সংকটে ঝা, সাতদিনের অন্তর্বর্তী জামিনে অজ্ঞাতবাস থেকে শহরে ফিরলেন , আদালতের তোপে পুলিশ

157
Advertisement

নিজস্ব সংবাদদাতা: নির্বাচনের মুখেই তীব্র আইনি সংকটে খড়গপুর সদর বিধানসভা উপনির্বাচনের বিজেপি ঘোষিত প্রার্থী প্রেমচাঁদ ঝা। খড়গপুর শহর লাগোয়া তলঝুলির এক স্বাধীনতা সংগ্রামী পরিবারের ৩কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি বেআইনি হস্তান্তর মামলায় জামিন অযোগ্য ধারায় জড়িয়ে গেছেন তিনি। জানা যাচ্ছে দল তার নাম ঘোষনার ঠিক আগেই এই কথা জানতে পেরেই আত্মগোপন করেন তিনি। সোমবার কলকাতা হাইকোর্টে বিচারপতি জয়মাল্য বাগচির এজলাসে জামিন নিতে গেছিলেন ঝা কিন্তু বিচারপতি জানিয়ে দেন এই মামলায় জামিন হবেনা তবে আগামী ১৩তারিখ অবধি পুলিশ গ্রেপ্তার করবেনা তাঁকে। ৭দিনের মাথায় আবার ঝা কে হাজির হতে হবে আদালতে।

Advertisement

Advertisement
Advertisement

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
এদিন খড়গপুর পুলিশের তদন্তকারী অধিকারিককেও তোপ দেগেছেন বিচারপতি। তিনি বলেছেন অভিযোগকারির কাছ থেকে কোনও তথ্যপ্রমান সংগ্রহ না করেই কেন অসম্পূর্ণ কেস ডায়রি জমা দিয়েছে পুলিশ কেনই বা ঝা য়ের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনের ধারা যুক্ত করা হয়নি যেখানে অভিযোগকারির বক্তব্য ছিল যে ঝা তাঁকে অস্ত্র নিয়ে ভয় দেখিয়েছিল।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
এই মামলার অভিযোগকারি সুকান্ত বেরা যিনি স্বাধীনতা সংগ্রামী পরিবারের সদস্য দাবি করেছেন, পুলিশ প্রথম থেকেই এই মামলায় গড়িমসি করে আসছিল। শেষ অবধি আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তিনি। এরপর আদালতের চাপে পড়েই পুলিশ ঝায়ের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
উল্লেখ্য ঝা য়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ যে বেরা পরিবারের ওই জমির ভূমি সংস্কার দপ্তরের সহয়তা নিয়ে ঝা বেআইনি ভাবে অন্যের নামে কাগজ তৈরি করে কলকাতার এক ব্যবসায়ীকে বিক্রি করে দেন। যদিও ঝা এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছিলেন যে, যার জমি সেই বিক্রি করেছে তিনি এরমধ্যে নেই। এই রহস্যের মধ্যে অবশ্য শুধুই ঝা , ভূমি সংস্কার দপ্তর নেই আছেন শাসকদলের এক নেতাও। এমনটাই দাবি ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের। মামলায় সেই প্রসঙ্গও উঠে আসতে পারে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
পুলিশ এবং স্থানীয় প্রশাসন কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছেনা দেখে স্বাধীনতা সংগ্রামী পরিবার এবার দ্বারস্থ হন প্রধানমন্ত্রীর। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে বিষয়টির ব্যাখ্যা এবং সরকারের ভূমিকা জানতে চেয়ে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে চিঠিও পাঠানো হয় যা কিছুদিন আগেই ‘দ্য খড়গপুর পোষ্ট’ প্রকাশ করেছিল।
               
ঝা য়ের এই সব দুর্নীতি নিয়ে দলের মধ্যেই ঝড় উঠেছিল। দলের অধিকাংশ নেতৃত্বই ঝা কে প্রার্থী করার বিরুদ্ধে ছিল কিন্ত তা স্বত্তেও দিলীপ ঘোষ তারই নাম ঘোষনা করে। ইতিমধ্যেই দলের বিদ্রোহীরা বিজেপি বাঁচাও কমিটি নাম নিয়ে পৃথক ভাবে নির্বাচনের ময়দানে নামার প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
আদালতের রায়ের পর বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব দিলীপ ঘোষের ওপর নিশ্চিতভাবেই চাপ বাড়াবে ঝা য়ের বদলে নতুন করে অন্য প্রার্থীর নাম ঘোষনায়। দিলীপ ঘোষ এখন কি করেন সেটাই দেখার । তবে এই টালমাটাল পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার বিজেপির তরফে মনোনয়ন জমা নাও দেওয়া হতে পারে এমনটাই জানা যাচ্ছে। ঝা নিজে গোটা বিষয়টিকে নির্বাচনের প্রাক্কালে তৃণমূলের ষড়যন্ত্র বলে জানিয়েছেন ।