Homeএখন খবর'যশ' আছড়ে পড়ার আগেই কী দেশে স্তব্ধ হয়ে যাবে ফেসবুক, ট্যুইটার, হোয়াটস্যাপ!...

‘যশ’ আছড়ে পড়ার আগেই কী দেশে স্তব্ধ হয়ে যাবে ফেসবুক, ট্যুইটার, হোয়াটস্যাপ! জোর আলোচনায় সারা দেশ

Advertisement

নিউজ ডেস্ক: বুধবার সাত সকালে দেশের পূর্ব প্রান্তে আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড় যশ তার আগেই দেশ জুড়ে স্তব্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় ফেসবুক, ট্যুইটার, হোয়াটস্যাপ কিংবা ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউবের মত জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি। কারন হিসাবে বলা হচ্ছে, ২০২১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি সরকার প্রদত্ত নির্দেশনার সময়সীমা মঙ্গলবার শেষ হচ্ছে। এর পরে ধারণা করা হচ্ছে যে, এই সামাজিক মিডিয়া সংস্থাগুলি নিয়ে সরকার বড় পদক্ষেপ নিতে পারে। ট্যুইটার এবং ফেসবুকের মতো সংস্থাগুলিকে নির্দেশিকা তৈরি করতে সরকার তিন মাস সময় দিয়েছিল, যার মেয়াদএদিন শেষ হচ্ছে। এখনও অবধি ভারতীয় সংস্থা ‘কু’ বাদে কোনও সংস্থা সরকারকে তার বার্তায় সাড়া দেয়নি।

কেন্দ্র এই বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম এবং ট্যুুইটারের মতো সামাজিক মিডিয়া সংস্থাগুলির জন্য আরও কঠোর নিয়ম ঘোষণা করেছে, যার অধীনে তাদেরকে রিপোর্ট করা বিষয়বস্তু ৩৬ ঘন্টার মধ্যে সরিয়ে ফেলতে হবে এবং ভারতে কর্মরত এক আধিকারিককে, এর দায়িত্ব দিতে হবে।

এই নিয়ম অনুসারে, সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থাগুলি ভারতে তাদের অফিসার এবং যোগাযোগের ঠিকানা সরবরাহ করতে হবে। এছাড়াও কমপ্লায়েন্স অফিসার নিয়োগ, অভিযোগ-সমাধান, আপত্তিজনক বিষয়বস্তু পর্যবেক্ষণ, সম্মতি রিপোর্ট এবং আপত্তিজনক উপাদান অপসারণের মতো বিধি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

আসলে, সোশ্যাল মিডিয়া গত কয়েক বছর ধরে খুব ভুল উপায়ে ব্যবহার করা হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়িয়ে, আপত্তিজনক তথ্য ভাগ করে নেওয়া, দেশের পরিবেশ নষ্ট করে দেওয়া, এ জাতীয় কাজ ধারাবাহিকভাবে করা হচ্ছে। অনেক সময় এরকম মামলা আদালতেও পৌঁছেছে। সরকারের বারবার নির্দেশনা সত্ত্বেও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম সংস্থাগুলির এখনও পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনও সুষ্ঠু পদক্ষেপ নেয়নি। এর পরে সরকার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সংস্থাগুলিকে একটি কঠোর গাইডলাইন তৈরি করার নির্দেশনা দিয়েছিল। সূত্রের মতে, সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি যদি নিয়মগুলি না মানে, অর্থাৎ তারা যদি গাইডলাইন তৈরি না করে, তবে সরকার তাদের প্রদত্ত অনেক সুযোগ-সুবিধাকে অপসারণ করতে পারে।

প্রশ্নটি এই যে, সরকার নির্ধারিত সময়সীমা আজ শেষ হলে কী হবে? উত্তর হ’ল এই সাইট গুলির বিরুদ্ধে ভারত সরকার শক্ত পদক্ষেপ নিতে পারে। সংস্থাগুলি আইটি অ্যাক্ট ২০০০ -এর ধারা ৭৯- এর অধীনে যে সুরক্ষা পেয়েছে তা শেষ করা হতে পারে। ধারা ৭৯ নিশ্চিত করে যে কোনও ব্যক্তি যদি এই সংস্থাগুলির প্ল্যাটফর্মে অবৈধ তথ্য ভাগ করে নেন, তবে এই সংস্থাগুলি এর জন্য দায়বদ্ধ থাকবে না।

তবে, ২৫ ফেব্রুয়ারি সরকার প্রদত্ত গাইডলাইনে বলা হয়েছিল যে, এই সংস্থাগুলি যদি আদালত এবং সরকারের আদেশের পরে কোনও বিষয়বস্তু অপসারণ না করে, তবে ধারা ৭৯- এর অধীনে এই অধিকার তাদের কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া হবে।

ভারত সরকার প্রদত্ত সময়সীমা শেষ দেখে ফেসবুক একটি বিবৃতি জারি করে নিয়ম মানতে বলেছে। সংস্থার তরফে বলা হয়েছে যে, তারা ভারত সরকারের নিয়ম মেনে চলবে, তবে কিছু বিষয়ে এখনও আলোচনা চলছে। ফেসবুক বলেছে যে, আইটি আইন অনুসারে যে বিধি বিধান করা হয়েছে, আমরা সেগুলি মানতে প্রস্তুত এবং আমাদের কাজের শৈলীর উন্নতির দিকে এগিয়ে চলেছি। সংস্থাটি বলেছে যে, আমরা মানুষকে নিরাপদ থাকতে এবং নির্দ্বিধায় কথা বলতে একটি প্ল্যাটফর্ম দিয়েছি।

প্রসঙ্গত, আজকের যুগে ট্যুইটার, ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, ইউটিউবের মতো সামাজিক সাইটগুলি ভারতের কোটি কোটি মানুষের জীবনের অঙ্গ হয়ে উঠেছে। তবে মঙ্গলবার থেকে এই সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়া সাইট বন্ধ হয়ে যাবে। দেশে এ বিষয়ে আলোচনাও চলছে পুরোদমে। কিন্তু কেন এমন হচ্ছে?

দেশের অনেক বিভাগ অভিযোগ করছে যে, সোশ্যাল মিডিয়া ‘স্বৈরাচারী’ হয়ে উঠছে। এর পরে, সরকার বিশেষ মিডিয়া সংস্থাগুলিকে ভারতে অভিযোগ ও পর্যবেক্ষণের জন্য কর্মকর্তা নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছিল। তবে কোনও ভারতীয় সামাজিক মিডিয়া সংস্থা ‘কু’, ছাড়া কোনও সোশ্যাল মিডিয়া সাইট এই নির্দেশনাগুলি অনুসরণ করে নি।

Advertisement

Advertisement

RELATED ARTICLES

Most Popular