পশ্চিম মেদিনীপুরে ৮০-র নিচে নামছেই না সংক্রমন, খড়গপুরকে ছুঁয়ে মেদিনীপুর! আক্রান্ত শালবনী, গোয়ালতোড়, ঘাটাল, দাঁতন, নারায়নগড়, ডেবরা ও পিংলা

1416
পশ্চিম মেদিনীপুরে ৮০-র নিচে নামছেই না সংক্রমন, খড়গপুরকে ছুঁয়ে মেদিনীপুর! আক্রান্ত শালবনী, গোয়ালতোড়, ঘাটাল, দাঁতন, নারায়নগড়, ডেবরা ও পিংলা 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: গত তিনদিন ধরে ৮০-র নিচে নামছে না সংক্রমন। ১৪ই এপ্রিল পশ্চিম মেদিনীপুরে আক্রান্ত হয়েছিলেন ৮২ জন। ১৫ই এপ্রিল নববর্ষের জন্য করোনা পরীক্ষা হয়নি। ১৬ই এপ্রিল একলাফে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয় ৮৯ জন। ১৭ই এপ্রিল জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ৮৭জন। অর্থাৎ গত ৩দিন ধরে নূন্যতম ৮২ জন আর গত দু’দিন ধরলে নূন্যতম সংক্রমন ৮৭জনে পৌঁছাল। আর দেখা যাচ্ছে সংক্রমনের শীর্ষে রয়েছে খড়গপুর আর মেদিনীপুর শহরের সংক্রমন। দুই শহর মিলিয়ে আক্রান্ত হয়েছে ৪১ জন।

পশ্চিম মেদিনীপুরে ৮০-র নিচে নামছেই না সংক্রমন, খড়গপুরকে ছুঁয়ে মেদিনীপুর! আক্রান্ত শালবনী, গোয়ালতোড়, ঘাটাল, দাঁতন, নারায়নগড়, ডেবরা ও পিংলা 2

গত কয়েকদিনের রিপোর্ট বলছিল জেলার মধ্যে সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যা ছিল খড়গপুর শহরে এবং ঠিক তারপরেই ছিল মেদিনীপুর শহর। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে মেদিনীপুর শহর ক্রমশ খড়গপুর শহরকে ছুঁয়ে ফেলছে। জেলার শেষ রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে ১৭ই এপ্রিল, শনিবার। ওই রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে জেলার ৮৭ জন আক্রান্তের মধ্যে দুই শহর মিলিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ৪১জন। যার মধ্যে খড়গপুর শহরে ২২জন এবং মেদিনীপুর শহরে ১৯জন আক্রান্ত হয়েছেন। অথচ এতদিন দেখা যাচ্ছিল খড়গপুর শহরই জেলার আক্রান্তের শীর্ষে উঠে আসছিল। এখন ক্রমশ মেদিনীপুর শহরেও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে বলেই মনে করা হচ্ছে। যদিও আরও কয়েকদিনের রিপোর্ট হাতে আসার পরই সেই বিষয়টা স্পষ্ট হবে। তবে করোনার প্রথম দফা অর্থাৎ গতবছরও ঠিক এরকমটাই হয়েছিল। সেবার মেদিনীপুর শহরে সবার পরে সংক্রমন শুরু হয়েছিল ঠিকই কিন্তু আগষ্ট থেকে শুরু হওয়া সেই ভয়াবহ সংক্রমন ছাড়িয়ে গেছিল জেলার সমস্ত জায়গাকে।

পশ্চিম মেদিনীপুরে ৮০-র নিচে নামছেই না সংক্রমন, খড়গপুরকে ছুঁয়ে মেদিনীপুর! আক্রান্ত শালবনী, গোয়ালতোড়, ঘাটাল, দাঁতন, নারায়নগড়, ডেবরা ও পিংলা 3

শনিবারের রিপোর্ট অনুযায়ী খড়গপুর শহরের প্রায় সর্বত্রই করোনার অস্ত্বিত্ব নজরে পড়েছে। শরৎপল্লী, পীরবাবা, আনন্দনগর, বোসপাড়া সহ ইন্দা এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫জন। খরিদা, ভগবানপুর এবং মালঞ্চ এলাকায় ৩জন সংক্রমনের আওতায় এসেছেন। গোলবাজার সহ রেল এলাকায় নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ৪জন। হিজলি ফরেস্ট ও টুরিপাড়া এলাকায় ২জন আক্রান্ত হয়েছেন। খড়গপুর ও মেদিনীপুর শহরের মাঝামাঝি মোহনপুর ও মাৎকাতপুরে আক্রান্ত হয়েছেন ৩জন। এছাড়া খড়গপুর শহর ঘেঁষে গ্রামীন খড়গপুরের বড়াডিহাতে ১জন আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

শনিবারের রিপোর্ট বলছে মেদিনীপুর শহরের বিধাননগর, ক্ষুদিরাম নগর, কুইকোটা এবং লাইব্রেরি রোড এলাকায় ২জন করে আক্রান্ত হয়েছেন। গোপগড়, তাঁতিগেড়িয়া, শরৎপল্লী, মাইকেল মধুসূদননগর, হাতারমাঠ, বার্জটাউন, শিববাজার, রাজারপুকুর, স্টেশনরোড এবং রবীন্দ্রনগর এলাকায় ১জন করে আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়াও শহরে বাসস্থানের ঠিকানা উল্লেখ করা হয়নি এমন আরও একজন আক্রান্ত হয়েছেন।

দুই শহরের বাইরে শালবনীতে আক্রান্ত হয়েছে ৭জন যারমধ্যে ট‍্যাঁকশাল কলোনিতেই ৪জন আক্রান্ত হয়েছেন বাকি ৩জনের ২জন সিদ্ধাই এলাকায়। গড়বেতাতেও আক্রান্ত ১ জন। গোয়ালতোড়ের গোয়ালতোড়, সিংলা, পিংবনী, মধুপুর এবং এলাকাতে অল্পবিস্তর নতুন করে সংক্রমনের খবর এসেছে।

নারায়নগড়ের নাড়মা এলাকায় ৩জন আক্রান্ত হয়েছেন। দাঁতনের খন্ডরুই এলাকায় কেশরম্ভা, কুরুল জেনকাপুর ও মোহনপুর থেকে আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে। ডেবরার বলরামপুর এবং পিংলার সুতারচকে ১জন করে আক্রান্ত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

ঘাটালের শীতলপুর, ঘোলসাই চৌকা, কুশপাতা ও মনোহরপুর, সোয়াই, আমাদারকুলে একজন করে আক্রান্ত হয়েছেন। দাসপুরের ক্ষেপুত, কালিকাকুন্ডু, ধোসাচাঁদপুর,ভূঁইয়ার আরিত, সাহাপুর, চন্দ্রকোনার বেলডাঙ্গা,ক্ষীরপাইয়ের ক্ষীরপাই, গোহালসিনি গোহালিডাঙ্গাতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন।

Previous articleদেশ জুড়ে বেলাগাম করোনা; একদিনেই আক্রান্ত আড়াই লক্ষেরও বেশি, মৃত ১,৫০১
Next articleকলকাতা যেন কুড়ির মুম্বাই, একদিনেই সংক্রমন ২ হাজার ছাড়ালো! রাজ্যে দৈনিক সংক্রমন সাড়ে ৮ হাজার ছুঁয়ে, মহানগরে বড় সভা বাতিল করলেন মমতা