হেঁসেলিয়ানা : নবমীর মহাভোজ।। অদিতি রায় বর্মন পাঠক

329
হেঁসেলিয়ানা : নবমীর মহাভোজ।। অদিতি রায় বর্মন পাঠক 1
হেঁসেলিয়ানা : নবমীর মহাভোজ।। অদিতি রায় বর্মন পাঠক 2

মহানবমীর মহাভোজ  স্পেশাল                      গোল বাড়ির কষা মাংস ও ফ্র্যাইড রাইস হেঁসেলিয়ানা : নবমীর মহাভোজ।। অদিতি রায় বর্মন পাঠক 3                           অদিতি রায় বর্মন পাঠক

আজ মহানবমী। মা র বোধন থেকে ৩ টে দিন পেরিয়ে গেলো। আমরা এইবছর ভার্চুয়াল দূর্গা পুজোয় অভ্যস্ত হয়ে গেলাম।আমরা বাঙালিরা যতই ভার্চুয়াল পুজোর কথা বলি না কেন, পেট পুজোর ক্ষেত্রে কোনোভাবেই আপোস করা যায়না। সপ্তমী, অষ্টমী টে মায়ের নিরিমিষ ভোগ খেয়ে আজ মন টা বড্ড আনচান করছে আমিষ খাওয়ার জন্য। মায়ের ভোগের শুধু আদা, হলুদ, নুন দিয়ে রাঁধা নিরামিষ মাংস তো পাতে পড়বেই।পাশাপাশি আমিষ মাংস রান্নাটাও আসুন বানিয়ে ফেলি গোল বাড়ির কষা মাংস।

হেঁসেলিয়ানা : নবমীর মহাভোজ।। অদিতি রায় বর্মন পাঠক 4

উপকরণ: মাটন এক কেজি পিয়াজ বাটা হাফ কাপ পিয়াজ কুচি পাঁচটা বড়ো পিয়াজ রসুন বাটা দুই বড়ো চা চামচ আদা বাটা তিন বড়ো চা চামচ নুন হলুদ লঙ্কা গুঁড়ো তেজপাতা শুকনো লঙ্কা গোটা গরম মসলা চিনি পেঁপে বাটা হাফ কাপ টক দই হাফ কাপ জায়ফল জয়িত্রি গরম মসলা গুঁড়া শুকনো কড়াইয়ে ভাজা ধনে জিরে গুঁড়া সরষের তেল প্রণালী এক কেজি মাংসে সরষের তেল,পেঁপে বাটা,টক দই,নুন,হলুদ,লঙ্কার গুড়ো,এক চামচ রসুন বাটা,দুই চামচ আদা বাটা,হাফ কাপ পিয়াজ বাটা দিয়ে কম করে তিন ঘণ্টা ম্যারিনেট করতে হবে।

এরপর কড়াইতে পরিমাণ মত সরষের তেলে তেজ পাতা,গোটা গরম মসলা,শুকনো লঙ্কা,একটু চিনি তার সাথে দিয়ে ক্যারামেল করে নিতে হবে,এরপর কুচি পিয়াজ গুলো বেরেস্তা করে ভেজে তারমধ্যে বাকি আদা রসুন বাটা দিয়ে নুন হলুদ দিয়ে মসলা যখন তেল ছেড়ে দেবে ম্যারিনেট করা মাংস দিয়ে নেড়ে ঢেকে দিয়ে হবে মনে রাখতে হবে পুরো মাংস টাই কড়াইতে হবে, প্রায় আধ ঘন্টা পর জায়ফল জয়ত্রী গরম মসলা গুঁড়া আর শুকনো কড়াইয়ে ভাজা ধনে জিরে গুঁড়া একচামচ করে দিয়ে আবার নেড়ে ভালো করে ঢেকে দিতে হবে কিছুক্ষন পর মাংস সেদ্ধ হলে অল্প চায়ের লিকার দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

হেঁসেলিয়ানা : নবমীর মহাভোজ।। অদিতি রায় বর্মন পাঠক 5ফ্র্যাইড রাইস  কষা মাংসের সাথে ফ্র্যাইড রাইস হলে নবমীর ভোজ জমে যাবে। আসুন, ফ্র্যাইডরাইস বানানোর জন্য যে সমস্ত জিনিস গুলো লাগবে…

উপকরণ: বাসমতি চাল, ঘি,রিফাইন তেল, কাজু, কিসমিস, গাজর, বিনস,ক্যাপসিকাম,সবুজ মটর,তেজপাতা, গোটা গরম মশলা, গোলমরিচ গুঁড়ো। প্রণালী: চাল ভালো করে ধুয়ে নিন। কড়াই বা ডেগচিটে জল গরম করতে দিন। জলের মধ্যে একচামচ রিফাইন তেল,একটি বা দুটি তেজপাতা,গোটা গরম মশলা অর্থাৎ একটি দারচিনি, দুটি লবঙ্গ, 3টি ছোট এলাচ ও পরিমানমত নুন দিন।জল ফুটতে থাকলে চাল ফেলে দিন। সেদ্ধ নাহওয়া পর্যন্ত চাল মাঝে মাঝে নাড়তে থাকুন। পুরো সেদ্ধ হওয়ার আগে রাইস নামিয়ে নিন ও জল ঝরিয়ে নিন। অন্য একটি কড়াই আঁচে বসান, একচামচ ঘি দিন। কাজু, কিসমিস গুলি ভেজে তুলে নিন।

ওই কড়াই টে ই 2/3চামচ রিফাইন তেল দিন। 1টি তেজপাতা, দারচিনি, 2/3টি লবঙ্গ, এলাচ ফোড়ন হিসেবে দিনপ্রথমে কুচোনো গাজর, পরে বিনস ও ক্যাপসিকাম,সবুজ মটর এক এক করে ভেজে নিন।কাঁচালঙ্কা চিরে দিন। এরপর জল ঝরিয়ে রাখা রাইস কড়াই এ দিন। ভাজা সব্জি গুলির সাথে ভালোভাবে মিশিয়ে দিন। এরপর একচামচ গোলমরিচ গুঁড়ো দিন। সবশেষে একচামচ ঘি দিন।ভালোভাবে নাড়াচাড়া করে মিশিয়ে দিন। তৈরী হয়ে গেলো ফ্র্যা ইড রাইস। কষা মাংস বানাতে যেমন একঘন্টা মতো সময় লাগে, ফ্র্যাইডরাইস বানাতে খুব ই অল্প সময় লাগে। আশাকরি আজকের নবমীর মধ্যাহ্ন ভোজন বা রাতের মহাভোজ বলুন একেবারে স্পেশাল হয়ে উঠবে। যেমন নবমীর রাতে আমরা পোশাক ও আলোক সজ্জায় মেতে উঠি।তাইনা? সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। বাড়িতে থেকে পুজো আনন্দে কাটান।