নারী দিবসে দেশের প্রথম মহিলা পরিচালিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা কেন্দ্র উপহার দিল IIT

356
নারী দিবসে দেশের প্রথম মহিলা পরিচালিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা কেন্দ্র উপহার দিল IIT 1

অশ্লেষা চৌধুরী: আন্তর্জাতিক নারী দিবসে দেশের প্রথম মহিলা পরিচালিত(Women Lead Initiative) বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা কেন্দ্র উপহার দিল আইআইটি মাদ্রাজ। বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি গবেষণা ক্ষেত্রে দেশের নারী শক্তির মেধা অন্বেষনে কেবল মাত্র মহিলা পরিচালিত আইআইটিএম (IITM) এই প্রকল্প শুরু করল আইআইটি মাদ্রাজ (IIT Madaras)। ৮ই মার্চ, ২০২১, আন্তর্জাতিক নারী দিবসে দেশের নারী শক্তিকে উৎসর্গ করা হচ্ছে এই Women Lead Initiative বা WLI প্রকল্প যা কিনা দেশের প্রথম ও একমাত্র প্রকল্প যা পুরোপুরি মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত। এর পড়ুয়া,গবেষক, অধ্যাপক, কর্মী সবাই-ই কেবলমাত্র মহিলা। এই কর্মসূচি একদিকে যেমন মহিলা প্রযুক্তিবিদ-দের  ভবিষৎকে ত্বরান্বিত করবে, তাঁদের জয়যাত্রায় উৎসাহিত করবে তেমনই আইআইটি মাদ্রাজে কর্মরত মহিলাদের পরিবেশকে উন্নত ও স্বাচ্ছন্দ্য সহায়ক পরিবেশ প্রদানের সহায়ক ভূমিকা গ্রহণ করবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন আইআইটি মাদ্রাজ কর্তৃপক্ষ।

প্রতিষ্ঠানের পরিকল্পনা বিষয়ক ডিন, অধ্যাপক লিজি ফিলিপ বলেছেন, ” মহিলা পরিচালিত আইআইটিএম আইআইটি মাদ্রাজের একটি অভূতপূর্ব উদ্যোগ যা দেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্ষেত্রে মহিলা মেধার অনুসন্ধান করবে, তাকে বিকশিত হতে সাহায্য করবে এবং পরিশেষে ওই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির দুনিয়ার নেতৃত্ব হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করবে।”

নারী দিবসে দেশের প্রথম মহিলা পরিচালিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা কেন্দ্র উপহার দিল IIT 2

আইআইটি মাদ্রাজের অধিকর্তা(Director) অধ্যাপক ভাস্কর রামমূর্তি মহিলা নেতৃত্বাধীন আইআইটিএম’ (Women Lead Initiative – WLI) উদ্যোগের নেপথ্যের দৃষ্টিভঙ্গি ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেছেন, “আইআইটি মাদ্রাজ গত কয়েক বছরে ছাত্রী বা মহিলা পড়ুয়ার সংখ্যা বাড়াতে সমর্থ হয়েছে। স্নাতক স্তর থেকে শুরু করে ডক্টরেট স্তরে ছাত্রীদের সংখ্যা শতাংশের হারে যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। পাশাপাশি আমাদের দক্ষ মহিলা অশিক্ষক কর্মীর সংখ্যাও যথেষ্ট। সেই অনুপাতে মহিলা অধ্যাপকদের সংখ্যায় যে ব্যবধান রয়েছে তা পূরণ করার জন্য আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। সম্পূর্ণ মহিলাদের নেতৃত্বে এই কর্মসূচি এমন একটি সম্ভাবনাময় উদ্যোগ যেখানে আইআইটি মাদ্রাজের মহিলা শিক্ষার্থী, অধ্যাপক এবং শিক্ষাকর্মীরা অনেক প্রতিবন্ধকতা হ্রাস করে আমাদের সক্ষম করার জন্য একটি শক্তিশালী অনুঘটক হিসাবে কাজ করবে। ”

ইতিমধ্যেই আইআইটি মাদ্রাজের ১৯৯০ এবং ১৯৯৫ সালের প্রাক্তনী ব্যাচের কাছ থেকে বেশ কিছু অনুদান এসে পৌঁছেছে যা উৎসাহিত করেছে কর্তৃপক্ষকে। অনুদান এসেছে গুগলে কর্মরত প্রাক্তনীদের কাছ থেকেও। তাঁরা আশা প্রকাশ করেছেন, মেধা দুনিয়ার এই লিঙ্গ বৈচিত্র্যের অনুসন্ধান আইআইটি মাদ্রাজে অবস্থিত মহিলাদের রোল মডেলগুলিকে সহায়তা করার সুযোগ দেবে।

আইআইটি মাদ্রাজ ফাউন্ডেশনের বোর্ড সদস্য মিঃ জিডিএস রামকুমার, (১৯৯০ সালের বি.টেক ক্লাস) বলেন, “আমার স্ত্রী অরুণা আইআইটি-র নেতৃত্বে নারীর প্রতিনিধিত্ব বাড়াতে এই যে দূরদর্শী কর্মসূচিকে সমর্থন করেছেন তার জন্য আমি গর্বিত। আমার বি.টেক থিসিসের উপদেষ্টা ছিলেন অধ্যাপিকা কমলা কৃথিবাসন যিনি আইআইটি মাদ্রাজের প্রথম মহিলা বিভাগীয় প্রধান এবং দক্ষতার সঙ্গে ১৯৯৩ সালে কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তাঁর আমি আমার গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আমি তাঁর এবং আমার শিক্ষকদের কাছ থেকে যা শিখেছি তার জন্য ধন্যবাদ। আইআইটি মাদ্রাসায় আমি এই ধারণা নিয়ে স্নাতক হয়েছি যে আমি যদি যথেষ্ট পরিশ্রম করতে পারি তবে আমি যে কোনও কিছুতেই সফল হতে পারি। আমাদের ৩০ তম (ভার্চুয়াল) পুনর্মিলন উপলক্ষ্যে ডব্লিউএলআই (Women Lead Initiative)প্রোগ্রামকে সমর্থন করার জন্য আমার ১৯৯০ ব্যাচের সহপাঠীদের বিশেষ ধন্যবাদ। “