পঞ্চম দফা নির্বাচন; নজরে হেভিওয়েটরা, নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আঁটোসাট প্রস্তুতি নির্বাচন কমিশনের

135
পঞ্চম দফা নির্বাচন; নজরে হেভিওয়েটরা, নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আঁটোসাট প্রস্তুতি নির্বাচন কমিশনের 1

নিউজ ডেস্ক: বঙ্গে পঞ্চম দফা নির্বাচন এই মুহূর্তে শুরু হিয়ে গিয়েছে। গত ৪ দফায় বেশ কিছু উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হলেও মোটামোটি নির্বিঘ্নেই মিটেছে ভোট পর্ব। যদিও চতুর্থ দফায় শীতলকুচি কাণ্ড নিয়ে উত্তাল হয়েছে রাজ্য রাজনীতি। সেই কারণেই এবারের নির্বাচনে বেশ কিছু কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। প্রচারে ৭২ ঘন্টা আগে নিষেধাজ্ঞা, সময়সূচিতে কাটছাঁট, সেইসঙ্গে কোভিড বিধি মেনে চলা এই সব কিছুই রয়েছে নির্দেশিকায়।

পঞ্চম দফা নির্বাচন; নজরে হেভিওয়েটরা, নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আঁটোসাট প্রস্তুতি নির্বাচন কমিশনের 2

এই পর্বে, ৬ জেলায় মোট ৪৫টি আসনে হবে ভোট গ্রহন হবে; এর মধ্যে উত্তরবঙ্গের ১৩ টি ও দক্ষিণবঙ্গের ৩২ টি আসন রয়েছে।

পঞ্চম দফা নির্বাচন; নজরে হেভিওয়েটরা, নিরাপত্তা ব্যবস্থায় আঁটোসাট প্রস্তুতি নির্বাচন কমিশনের 3

নজরে হেভিওয়েট প্রার্থীরা-
এই পর্বে বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট প্রার্থীরা নির্বাচনী লড়াইয়ের ময়দানে নামছেন। যেমন ঘাসফুল শিবিরে রয়েছেন- মদন মিত্র, ব্রাত্য বসু, চিরঞ্জিত চক্রবর্তী, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, গৌতম দেব, অদিতি মুন্সি, সুজিত বসু প্রমুখ। পাশাপাশি পদ্ম শিবিরে রয়েছেন- রাহুল সিনহা, শমীক ভট্টচার্য, সব্যসাচী চক্রবর্তী, পার্নো মিত্র, তাপস রায়, রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের মত প্রার্থীরা এবং সংযুক্ত মোর্চার তরফে, অশোক ভট্টাচার্যও রয়েছেন।

এই পর্বে কামারহাটিতে মদন বনাম রাজু যেমন নজরে রয়েছেন, তেমনই উত্তরে গৌতম বনাম শিখা ও অশোক বনাম শঙ্কর কেন্দ্রেও দৃষ্টি আটকে রয়েছে সকলেরই। সেইসঙ্গেই তারকা প্রার্থীরা তো রয়েছেনই। অতএব এই পর্বে ভোটযুদ্ধ হাইভোল্টেজ নন্দীগ্রামের থেকে যে কোনও অংশে কম হবে না, তা বলা যেতেই পারে।

একনজরে দেখে নেওয়া যাক, কোথায় কোথায় ভোট-
দার্জিলিংয়ের- দার্জিলিং, কার্শিয়াং, মাটিগাড়া-নকশালবাড়ি, শিলিগুড়ি, ফাঁসিদেওয়া।
কালিম্পংয়ের- কালিম্পং।
জলপাইগুড়ির- ধূপগুড়ি, ময়নাগুড়ি , জলপাইগুড়ি , রাজগঞ্জ , ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি, মালবাজার , নাগরাকাটা।
পূর্ব বর্ধমানে- রায়না , জামালপুর , মন্তেশ্বর, কালনা , মেমারি, খণ্ডঘোষ, বর্ধমান উত্তর ও বর্ধমান দক্ষিণ।
নদিয়ার- রানাঘাট উত্তর-পশ্চিম, কৃষ্ণগঞ্জ , রানাঘাট উত্তর-পূর্ব , রানাঘাট দক্ষিণ, শান্তিপুর, চাকদহ, কল্যাণী , হরিণঘাটা।
উত্তর ২৪ পরগনার- দেগঙ্গা, হাড়োয়া, মিনাখাঁ , সন্দেশখালি , বসিরহাট দক্ষিণ, বসিরহাট উত্তর, হিঙ্গলগঞ্জ, মধ্যমগ্রাম, বারাসত, পানিহাটি, কামারহাটি, বরানগর, দমদম, রাজারহাট নিউটাউন, বিধাননগর, রাজারহাট গোপালপুর।

সবচেয়ে বেশি কোন কেন্দ্রে কত কোম্পানি বাহিনী মতায়েন করা হয়েছে-
৮৫৩ কোম্পানি বাহিনী এসেছে এই পর্বে; সবচেয়ে বেশি কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হচ্ছে পূর্ব বর্ধমানে, সেখানে ১৫৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন থাকবে। তারপরেই রয়েছে রানাঘাট- ১৪০ কোম্পানি । জলপাইগুড়িতে ১২২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। এছাড়াও বসিরহাটে ১০৭ কোম্পানি, বারাসতে ৬৯ কোম্পানি, দার্জিলিংয়ে ৬৮ কোম্পানি মোতায়েন থাকছে।

 

Previous articleকরোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে কর্মী সঙ্কটে খোদ বেলেঘাটা আইডি! রাজ্য সরকারের কাছে স্বাস্থ্য কর্মী চেয়ে আর্জি
Next articleজলপাইগুড়ি জেলার সাতটি বিধানসভায় নির্বাচনী লড়াইয়ে নেমেছেন ৫৬ জন প্রার্থী, আঁটোসাটো নিরাপত্তা ব্যবস্থা