পুজোর মুখে রাজ্যে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ, নবান্নে ভার্চুয়াল বৈঠকে মুখ্যসচিব

94
পুজোর মুখে রাজ্যে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ, নবান্নে ভার্চুয়াল বৈঠকে মুখ্যসচিব 1

ওয়েব ডেস্ক : দীর্ঘদিন একঘেয়ে জীবনযাপনের পর এবার পুজোর আনন্দে মেতে উঠেছে রাজ্যবাসী। দোকানে দোকানে কেনাকাটার ভিড়। পুজোর আর মাত্র হাতে গোনা ২ দিন বাকি। এদিকে পুজোর মুখে রাজ্যে প্রতিদিন বাড়ছে করোনার প্রভাব। শুধুমাত্র রবিবারই রাজ্যে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ছুঁয়েছে সর্বাধিক। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন প্রায় ৪ হাজার জন। এদিকে পুজোর আগে রাজ্যে যেভাবে চোখ রাঙাচ্ছে করোনা, তাতে স্বাভাবিকভাবেই বেশ চিন্তিত রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। রাজ্যের বর্তমান করোনার হালহকিকত নিয়ে ইতিমধ্যে নবান্নে রিপোর্ট পাঠিয়েছেন স্বাস্থ্য আধিকারিকরা। সেই রিপোর্টের ভিত্তিতে পুজোর মুখে কিভাবে কিভাবে করোনা পরিস্থিতিতে লাগাম টানা সম্ভব, তা নিয়ে সোমবারই ভার্চুয়ালি জরুরি বৈঠকে বসেছেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন -  খড়গপুর শহরের মোবাইল দোকানে চুরি দেড় লক্ষাধিক টাকার মোবাইল, পাতাখোর দাপটে অতিষ্ঠ শহরবাসী

জানা গিয়েছে, সোমবার সকাল ১১টা থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়াল বৈঠক করেন মুখ্যসচিব। এদিনের বৈঠকে সব জেলার জেলাশাসক, পুলিশ সুপার, পুলিশ কমিশনার এবং জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকদের উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। তবে শুধুমাত্র স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরাই নয়, একইসাথে এদিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কলকাতা, বিধানননগর, হাওড়া–সহ রাজ্যের সমস্ত পুরসভার আধিকারিকরাও। প্রতিদিন রাজ্যে বিশেষত কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগনায় যে হারে বাড়ছে সংক্রমণের মাত্রা তা কিভাবে ঠেকানো সম্ভব তা নিয়েই মূলত:এদিন বৈঠকে আলোচনা করা হয়।

পুজোর মুখে রাজ্যে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ, নবান্নে ভার্চুয়াল বৈঠকে মুখ্যসচিব 2

প্রসঙ্গত, রবিবার গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯৮৩ জন‌। শুধুমাত্র রবিবারই রাজ্যে মোট করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬৪ জনের। সব মিলিয়ে এই মূহুর্তে রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬ হাজার ছাড়িয়েছে৷ রবিবার পর্যন্ত রাজ্যে মোট মৃতের সংখ্যা ৬০৫৬ জন। এদিকে প্রতিদিনের মতো এদিনও মৃত ও সংক্রমণের নিরিখে এগিয়ে রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা। দিন উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় মৃত্যু হয়েছে মোট ১৭ জনের। এরপরই রয়েছে কলকাতা। রবিবার কলকাতায় মৃতের সংখ্যা ১৩ জন। তবে বেশ কিছুদিন রাজ্যে সুস্থতার হার বাড়লেও গত কয়েকদিনে পর রবিবারও কমেছে সুস্থতার হার। রবিবার রাজ্যে সুস্থতার হার ছিল ৮৭.‌৫৫%