গত ২৪ ঘন্টায় বৃদ্ধি পেয়েছে দৈনিক করোনা সংক্রমন;কম হয়েছে মৃত্যু

101
Advertisement

নিউজ ডেস্ক: ভারতে করোনা ভাইরাস দ্বিতীয় তরঙ্গের গতি কিছুটা কমেছে এবং মৃতের সংখ্যাও হ্রাস পেয়েছে, তবে নতুন কেস আবারও বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে কোভিড -১৯ এর ২.৭৬ লক্ষ নতুন কেসের খবর পাওয়া গেছে, অন্যদিকে মৃত্যুর সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজারেরও নিচে।

Advertisement

গত ২৪ ঘন্টায় ২৭৬,১১০ নতুন করোনার কেস এসেছে এবং ৩৮৭৪ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। একই সময়ে, ৩,৬৯,০০৭ জনও করোনা করোনামুক্ত হয়েছেন। অর্থাৎ, ৯৬,৯৪১ অ্যাক্টিভ কেস হ্রাস পেয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার ২.৬৭ লক্ষ কেস এসেছিল, সোমবার ২.৬৩ লক্ষ নতুন কেস এসেছিল।

Advertisement
Advertisement

১৯ ই মে অবধি সারা দেশে ১৮ কোটি ৭০ লক্ষ ৯০ হাজার ৭৯২ করোনার ডোজ দেওয়া হয়েছে। আগের দিন ১১ লাখ ৬৬ হাজার ৯০ জনকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। একই সময়ে, এ পর্যন্ত ৩২ কোটিরও বেশি করোনার পরীক্ষা করা হয়েছে। আগের দিন প্রায় ২০ লক্ষ করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল, যার পজিটিভ হার 13 শতাংশের বেশি।

আজ করোনার সর্বশেষ পরিস্থিতি-                            মোট করোনার কেস – ২ কোটি ৫৭ লাখ ৭২ হাজার ৪৪০।
মোট টেস্ট – ২ কোটি ২৩ লক্ষ ৫৫ হাজার ৪৪০ ।
মোট অ্যাক্টিভ কেস – ৩১ লক্ষ ২৯ হাজার ৮৭৮ টি।
মোট মৃত্যু- ২ লাখ ৮৭ হাজার ১২২ জন।

দেশে করোনার মৃত্যুর হার ১.১১ শতাংশ এবং পুনরুদ্ধারের হার ৮৬ শতাংশেরও বেশি। অ্যাক্টিভ কেসগুলি ১৩ শতাংশে হ্রাস পেয়েছে। করোনার অ্যাক্টিভ কেসে ভারত বিশ্বের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। সংক্রামিত মোট সংখ্যার দিক থেকেও ভারত দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। আমেরিকা ও ব্রাজিলের পরে ভারতে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

অন্যদিকে, পশ্চিমবঙ্গে গত কয়েকদিনের তুলনায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে।আজ অর্থাৎ বুধবার স্বাস্থ্য দফতরের প্রকাশিত বুলেটিন অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত ১৯,০০৬ জন। অন্যদিকে সংক্রমন কমলেও বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৫৭ জনের। এরপর রাজ্যে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩,৭৩৩ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনামুক্ত হয়েছেন, ১৯,১৫১ জন। বুলেটিন অনুযায়ী রাজ্যে সুস্থতার হার ৮৭.৮১ শতাংশ। সবমিলিয়ে এপর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে, ১০,৪৫,৬৪৩ জন।এখনও পর্যন্ত রাজ্যে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১,৯০,৮৬৭ জন। বুধবারের হিসাব অনুযায়ী রাজ্যে অ্যাক্টিভ করোনা রোগী রয়েছেন ১,৩১,৪৯১ জন।