জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল– ৩২ ॥ চিন্ময় দাশ

349
জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 1
জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 2
জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 3

জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল– ৩২

                        চিন্ময় দাশ 

জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 4

রাধাবল্লভ মন্দির, খণ্ডরূইগড় (দাঁতন– ২)

আইন-ই-আকবরী’তে যাকে ‘তরকোল মহাল’ নামে উল্লেখ পাই, সেটি হল তুর্কাচৌর পরগণা। মেদিনীপুর জেলার দক্ষিণের এলাকায়  অবস্থান সেটির। ষোড়শ শতকের একেবারে প্রথম দিকের ঘটনা। দক্ষিণ দেশের তেলেঙ্গী জাতীয় এক রাজা সেখানে রাজত্ব করতেন। রাজধানী ছিল খণ্ডরূইগড়।
করদ রাজা হয়েও, একবার কলিঙ্গরাজকে রাজস্ব দেওয়া বন্ধ করে দেন তিনি। রাজা দেবরাজ তখন কলিঙ্গের অধিপতি। বিদ্রোহী রাজাকে দমন করবার জন্য, নিজের বাহিনীর এক সেনাপতি কৃষ্ণদাস মহাপাত্রকে দায়িত্ব দিয়ে তুর্কায় পাঠিয়ে দেন।

জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 5

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
এক দিন, দু’দিন, তিন দিন কেটে যায়, প্রবল যুদ্ধ করেও তেলেঙ্গীরাজাকে হারাতে পারছেন না কৃষ্ণদাস। রহস্য ভেদ হল রাজপুরোহিতের মুখ থেকে শুনে। রাজবাড়িতে আছেন কুলদেবী ভাগ্যেশ্বরী। তাঁর কৃপা না হলে, যুদ্ধজয় সুদূর পরাহত। 

জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 6

রাতভর দেবীর আরাধনা করলেন কৃষ্ণদাস। মন্দির থেকে দেবীর খড়্গ সংগ্রহ করলেন। পরদিন যুদ্ধজয় হল সহজেই। বাহিনী নিয়ে ফিরে এলেন পুরী। ভরা দরবারে দেবরাজের পায়ের কাছে প্রণামী নামিয়ে দিলেন সেনাপতি। ঢাকনা তুলতে নৈবেদ্য প্রকট হল– বিদ্রোহী রাজার রক্তমাখা কাটা মুন্ড। দরবার ফেটে পড়ল উল্লাসে।
কৃষ্ণদাসকে উপযুক্ত পুরস্কারই দিয়েছিলেন পুরীরাজ। তুর্কাচৌর পরগণার জমিদারী সনন্দ দিয়ে খণ্ডরূই পাঠিয়ে দিয়েছিলেন তাঁকে। সেনাপতি থেকে রাজা হয়ে গিয়েছিলেন কৃষ্ণদাস। গজেন্দ্র বংশের সন্তান তিনি, নতুন পদবি নিলেন– সিংহ গজেন্দ্র মহাপাত্র। মেদিনীপুর জেলায় নতুন এক রাজবংশের পত্তন হল সেদিন থেকে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
ষোড়শ শতকের প্রথম দিকের ঘটনা এটি। কৃষ্ণদাসের কয়েক পুরুষ পরের জমিদার ছিলেন লালবিহারী সিংহগজেন্দ্র মহাপাত্র। তাঁর প্রপৌত্র গঙ্গানারায়ণের পুত্র পঞ্চানন সিপাহী বিদ্রোহের সময় ইংরেজ শক্তিকে বিশেষ সাহায্য করেছিলেন। সেই হিসাবে, ষোড়শ শতকের সাথে কৃষ্ণদাসের হিসাবটি সামঞ্জস্য পূর্ণ।

জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 7

খণ্ডরূই রাজবাড়িতে তেলেঙ্গী রাজার ভাগ্যেশ্বরী দেবীর পূজা বহাল রেখেছিলেন কৃষ্ণদাস। দেবী আজও পূজিত হন। পরে পরে  একটি শিবমন্দির এবং একটি দূর্গা দালানও প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল এই পরিবারে। কিন্তু চৈতন্য দেবের গৌড়ীয় বৈষ্ণব ধর্মের প্রভাব শুরু হয়েছে তখন। এই পরিবারেও কৃষ্ণ আরাধনার সূচনা করা হয়। ‘ রাধাবল্লভ ‘ নামে রাধা-কৃষ্ণের মূর্তি প্রতিষ্ঠা করা হয় নতুন করে।
রাধাবল্লভের জন্য মন্দিরটি গড়া হয়েছিল শ’ দুই বছর পরে। পঞ্চাননের পিতা গঙ্গানারায়ণ কিংবা পিতামহ যশোদানন্দনের সময়ে নির্মিত হয়ে থাকবে মন্দিরটি।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
বিশাল আকারের এই মন্দির চারটি সৌধের গুচ্ছ। একেবারে পিছনে একটি চালামন্দির, আট-চালা রীতির। এটিতেই দেবতার আসন, গর্ভগৃহে। গর্ভগৃহের সামনে আরও একটি চার-চালা মন্দির, সেটি জগমোহন। এই দুটি সৌধের পরিমাপ– দৈর্ঘ্য সাড়ে ৩২ ফুট, প্রস্থ সওয়া ২৬ ফুট। এই দুইয়ের মাঝখানে ২ ফুট বিস্তারের একটি অন্তরাল। 

জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 8

একটি নাটমন্দির ছিল জগমোহনের সামনে।  এই সৌধের চিহ্নটুকুও আজ মুছে যেতে বসেছে যেন। তার আকার আরো বিশাল। পরিমাপ– দৈর্ঘ্য সাড়ে ৩৭ ফুট, প্রস্থ সওয়া ১৯ ফুট। তিনটিরই মাথার অংশ সম্পূর্ণ বিনষ্ট। উচ্চতা মাপা যায় না। তবে পুরাবিদ তারাপদ সাঁতরা বলে গিয়েছেন– পিছনের সৌধ দুটির উচ্চতা ছিল ২৩ ফুট, নাটমন্দির ছিল ২০ ফুট উঁচু।
মন্দিরের তিন দিক জুড়ে তিন খিলানের দ্বারপথ সহ টানা অলিন্দ ছিল। পশ্চিমের অংশটি সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত। থামের চিহ্নগুলি দেখা যায় কেবল। জীর্ণ দশা সিলিংগুলিরও। গর্ভগৃহে দুটি পাশখিলানের মাথায় আটটি অর্ধখিলান, সেগুলির মাথায় গম্বুজ স্থাপিত। জগমোহনে চার দেওয়ালে চারটি অর্ধখিলান। টানা-খিলান হয়েছে উত্তর ও দক্ষিণের অলিন্দে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
অলংকরণের প্রায় কিছুই আর অবশিষ্ট নাই এই মন্দিরে। তারাপদ সাঁতরার বিবরণে পাওয়া যায়, পাদপীঠের উপরের অংশ, স্তম্ভগুলির নিচের অংশেও টেরাকোটা ফলক ছিল একসময়। ফলকের মোটিফ– ‘শিকার-দৃশ্য, মিথুন-মূর্তি, নৃত্যরত নটী প্রভৃতি মূর্তি ‘। সেসকলের অধিকাংশই বিনষ্ট হয়ে গিয়েছে। কেবল উত্তরের অলিন্দের দেওয়ালে কয়েকটি জীর্ণ মূর্তি টিকে আছে কোনও রকমে। দক্ষিণের অলিন্দটি বর্তমানে সম্পূর্ণ অগম্য। তবে, সেবাইত পরিবার থেকে জানা গিয়েছে, তার দেওয়ালেও টেরাকোটা অলংকরণ ছিল।

জীর্ণ মন্দিরের জার্নাল-- ৩২    ॥ চিন্ময় দাশ 9

রাধাবল্লভের এই মন্দির বহুকাল পরিত্যক্ত। পরিত্যক্ত হয়েছে পিছনের বিশাল দুর্গাদালানটিও। কুন্ড পুস্করিণীর চার পাড়ে ছিল পৃথক চারটি বাঁধানো ঘাট– রাধাবল্লভ, ভাগ্যেশ্বরী, দূর্গা আর শিব চার দেবতার জন্য। চারটি ঘাটের কঙ্কালগুলি কোনও রকমে টিকে আছে কিছু কিছু। জমিদারী উচ্ছেদ আর গত সাত দশকের রাজনৈতিক ডামাডোল এই মহাপতনের কুশীলব।
যাওয়া-আসা : মেদিনীপুর -খড়্গপুর থেকে কাঁথি গামী পথের উপরে খাকুড়দা বাজার। সেখান থেকে দক্ষিণে তুরকামুখী পাকা রাস্তায় খণ্ডরূইগড়। আবার, কলকাতা থেকে দীঘা রাস্তার কাঁথি থেকে, খাকুড়দা আসা যাবে।
              প্রচ্ছদ-রামকৃষ্ণ দাস