা সংকটজনক হওয়ায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশংকা রয়েছে।

ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনায় মৃত অন্ততঃ ১৪জন তীর্থযাত্রী, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশংকা 4

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
নেপাল পুলিশ জানিয়েছে  ৪০ জনের বেশি তীর্থযাত্রী নিয়ে ওই বাসটি নেপালের কালিনচক মন্দির থেকে ভক্তপুর এলাকায় ফিরছিল। সিন্ধুপালচক জেলার সাত নম্বর সানকোশী রুরাল মিউনিসিপ্যালিটির অন্তর্গত ডোলখা খাদিচূড়-জিরি হাইওয়ের সিক্স কিলো এলাকায় এসে আচমকা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে বাসটি। তারপর রাস্তা থেকে ৫০০ মিটার নিচে খাদে পড়ে উলটে যায়। ঘটনাটি দেখতে পেয়ে ছুটে আসে স্থানীয় গ্রামবাসীরা এবং প্রাথমিকভাবে উদ্ধারকার্য শুরু করে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
গ্রামবাসীদের কাছ থেকে খবর পেয়ে হাজির হয় স্থানীয় পুলিশ ও প্রশাসন উদ্ধারের কাজ শুরু করে।  বাসের যাত্রীদের উদ্ধার করা হলে দেখা যায় ঘটনাস্থলেই ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকি যাত্রীরা গুরুতর জখম হয়েছেন। সঙ্গে সঙ্গে তাঁদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
পুলিশ সূত্রে খবর, ভক্তপুর থেকে ৪০ জনের বেশি তীর্থযাত্রী নিয়ে বাসটি কালিনচক মন্দিরে গিয়েছিল। আজ সকালে ফেরার সময় আচমকা দুর্ঘটনাটি ঘটে। রাস্তা থেকে ৫০০ মিটার নিচে পড়ে উলটে যায়। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে চালকের অন্যমনস্কতার কারণেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
বিস্তারিত তদন্তের পরেই আসল সত্য সামনে আসবে বলে জানিয়েছে নেপাল সরকার । মৃতদেহগুলি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানোর পাশাপাশি জখমদের হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তাঁদের  মধ্যে অনেকের অবস্থাই খুব খারাপ বলে ডাক্তাররা জানিয়েছেন।
ফলে মৃতের সংখ্যা বাড়ার আশংকা রয়েছে।