আপনারা মোদীজিকে বাংলা দিন, আমি নন্দীগ্রাম দিচ্ছি; ব্রিগেডের সভা থেকে বললেন শুভেন্দু

538
আপনারা মোদীজিকে বাংলা দিন, আমি নন্দীগ্রাম দিচ্ছি; ব্রিগেডের সভা থেকে বললেন শুভেন্দু 1

অশ্লেষা চৌধুরী: ‘আপনারা মোদীজিকে বাংলা দিন, আর নন্দীগ্রামে আমি মমতাকে হারাবই।‘ ব্রিগেড সমাবেশে বক্তব্য রাখতে উঠে শুভেন্দুর আবেদন। রবিবার প্রধানমন্ত্রীর ব্রিগেড সমাবেশে মিঠুন সহ বিজেপির প্রায় সকল তাবড় তাবড় নেতারা যোগ দিয়েছেন। সেই তালিকায় রয়েছেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। এদিন সভায় ভাষণ দিতে উঠে নিজের প্রাক্তন দল ঘাসফুল শিবিরকেই তীব্র আক্রমণ করেন শুভেন্দু।

আপনারা মোদীজিকে বাংলা দিন, আমি নন্দীগ্রাম দিচ্ছি; ব্রিগেডের সভা থেকে বললেন শুভেন্দু 2

শুভেন্দু বলেন, তৃণমূল এখন আর দল নেই, ওটা প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি, যার চেয়ারম্যান মমতা, ম্যানেজিং ডিরেক্টর তোলাবাজ ভাইপো, বাকিরা ল্যাম্পপোস্ট। মমতাকে নিশানা করে তিনি বলেন, মাননীয়া ৫০০ কোটি টাকা দিয়ে বুদ্ধি কিনেছেন। ‘দিদিকে বলো’, ‘বাংলার গর্ব মমতা’ নিয়েও কটাক্ষ করেন শুভেন্দু। তিনি বলেন, বর্ণ পরিচয়ের শ্রষ্ঠা ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, জাতীয় সঙ্গীতের শ্রষ্ঠা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, স্বামী বিবেকানন্দ স্বাধীনতা যিনি এনে দিয়েছেন সেই নেতাজী, ছেড়ে বাংলার গর্ব নাকি মমতা! এখন আবার হয়েছে বাংলার মেয়ে- শুনে রাখুন মাননীয়া বাংলার মেয়ে নয়, কেউ স্বীকার করে না আপনি বাংলার মেয়ে, আপনি রোহিঙ্গাদের ফুফু, অনুপ্রবেশকারীদের খালা। এরপরেই শুভেন্দুর রোষানলে তৃণমূলের যুবনেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। অভিষেককে তোপ দেগে বলেন, গরু, বালি, কয়লা পাচার করছে, এরপর জিতে আসলে তোলাবাজ ভাইপো কিডনি বিক্রি করে দেবে সবার। তৃণমূল ফিরে এলে পশ্চিমবঙ্গ কাশ্মীর হবে।

আপনারা মোদীজিকে বাংলা দিন, আমি নন্দীগ্রাম দিচ্ছি; ব্রিগেডের সভা থেকে বললেন শুভেন্দু 3

‘আপনারা বাংলা দিন আর নন্দীগ্রামে আমি মমতাকে হারাবই। ও মাটি আমার চেনা, ২০ বছর কাজ করেছি। আমি ওখানে ভোট দেব, আপনি টিভিতে দেখবেন। মিঠুনদা ব্রিগেডে এসেছেন, আগামী প্রজন্মের ধ্বংস হওয়া আটকাতে।’ পাশাপাশি এদিন চিট ফান্ড কাণ্ড নিয়েও সরব হন শুভেন্দু।

এছাড়াও এদিন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু, অর্জুন সিং, লকেট চ্যাটার্‌জি সকলেই শাসক শিবিরের উদ্দেশ্যে কটাক্ষ ছুঁড়ে দেন। ছাড় পায়নি বাম-কংগ্রেস জোটও। এদিন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং বলেন, সাড়ে পাঁচ লক্ষ সরকারি পদ খালি রয়েছে। কিন্তু মমতা-সরকার সেই শূন্যপদ পূরণ করছে না। প্যারা-টিচারদের প্রাপ্য দিচ্ছে না রাজ্য সরকার। সেখান থেকেও কাটমানি খাচ্ছে। বাংলায় শিল্প নেই। কমিশন ছাড়া কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া যায় না। স্বাস্থ্য সাথীর নামে বাংলার মানুষকে ভাওতা দেওয়া হচ্ছে। এটা ভাতা ও ভাওতার সরকার।

লকেট চট্টোপাধ্যায় তাঁর ভাষণে বাম-কংগ্রেস-আইএসএফ জোটের ব্রিগেড সমাবেশকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘আগের ব্রিগেডে দিদিমণির সহযোগিতায় লোক এসেছিল। ৩৪ বছরে কিছু করতে পারেনি বাম-কংগ্রেস। ২০২১-এ সোনার বাংলা, আমরা লড়ব, জিতব। এরপরেই নাম না করে মমতাকে নিশানা করে বলেন, বাংলার মেয়ে বিজ্ঞাপনের জন্য এত টাকা কোথা থেকে আসে? বিজ্ঞাপনে ১৫ কোটি, দিদির পায়ে হাওয়াই চটি।সিন্ডিকেট-কাটমানির টাকা গিয়েছে এক জায়গাতেই।’

পিছিয়ে ছিলেন না সদ্য বিজেপিতে যোগদানকারী বাঙালির হার্টথ্রব, জনপ্রিয় অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী। ব্রিগেড মঞ্চ থেকে ফিল্মি কায়দায় নিজের সেরা সংলাপ আওড়াতে শোনা গেল মিঠুনকে, যেন সরাসরি হুঁশিয়ারি! তিনি বলেন, ‘আমি জলঢোঁড়াও নই, বেলেবোড়াও নই, আমি জাত গোখরো, এক ছোবলে ছবি।‘

Previous articleগ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে উত্তরবঙ্গের প্রাণকেন্দ্রে মমতার মহামিছিল; থাকতে পারেন প্রভাবশালী নেতারাও
Next articleবাংলা আপনাকে ‘দিদি’ বলে মনে করেছিল আর আপনি নিজেকে পিসি করেই রেখে দিলেন? ব্রিগেড থেকে অভিষেক প্রশ্নেই মমতাকে বিঁধলেন মোদি