মনোনয়নের শুরুতেই উত্তপ্ত বর্ধমান; রক্তাক্ত সংঘর্ষে আশঙ্কাজনক ২ তৃণমূল কর্মী

209
মনোনয়নের শুরুতেই উত্তপ্ত বর্ধমান; রক্তাক্ত সংঘর্ষে আশঙ্কাজনক ২ তৃণমূল কর্মী 1

নিউজ ডেস্ক: মনোনয়ন জমা দেওয়ার দিন থেকেই কার্যত উত্তপ্ত হতে শুরু করল পূর্ব বর্ধমান জেলার উত্তর বিধাসভার ১নং ব্লকের পালিতপুর এলাকা। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকেই পালিতপুর গ্রাম কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নিতে শুরু করে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষের কারণে। ঘটনায় তৃণমূলের তিনজন কর্মী মারাত্মক জখম হয়। তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়।

বর্ধমান থানার পুলিশ সংঘর্ষের ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করে। পরে ডিএসপি হেড কোয়ার্টারের নেতৃত্বে জেলার বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। নামানো হয় র‍্যাপিড একশন ফোর্সও।

মনোনয়নের শুরুতেই উত্তপ্ত বর্ধমান; রক্তাক্ত সংঘর্ষে আশঙ্কাজনক ২ তৃণমূল কর্মী 2

জানা যায়, এদিন পালিতপুর এলাকার একটি হোটেলের সামনে দিয়ে বিজেপির কিছু সমর্থক ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিতে দিতে যাওয়ার সময় ওই হোটেল থেকে ‘খেলা হবে’ স্লোগান দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। সেই সময় হোটেল মালিক কানাইয়ের সঙ্গে প্রথমে বচসা, পরে হোটেল ভাঙচুর চালায় বিজেপি কর্মীরা বলে অভিযোগ। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এই ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়তেই পালিতপুর গ্রাম থেকে বিজেপি কর্মী সমর্থকরা দলে দলে জড়ো হতে শুরু করে ওই হোটেল সংলগ্ন এলাকায়। পাল্টা তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরাও ঘটনার খবর পেয়ে ছুটে আসে ঘটনাস্থলে।

এরপরই ওই এলাকা রণক্ষেত্রের চেহারা নেয়। বিজেপি কর্মী সমর্থকরা হোটেলে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ। পাল্টা প্রতিরোধ করতে গেলে তৃণমূলের একাধিক কর্মী সমর্থককে বেধড়ক মারধর করে বিজেপির লোকেরা বলে তৃণমূলের অভিযোগ। এই ঘটনায় দিলু খাঁ, জাহাঙ্গীর মন্ডল ও শেখ ডালিম গুরুতর জখম হয়েছেন। অভিযোগ, তাদের রড, লাঠি, বাঁশ প্রভৃতি দিয়ে মারধর করা হয়েছে। এদের মধ্যে জাহাঙ্গীর মন্ডল ও শেখ ডালিমের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের বর্ধমান হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে দুই পক্ষই ঘটনার ব্যাখ্যা দেয় ভিন্ন ভাবে; বিজেপির জেলা সম্পাদক শ্যামল বলেন, “এটা তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষের ব্যাপারই নয়। ঐ হোটেলে মদ ও নেশার জিনিস বিক্রি হয়। এলাকার মানুষ বারবার আপত্তি করেছেন। এদিন সেই কথা বলতে গেলে তাঁদের উপর চড়াও হয় কিছু লোক। যাদের তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থক বলা হচ্ছে তারা ওই গ্রামের লোকই নয়। বাইরে থেকে এসেছিল। তারাই গ্রামের মানুষের উপর চড়াও হয়।”

পুলিশ গোটা এলাকায় দুষ্কৃতীদের সন্ধানে তল্লাশি শুরু করেছে। শেষ খবর অনুযায়ী, পুলিশ এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ১২জনকে আটক করেছে। বুধবারেও পরিবেশ থমথমে। এলাকায় চলছে পুলিশি টহলদারী।