পর্যটনের প্রসারে উদ্যোগী ভারত-বাংলাদেশ,দশটি কামরার ৯ ঘন্টার ননস্টপ ট্রেন চলাচল শুরু ২৬ মার্চ থেকে

300
পর্যটনের প্রসারে উদ্যোগী ভারত-বাংলাদেশ,দশটি কামরার ৯ ঘন্টার ননস্টপ ট্রেন চলাচল শুরু ২৬ মার্চ থেকে 1

 

নিউজ ডেস্ক: দীর্ঘদিনের অপেক্ষার সমাপ্তি হতে চলেছে শীঘ্রই।আগামী ২৬ মার্চ থেকে শিলিগুড়ি থেকে বাংলাদেশে চালু হচ্ছে ট্রেন পরিষেবা।এপার বাংলা-ওপার বাংলায় খুশির হাওয়া।

পর্যটনের প্রসারে উদ্যোগী ভারত-বাংলাদেশ,দশটি কামরার ৯ ঘন্টার ননস্টপ ট্রেন চলাচল শুরু ২৬ মার্চ থেকে 2

বাংলাদেশ থেকে প্রচুর মানুষ দার্জিলিং এবং ডুয়ার্স সহ উত্তরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসতে চান।কলকাতা থেকে ঢাকা ও খুলনার মধ্যে সরাসরি ট্রেন পরিষেবা থাকলেও বাংলাদেশ থেকে শিলিগুড়ি সরাসরি ট্রেন পরিষেবা না থাকায় বাসেই যাতায়াত একমাএ উপায়।

পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের সঙ্গে বাংলাদেশের ট্রেন যোগাযোগ নিয়ে বহুদিনের দাবিও ছিল।অবশেষে সেই দাবি পূরণ হতে চলেছে।

আগামী ২৬শে মার্চ এনজেপি থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হবে এই নতুন যাত্রীবাহী ট্রেন।খুব শীঘ্রই এই নতুন ট্রেনের নামকরণের পাশাপাশি টিকিটের মুল্য ধার্য্য করা হবে বলে জানিয়েছেন দুই দেশের রেল আধিকারিকেরা।

শুধুমাত্র সম্পর্কই নয় দুদেশের মধ্যে পর্যটন ব্যবসার উন্নতিসাধনকে মুল লক্ষ্য রেখে ট্রেন চলাচলের সিদ্ধান্ত। এই ট্রেনটি বিশেষ ভূমিকা গ্রহন করবে বলে আশাবাদী দুই দেশের রেলমন্ত্রক।

বুধবার এনজেপিতে একটি বৈঠক করেন বাংলাদেশের ডিআরএম মহম্মদ সহীদুল ইসলাম,এন এফ রেলওয়ের কাঠিহার ডিভিশনের ডিআরএম রবিন্দর কুমার বর্মা,শিয়ালদহ ডিভিশনের ডিআরএম শৈলেন্দর পি সিং।বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তারা জানান, ১০টি কামরা নিয়ে ৯ ঘন্টার ননস্টপ সফর করবে এই ট্রেনটি।সপ্তাহে দুদিন সোম ও বৃহস্পতিবার চলবে এই নতুন ট্রেনটি।এই রেল পরিষেবা চালু হওয়ার ফলে অর্থনৈতিকভাবে দু দেশই লাভবান হবে।

গতবছরের ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে চলমান ভার্চ্যুয়াল শীর্ষ বৈঠকে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি পথে রেল সংযোগ পুনরায় চালু হয়। দুপুর ১২টার দিকে ৫৫ বছর পর এই রেলসংযোগের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা হয়।সেসময় পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছিল।কথাবার্তা চলছিল যাত্রীবাহী ট্রেন চালানোর।কার্যত এদিন তাতেই শিলমোহর পড়ল।