শালবনিতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছে ধাক্কা মারুতি চালকের, মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালানোর অভিযোগ, গাড়ির মধ্যেই খাঁচাবন্দি হয়ে মৃত্যু

607
Advertisement

নিজস্ব সংবাদদাতা: বারংবারের চেষ্টায় মদ ছাড়াতে ব্যর্থ হয়েছিল পরিবার। সেই মদের জেরেই শেষ অবধি দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল এক মদ্যপ চালকের, এমনই অভিযোগ স্থানীয়দের। মঙ্গলবার দুপুরে মদের এই নির্মম পরিণতির স্বাক্ষী রইল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার শালবনি থানা এলাকা।চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার শালবনীর কুড়াজুড়ির জঙ্গলে। মৃত ওই মারুতি চালকের নাম ভোম্বল আশ ( ৪০), বাড়ি গোয়ালতোড়ের কেওয়াকোলে।

Advertisement

স্থানীয় সুত্রে জানা গিয়েছে মঙ্গলবার সকালে গোয়ালতোড় থেকে মেদিনীপুর হাসপাতালে কয়েকজন যাত্রী নিয়ে গিয়েছিলেন ভোম্বল৷ মেদিনীপুর হাসপাতালে সদ্য প্রসবিত পুত্র সন্তান ও তাঁর মাকে দেখার জন্যই ভোম্বলের ওই মারুতি ভাড়া করেছিল প্রসূতির পরিবার। যিনি মারুতি ভাড়া করেছিলেন সেই ব্যক্তির একাধিক কন্যা সন্তানের পর এটিই প্রথম পুত্র সন্তান। অভিযোগ ফেরার পথে পুত্র সন্তান হওয়ার আনন্দ উদযাপন করতে ভাদুতলায় কয়েকজনকে মদ খাওয়ান তিনি বাদ পড়েনি চালকও।

Advertisement
Advertisement

চালক ভোম্বলের মদ্যপ হিসাবে এলাকায় কুখ্যাতি ছিল বলে জানা গেছে। কিছুদিন আগে নিজের মারুতি বন্ধক দিয়েও মদ খেয়েছিলেন যা পরে পরিবার পরে উদ্ধার করে। এমনটা জানিয়েছেন কেওয়াকোলের কিছু বাসিন্দা। তাছাড়াও তাঁর মদে আসক্তি নিবারনের জন্য মেদিনীপুরের একটি নিরাময় কেন্দ্রে দীর্ঘদিন ভর্তিও রেখেছিল তার পরিবার। এ হেন ব্যক্তি মদ খাওয়ার সুযোগ পেয়ে বেশ ভাল মতই মদ খেয়েছিলেন বলেই অভিযোগ।

অভিযোগ মদ খেয়ে ফেরার পথে পিড়াকাটা পেরিয়ে গোয়ালতোড়মুখী ফাঁকা রাস্তায় জোর ছুটিয়ে ছিলেন মারুতি। পিড়াকাটা থেকে ১০কিলোমিটার দুরে সিজুয়ার কিছুটা আগে কুড়াজুড়ির জঙ্গলে পথ দুর্ঘটনায় কবলে পড়ে৷ জানা গিয়েছে মারুতির চালক দ্রুতবেগে গাড়ি নিয়ে আসছিল৷ সেই সময় উল্টো দিক থেকে একটি পিক আপ ভ্যান চলে আসায় মারুতির চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে রাস্তার পাশে শাল গাছে সজোরে ধাক্কা মারে। ধাক্কার জেরে শাল গাছ উপড়ে ছিটকে পড়ে কিছুটা দুরে। গাড়িটি দুমড়ে মুচড়ে যায়৷ দুর্ঘটনার অভিঘাতে তোবড়ানো গাড়ির মধ্যেই খাঁচাবন্দি অবস্থায় ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান মারুতির চালক ভোম্বল।

খবর পেয়ে স্থানীয়রা ছুটে এসে উদ্ধার কার্যে হাত লাগায় ও পিড়াকাটা পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দেন। পুলিশ এসে দুমড়ানো মোচড়ানো মারুতি থেকে মৃত চালক কে বের করে মেদিনীপুর হাসপাতালে পাঠায় ময়নাতদন্তের জন্য। গাড়ির মধ্যে থাকা যাত্রীদের উদ্ধার করে মেদিনীপুর হাসপাতালে পাঠায় চিকিৎসার জন্য । স্থানীয়দের অভিযোগ চালক মদ্যপ অবস্থায় থাকার কারনে এই দুর্ঘটনা। ঘটনায় এলাকায় বেশ উত্তেজনা ছড়িয়েছে। তবে পুলিশ জানিয়েছে ময়নাতদন্তের পরই জানা যাবে ওই ব্যক্তি মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে ছিলেন কিনা।