Homeএখন খবরদুর্বল হচ্ছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ; টানা তৃতীয় দিন ৫০ হাজারে নিচে সংক্রমন!...

দুর্বল হচ্ছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ; টানা তৃতীয় দিন ৫০ হাজারে নিচে সংক্রমন! রাজ্যে দ্বিতীয় স্থানে পশ্চিম মেদিনীপুর

Advertisement

নিউজ ডেস্ক: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের বিরুদ্ধে ভারতের লড়াই এখনও অব্যাহত রয়েছে।তবে পরিস্থিতি এখন ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। পরপর তৃতীয় দিন দেশে ৫০ হাজারেরও কম মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃত্যুর সংখ্যাও অনেকটাই নীচে নেমে এসেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, গত ২৪ ঘন্টায় ৪৫,৯৫১ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে এবং ৮১৭ জন সংক্রামিত মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। এর আগে সোমবার ৪৬,১৪৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন এবং মঙ্গলবার ৩৭,৫৬৬ জন। একই সময়ে, গত ২৪ ঘন্টায় ৬০,৭২৯ জন মানুষও করোনামুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

একনজরে দেখে নেওয়া যাক দেশের সর্বশেষ করোনা পরিস্থিতি
মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন- ৩ কোটি ৩ লক্ষ ৬২ হাজার ৪৮৪ জন।
মোট করোনার পরীক্ষা হয়েছে – ২ কোটি ৯৪ লক্ষ ২৭ হাজার ৩৩০ জনের।
মোট চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা – ৫ লক্ষ ৩৭ হাজার।
মোট করোনায় মৃত্যু হয়েছে- ৩ লক্ষ ৯৮ হাজার ৪৫৪ জন।

দেশে টানা ৪৮ তম দিনে করোনার দৈনিক সংক্রমণের চেয়ে সুস্থ হওয়া মানুষের সংখ্যা বেশি। ২৯ শে জুন অবধি সারা দেশে ৩৩ কোটি ২৮ লক্ষ করোনা ভ্যাকসিনের ডোজ দেওয়া হয়েছে। শেষ দিন ৩৬.৫১ লক্ষ টিকা দেওয়া হয়েছে। একই সময়ে, এখনও পর্যন্ত ৪১ কোটি করোনার পরীক্ষা করা হয়েছে। গত দিনে প্রায় ১৯ লক্ষ করোনার স্যাম্পেল পরীক্ষা করা হয়েছে, যার পজিটিভিটি রেট ৩ শতাংশের বেশি।দেশে করোনায় মৃত্যুর হার ১.৩১ শতাংশ এবং সুস্থতার হার ৯৭ শতাংশের কাছাকাছি। চিকিৎসাধীন রোগীর হার ২ শতাংশেরও কম।

অন্যদিকে,পশ্চিমবঙ্গে গত একদিনে বৃদ্ধি পেয়েছে মৃত্যু । রাজ্যের স্বাস্থ্যদপ্তরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১,৫৯৫ জন এবং এই সময়কালে প্রাণ হারিয়েছেন ৩৫ জন রাজ্যবাসী।
এছাড়া রাজ্যের সবচেয়ে বেশী সংক্রমিত জেলা উত্তর ২৪ পরগনায় আক্রান্ত ১৮৬ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে পশ্চিম মেদিনীপুর, এখানে একদিনে আক্রান্ত ১৬৭ কলকাতায় একদিনে সংক্রমিত সেখানকার ১৩১ জন এবং মৃত ৭ জন।

পাশাপাশি,একদিনে করোনামুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২,০২৪ জন। এখনও পর্যন্ত রাজ্যে মোট করোনাজয়ীর সংখ্যা ১৪, ৯৮, ৩০৫ জন । গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থতার হার ৯৭, ৪১ শতাংশ। সুস্থতার হার স্বাভাবিকভাবেই আশার আলো দেখাচ্ছে রাজ্যবাসীকে।

Advertisement

Advertisement

RELATED ARTICLES

Most Popular