নির্বাচনের মুখে বাংলায় গরম বাড়ছে , জানাল আবহাওয়া দফতর

212
নির্বাচনের মুখে বাংলায় গরম বাড়ছে , জানাল আবহাওয়া দফতর 1

নিউজ ডেস্ক: প্রতিনিয়ত বাড়ছে গরম। আর নির্বাচনের মুখে গরম আরও বাড়ছে বলেই পূর্বাভাষ আবহাওয়া দপ্তরের। এমনিতেই বঙ্গবাসী চৈত্রের রোদে দিশেহারা। বসন্তেই যেন গ্রীষ্মের আবহাওয়া সর্বত্রই। বৃষ্টির আশায় চাতকের ন্যায় অপেক্ষা করে রয়েছেন মানুষজন। কিন্তু বৃষ্টির দেখা আপাতত নেই বলেই সম্প্রতি জানিয়েছে হাওয়া দফতর। গরমের দাপট বজায় থেকে বাড়বে অস্বস্তি। ফলে প্রচারে নামা রাজনৈতিক কর্মী, প্রার্থী সবারই বাড়তি সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

নির্বাচনের মুখে বাংলায় গরম বাড়ছে , জানাল আবহাওয়া দফতর 2

আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, এখনই বাংলায় বৃষ্টির কোন সম্ভাবনা নেই। তবে গরমের দাপট বাড়বে আরও। অস্বস্তিকর পরিবেশ বজায় থাকবে এখনও বেশকিছুদিন। সেইসঙ্গে চড়বে তাপমাত্রার পারদ। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি পার হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও।

নির্বাচনের মুখে বাংলায় গরম বাড়ছে , জানাল আবহাওয়া দফতর 3

আজ মঙ্গলবার কলকাতা শহরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে। সকালের দিকে কিছুটা আবছা আকাশ এবং রাতের দিকে আবছা আকাশ থাকতে পারে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

আজকের দিনে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা দুইই বৃদ্ধি পেতে পারে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। সেইসঙ্গে সকাল থেকেই কেমন একটা গুমোট ভাব। চৈত্রের রোদের তাপেই প্রাণ ওষ্ঠাগত বাঙালির। মন চায় একটু বৃষ্টির ছোঁয়া। এখনই কেমন যেন গরমে হাঁসফাঁস করতে শুরু করে দিয়েছে।

এরই মধ্যে চলে আসছে ভোট গ্রহণের দিন। ২৭শে মার্চ এবং ১লা এপ্রিল প্রথম দফায় ভোট। এখনও পর্যন্ত পাওয়া পূর্বাভাষ বলছে এই দুই ভোটের আগে বৃষ্টি হচ্ছেনা। তাই যাঁরা ভোট দেবেন এবং ভোট নেবেন দু’তরফেই সতর্কতা গ্রহণ করতে হবে। করোনার জন্য ভোটের লাইন দীর্ঘতর হবে এবং ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়া বিলম্বিত হতে পারে। তাই উপযুক্ত প্রস্তুতি নিতে হবে। হালকা অথচ বেশি করে শরীর ঢাকা পোশাক, জলের বোতল, ও আর এসের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করে রাখাই ভালো। খুব ভালো হয় সকাল ১০টার মধ্যেই নিজের ভোট দিয়ে ঘরে ঢুকে পড়া।

Previous articleগেরুয়া শিবিরে যোগদানের পরের দিনই বিজেপি প্রার্থীর হয়ে ঝাঁপালেন শিশির অধিকারী
Next articleসবং জয় বড়ই কঠিন! মানস কী মেজাজ হারাচ্ছেন? জনসমক্ষেই কর্মীকে চড়, গালাগালি! এমভিএ, বলছেন কর্মীরা