দুশো ছাড়িয়ে গেল খড়গপুর শহর! এক দিনে আক্রান্তের নিরিখেও জেলায় নয়া রেকর্ড শহরের, ৭২ ঘন্টা পরে ফের করোনা আক্রান্তের হদিস মিলল রেল এলাকায়

2858

নিজস্ব সংবাদদাতা: সোমবার রেকর্ডের পর রেকর্ড গড়ল খড়গপুর শহর। একদিনে ২৫ জন আক্রান্তের সন্ধান মিলল খড়গপুর শহরে যা সারা জেলার মধ্যে রেকর্ড হয়ে রইল। কেবলমাত্র একটি শহরে একই দিনে এতজন আক্রান্ত হওয়ার নজির খড়গপুর ছাড়া জেলায় আর কোথাও নেই। খড়গপুর মহকুমা হাসপাতালে গত ৮ আগস্ট সংগৃহিত নমুনার মধ্যে সোমবার ২২ জনের পজিটিভ রেজাল্ট এসেছে যার মধ্যে ২০ জনই শহরের বাসিন্দা।

বাকি ২জন শহরেরই কান ঘেঁষে থাকা মিরুপুরের। অন্যদিকে টানা তিনদিন বা ৭২ ঘন্টা রেলের কোনও পজিটিভ ছিলনা। সোমবার সেই রেল এলাকা থেকে মোট ৫জনের পজিটিভ রেজাল্ট আসে আর সব মিলিয়ে খড়গপুর শহরে এদিন ২৫জনের নতুন করে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেল।
সংক্রমনের নিরিখে এদিন দেখা গিয়েছে একই পরিবারের মধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি। অর্থাৎ একজন সংক্রমিত হওয়ার পরই তার হাত ধরেই পরিবার আক্রান্ত হয়ে পড়ছে। যেমন ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইন্দা বয়েজ স্কুল সংলগ্ন একটি পরিবারে মোট ৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে তিনজন মহিলা ও তিনজন পুরুষ সদস্য রয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৭৪ বছরের পরিবার কর্তা ও সর্বনিম্ন ৮ বছর বয়সী একটি বালিকা রয়েছে। এই সদস্যের এক যুবক সদস্য কিছুদিন আগেই আক্রান্ত হয়েছিলেন। বেসরকারি ফার্মে কর্মরত ওই যুবকের কাছ থেকেই বাকিরা সংক্রমনের শিকার হয়েছেন এটা সহজেই বলা চলে।

এরকমই আরো একটি ঘটনা পৌরসভার ১৮ নম্বর ওয়ার্ড ৩৬ পাড়ায়। পরিবারের চার সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন। এই পরিবারের ৩৫ বছরের মহিলা গৃহপরিচারিকার কাজ করেন। কিছুদিন আগেই একটি রেশন দোকানের মালিক আক্রান্ত হয়েছিলেন। সেই পরিবারে কাজ করতেন মহিলা। রেশন দোকানদার আক্রান্ত হওয়ার পরই এই পারিবারটি নমুনা দিয়েছিলেন। মহিলা ছাড়াও ৬০ বছরের এক বৃদ্ধা ও ১৫ ও ৮ বছরের দুই নাবালক নাবালিকা আক্রান্ত হয়েছে। অর্থাৎ দেখা যাচ্ছে শহরের ২০ জন আক্রান্তের মধ্যে ১০ জনই দুটি পরিবারের।

আরও পড়ুন -  দেশের জন্য নয়, চেয়ারের জন্যই লড়েন বিজেপি নেতারাও, গড়বেতায় চেয়ারের জন্য উল্টে পড়লেন দুই নেতা

বাকি ১০জন যে এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন তারমধ্যে ৩জন রয়েছেন সুভাসপল্লী পদ্মপুকুর এলাকার পৃথক পৃথক পরিবারের। বাকিরা রয়েছেন মালঞ্চ রোড, কৌশল্যা, দেবলপুর, ভবানীপুর, বিদ্যাসাগরপুর ও বারবেটিয়া এলাকার। রেলের যে ৫ জনের পজিটিভ পাওয়া গেছে তারমধ্যে ২ জন রেল এলাকায় বসবাস করলেও বাকি তিনজন আক্রান্ত থাকেন ১৭নম্বর ওয়ার্ডের খরিদা বিধানপল্লী, ৮নম্বর ওয়ার্ড খরিদা এবং ইন্দা নিউটাউন এলাকায়। এই নিউটাউন এলাকার একটি আবাসনের ৫৬ বছরের এক মহিলা আগেই আক্রান্ত হয়েছিলেন খবর পেয়েই পুলিশ নিউটাউন এলাকায় কন্টেনমেন্ট জোন করে দেয়।

আরও পড়ুন -  শুভেন্দু অধিকারীর নামে মহাযজ্ঞ খেজুরির সৎসঙ্গ আশ্রমে

মহিলা তখন দুরারোগ্য রোগের চিকিৎসা করাতে কলকাতায়। সেখানেই আক্রান্ত হওয়ার খবর পেয়েই পুলিশ এখানে কন্টেনমেন্ট জোন করে। এরপর ওই মহিলা নেগেটিভ হয়ে শহরে ফেরেন। কয়েকদিন আগে ফের তাঁর শরীর খারাপ হওয়ায় করোনা পরীক্ষা করানোর পর ফের পজিটিভ ধরা পড়ে তাঁর। শহরে এটি দ্বিতীয় মামলা যেখানে একবার নেগেটিভ হওয়ার পর ফের পজিটিভ ধরা পড়ল। এর আগে রেলের এক চিকিৎসকের ক্ষেত্রেও এরকমটা হয়েছিল।

আরও পড়ুন -  খড়গপুরের আশঙ্কা সত্যি করেই ফের এক গন্ডা পজিটিভ, শহরের পরিস্থিতি উদ্বেগজনক বললেন স্বাস্থ্যকর্তা

এদিকে রবিবার অবধি শহরে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৮৬ জন। সোমবার নতুন ২৫ আক্রান্ত নিয়ে ডবল সেঞ্চুরি ছড়িয়ে গেল করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আর মোট আক্রান্ত দাঁড়ালো ২১১ জনে। এঁদের মধ্যে দেড় শতাধিক শহরের পুরোপুরি সুস্থ।

দুশো ছাড়িয়ে গেল খড়গপুর শহর! এক দিনে আক্রান্তের নিরিখেও জেলায় নয়া রেকর্ড শহরের, ৭২ ঘন্টা পরে ফের করোনা আক্রান্তের হদিস মিলল রেল এলাকায় 1