ফের বঞ্চনার মুখে বাংলা, পরিযায়ীদের জন্য কেন্দ্রের তৈরি বড় পরিকল্পনায় ১১৬টি জেলার তালিকা, ঠাঁই পেলনা পশ্চিমবঙ্গ

236
ফের বঞ্চনার মুখে বাংলা, পরিযায়ীদের জন্য কেন্দ্রের তৈরি বড় পরিকল্পনায় ১১৬টি জেলার তালিকা, ঠাঁই পেলনা পশ্চিমবঙ্গ 1

ওয়েবডেস্ক: পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর দাবি বাংলার প্রতি কেন্দ্রের বঞ্চনাকে যেন সিলমোহর দিল কেন্দ্রের মোদি সরকার। ভিনরাজ্য থেকে নিজের নিজের রাজ্যে ফিরে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের পুনর্বাসন এবং আয় সুনিশ্চিত করতে বড় আকারে পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার তার মধ্যে ঠাঁই পায়নি বাংলা। সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি-কে এমনটাই জানিয়েছে একটি সরকারি সূত্রকে উদ্ধৃত করে।

জানা গেছে অতি সম্প্রতি ১১৬টি জেলার একটি তালিকা তৈরি করেছে কেন্দ্র সরকার। যেখানে সর্বাধিক পরিমাণ পরিযায়ী শ্রমিকদের বাসস্থান রয়েছে সেই এলাকায় দ্রুত কাজের সুযোগ করে দিয়ে শ্রমিকদের পুনর্বাসন দিতে কিছু প্রকল্পের তালিকাও তৈরি করা হয়েছে। এই সূত্র অনুযায়ী তালিকায় যে ১১৬টি জেলা বেছে নেওয়া হয়েছে তার মধ্যে বিহার ও উত্তরপ্রদেশের ৩২ ও ৩১টি জেলা রয়েছে। মধ্যপ্রদেশের ২৪ টি জেলা রয়েছে, এছাড়াও রয়েছে রাজস্থানের ২২টি।

ফের বঞ্চনার মুখে বাংলা, পরিযায়ীদের জন্য কেন্দ্রের তৈরি বড় পরিকল্পনায় ১১৬টি জেলার তালিকা, ঠাঁই পেলনা পশ্চিমবঙ্গ 2

এছাড়া ঝাড়খণ্ড এবং ওড়িশার তিনটি ও চারটি করে জেলা বেছে নেওয়া হয়েছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে পশ্চিমবঙ্গের কোনও জেলা এই তালিকায় নেই। অথচ পশ্চিমবঙ্গ
সরকার ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন, বিভিন্ন রাজ্য থেকে ১০লাখেরও শ্রমিক বাংলায় ফিরেছেন বা ফেরার পথে। এই বিপুল সংখ্যক শ্রমিক ও তার পরিবারকে পুনর্বাসন দেওয়া একা একটি রাজ্য সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়। এই বিপুল অর্থনৈতিক সংস্থান কেন্দ্রের সাহায্য ছাড়া বাস্তবায়ন অসম্ভব।জানা যাচ্ছে, ফিরে আসা ওই শ্রমিকদের নিজের এলাকায় ‘মনরেগা’ এবং ‘আত্ম নির্ভর ভারত’ প্রকল্পের আওতায় বেশিরভাগ শ্রমিকদের কাজে লাগানো হবে। একই সঙ্গে জন ধন যোজনা, কিষাণ কল্যাণ যোজনা, খাদ্য সুরক্ষা আইন, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার মতো প্রকল্পে তাদের কাজে লাগানো যায় কিনা সেটাও দেখা হবে।

বিষয়টি নিয়ে বাকি মন্ত্রকের কাছে থেকেও বিশদে তথ্য জানতে চেয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর। খুব স্বাভাবিক ভাবেই এরজন্য কেন্দ্র আলাদা টাকাও বরাদ্দ করবে যা কিনা চলতি প্রকল্পের অতিরিক্ত। অথচ বঞ্চিত বাংলাকে আগেই বরাদ্দকৃত অর্থের মধ্য থেকেই ওই ১০লক্ষ শ্রমিকদের পুনর্বাসন বরাদ্দ করতে হবে।

লকডাউনের ফলে এমনিতেই রাজস্ব ঘাটতি ছিল বা আছে তার ওপর রাজ্যকে জোরালো ধাক্কা দিয়ে গেছে আমফান যা বাবদ কেন্দ্র বরাদ্দ করেছে মাত্র ১হাজার কোটি। রাজ্য জানিয়ে আমফানে ক্ষতির পরিমান এক লক্ষ কোটি ছড়িয়ে। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে এ রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য কেন্দ্র নিজের কোনও প্রকল্পে রাজ্যকে সংযুক্ত করছেনা এটাকে বঞ্চনা ছাড়া আর কি বলা যায়?