লালে লাল গড়বেতা! ফিনিক্স পাখির মতই ফিরছে সিপিএম, একের পর এক বিক্ষোভে শাসক বিরোধী ঢেউ

1088
লালে লাল গড়বেতা! ফিনিক্স পাখির মতই ফিরছে সিপিএম, একের পর এক বিক্ষোভে শাসক বিরোধী ঢেউ 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: এ যেন রূপকথার ফিনিক্স পাখি, আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া শরীর থেকে জন্ম নিচ্ছে নতুন পালক! পশ্চিম মেদিনীপুরের গড়বেতায় যেন তেমনটাই হয়ে চলছে। ২০১১ পর গড়বেতায় সিপিএম শেষ হয়ে গেছে বলে দাবি করেছিল শাসকদল। ২০২০, মাত্র ৯ বছরের মাথায় লালে লালে গড়বেতা। ২৫-৩০ সেপ্টেম্বর ৬ দিনে তিনটে বড় মিছিল বলে দিচ্ছে জন ভিত্তি হারাচ্ছে শাসক দল, দম বাড়াচ্ছে বিরোধীরা বিশেষ করে লাাল পতাকা।

লালে লাল গড়বেতা! ফিনিক্স পাখির মতই ফিরছে সিপিএম, একের পর এক বিক্ষোভে শাসক বিরোধী ঢেউ 2
গড়বেতা,২৮সেপ্টেম্বর

২৫ তারিখ চন্দ্রকোনা রোডে (গড়বেতা ৩ ব্লক )কৃষি বিল বিরোধী বড় জমায়েত হয়েছিল। ৬০ বালেশ্বর-রানীগঞ্জ জাতীয় সড়ক অবরোধ হয়েছিল ২ ঘন্টার জন্য। ২৮ তারিখ গড়বেতা বাজারে বামপন্থীদেরই  সংগঠন আদিবাসী অধিকার মঞ্চ এবং সামাজিক ন্যায় মঞ্চের পতাকার তলায় ভিড়ে ঠাসা সমাজের প্রান্তিক এলাকার মানুষ মিছিল করেছে গোটা গড়বেতার গঞ্জ মফঃস্বল শহর আর বাজার জুড়ে। ৩০ তারিখ ফের জাতীয় কৃষিবিল এবং অন্যান্য কয়েকটি ইস্যুতে মিছিল করেছে কৃষকসভা আর সেই মিছিলের জমজমাট ভিড় বলছে সিপিএম ফের দখল নিচ্ছে হারানো লাল দুর্গের।

লালে লাল গড়বেতা! ফিনিক্স পাখির মতই ফিরছে সিপিএম, একের পর এক বিক্ষোভে শাসক বিরোধী ঢেউ 3

আশ্চর্যর ব্যাপার হচ্ছে তৃণমূলের প্রথম ৫বছরে গড়বেতায় মাথা তুলতে পারেনি কোনোও বিরোধীদলই। গড়বেতার প্রাক্তন বিধায়ক ও রাজ্যের মন্ত্রী সিপিএম নেতা সুশান্ত ঘোষ সহ একগুচ্ছ নেতাকে বিভিন্ন মামলায় জেলে যেতে হয়েছে। সুশান্ত ঘোষ তো আদালতের রায়ে জেলাতেই প্রবেশ করতে পারেন না। নির্বিচার মামলা, ধর পাকড় এবং নেতৃত্ব হীনতায় গুটিয়ে যায় সিপিএম কর্মী সমর্থকরা। এই সময় ধারাবাহিক ভাবে সারা জেলার মতই গড়বেতাতেও মিছিল মিটিং করার অনুমতি পায়নি বিরোধীরা।

আরও পড়ুন -  পর্যাপ্ত অ‍্যান্টিজেন টেস্টের দাবি জানালো সি পি আই এম

গড়বেতা এলাকায় আরএসএসের পুরানো সংগঠন। সেই আরএসএসের বামেদের অনুপস্থিতির শূন্যস্থান পুরন করে বিজেপি। কেউ চাক আর নাই চাক রাজনীতিতে বিরোধী দল থাকেই আর তরতরিয়ে সেই বিরোধী জায়গা নিয়ে নেয় বিজেপি। গড়বেতায় গায়ে গতরে বিজেপি হয়ে ওঠে তৃণমূলের প্রায় সমান সমান, কোথাও বা বেশি। লোকসভা এবং পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃনমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলেছিল বিজেপি। বর্তমানে সেই বিজেপিকে পেছনে ফেলে এগিয়ে গেছে সিপিএম। বুধবার চন্দ্রকোনা রোডে যখন কৃষি বিলের বিরুদ্ধে সিপিএমের কৃষকসভা মিছিল করছে তখন সেই কৃষি বিলের সমর্থনে বিজেপির ম্যাড়ম‍্যাড়ে মিছিলও দেখেছে মানুষ।

আরও পড়ুন -  খড়গপুরে পরাজয়ের আতঙ্ক শাসকদলের অন্দরেই ! 'দ্য খড়গপুর পোষ্ট' য়ের আবরণে জালিয়াতির প্রচার করছে কারা

আবার ঘটনা এটাও যে গড়বেতা এলাকায় দ্রুত উত্থানের মতই দ্রুত পতনও হচ্ছে বিজেপির কারন ক্ষমতার স্বাদ পাওয়ার সাথে সাথেই তীব্র দলীয় কোন্দল আর বালি, মোরাম খাদানের পাশাপাশি রেল স্টেশনের র‍্যাক ইত্যাদি নানা বিধ অবৈধ আয়ের উৎসে ঢুকে পড়েছে দল, মোহভঙ্গ হতে শুরু করেছে মানুষের। এসবের মধ্যেই করোনা আর লকডাউন পরিস্থিতি আরও বদলে দিয়েছে চিত্রটা।

আরও পড়ুন -  ৪১ঘন্টা লকডাউন করে পুরীতে দর্শনক বিহীন রথযাত্রা, করোনা হীন সেবায়েতরাই টানবেন রথের রশি

পশ্চিম মেদিনীপুর সিপিএম জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য বিজয় পাল জানিয়েছেন, “লকডাউন পরিস্থিতিতে গড়বেতার তিনটি ব্লক এলাকা গড়বেতা, গোয়ালতোড় (গড়বেতা ২) এবং চন্দ্রকোনা রোড (গড়বেতা ৩) পার্টির তরফে যে গন কমিউন চালানো হয়েছে তাতে প্রায় ৮০ হাজার মানুষকে রান্না করা খাবার পরিবেশন করা হয়েছে। তিনটি ব্লকের প্রতিটি গ্রাম পঞ্চায়েতের গরিব মানুষ রাজনৈতিক দল নির্বিশেষে এই পরিষেবা গ্রহন করেছেন। শুধু গোয়ালতোড়েই ২০ দিন ধরে পরিযায়ী শ্রমিকদের খাদ্য পরিবেশন করা হয়েছে। বলাবাহুল্য মানুষ তাঁর প্রকৃত মিত্রকে চিনতে পারছেন। ভয় ও মোহ দুটোই ভাঙছে।” তা যে ভাঙছে তা হাড়ে হাড়ে প্রমান দিয়ে দিল বুধবার।