খড়গপুর শহর তলিতে এবার করোনার বাড়বাড়ন্ত, কলকাতা থেকে করোনা এল শহরের গা ঘেঁষে

372
খড়গপুর শহর তলিতে এবার করোনার বাড়বাড়ন্ত, কলকাতা থেকে করোনা এল শহরের গা ঘেঁষে 1

খড়গপুর শহর তলিতে এবার করোনার বাড়বাড়ন্ত, কলকাতা থেকে করোনা এল শহরের গা ঘেঁষে
নিজস্ব সংবাদদাতা: শুক্রবার খড়গপুর কিছুটা হলেও স্বস্তি পেলেও অস্বস্তি শহর তলিতে। এদিন শহরে মাত্র ১জন করোনা আক্রান্তের সন্ধান মিললেও শহরের গা ঘেঁষে ৫ জনের আক্রান্ত হওয়ার খবর মিলেছে। এত দিন মূলতঃ খড়গপুর শহরে করোনার দাপট চলছে এবার তার সঙ্গে শহরের আশে পাশেও আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যেতে শুরু করেছে।

গত কয়েকদিন ধরে লক্ষ্য করা যাচ্ছিল শহর থেকে মাত্র কয়েক কিলোমিটার দুরে পপরআড়া থেকে সংক্রমনের খবর আসছিল। এখানকার এক বাসিন্দা রেলের কর্মচারী প্রথম আক্রান্ত হন। পরে তাঁকে বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসার জন্য নিয়ে যেতে গিয়ে আক্রান্ত হয়ে পড়েন ওই গ্রামেরই তাঁরই এক সঙ্গী। বৃহস্পতিবার ফের ওই সঙ্গীর স্ত্রী পুত্র কন্যা আক্রান্ত হয়ে পড়েছিলেন অর্থাৎ পপরআড়াতেই আক্রান্ত হলেন মোট ৫জন।
শুক্রবার জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের খতিয়ানে দেখা যাচ্ছে মহেশপুর, বারোবেটিয়া আর নিশ্চিন্তায় ৫জন আক্রান্তের সন্ধান মিলছে। এর মধ্যে বারোবেটিয়া একেবারেই শহর লাগোয়া যা কিনা শহর বলেই ভুল হয় অনেকের।

খড়গপুর শহর তলিতে এবার করোনার বাড়বাড়ন্ত, কলকাতা থেকে করোনা এল শহরের গা ঘেঁষে 2

এই বারোবেটিয়াতে দুটি পৃথক পরিবারে ২জন করোনা রুগীর সন্ধান মিলেছে। এঁদের মধ্যে একজন ৪২বছর বয়সী গৃহবধূ ও অপরজন ৩০বছর বয়সী এক যুবক। ওই গৃহবধূ কী ভাবে আক্রান্ত হয়েছেন তা জানা যায়নি এখনো তবে যুবকটি এই সপ্তাহে কলকাতা থেকে ফিরে ছিলেন। কলকাতার একটি বেসরকারি ব্যাঙ্কে কর্মরত ওই যুবক নিজেই জানিয়েছেন যে, শনিবার তাঁর শরীর খারাপ বোধ হতেই বাবা মার পরামর্শে তিনি বাড়ি চলে আসেন। এরপর বুধবার নিজের নমুনা দিয়েছিলেন। যা শুক্রবার পজিটিভ আসে। স্পষ্টতই পরিস্কার যে যুবক কলকাতা থেকেই করোনা জীবাণু বহন করেই এনেছেন।

আরও পড়ুন -  বেলদা থেকে খড়গপুর হয়ে মেদিনীপুর, লকডাউনের মধ্যেই বাড়িতে বাড়িতে রিয়া মাইতি ও মহিলা ব্রিগেড

এদিনই খড়গপুর শহর থেকে অনতিদুরেই খড়গপুর শিল্প তালুক মহেশপুর এলাকা থেকেও দুই করোনা আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে। আরও আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে নিশ্চিন্তা। এঁরা তিন জনেই ওই এলাকায় অবস্থিত একটি ইস্পাত উদ্যোগ নামি কারখানার সঙ্গে যুক্ত। মহেশপুরের আক্রান্তরা পূর্ব মেদিনীপুরের বাসিন্দা। এঁরা মহেশপুরে করাখানা থেকে অদুরেই ভাড়া থাকতেন। এই দুজন কলকাতা ও অন্যজন শালবনী করোনা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন চিকিৎসার জন্য।
উল্লেখ্য এই কারখানার সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে জড়িত এমন পাঁচ জন আক্রান্তের সন্ধান মিলল এক সপ্তাহের মধ্যেই। অপর দুজনই খড়গপুর শহরেরই বাসিন্দা। ইন্দার আনন্দনগর ও দেওয়ামাড়ো এলাকার বাসিন্দা।
অন্যদিকে এদিন নয়াখুলিতে এক ৭০বছরের এক বৃদ্ধার করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। মাত্র ১জনের পজিটিভ হওয়ায় অনেকটাই স্বস্তিতে শহর।