বাংলার সব জেলাকে ছাড়িয়ে উষ্ণতার শীর্ষে খড়গপুর-মেদিনীপুর! ভয়ঙ্কর তাপপ্রবাহ চলবে বুধবার, ভোটের দিন সতর্কতা নিয়েই লাইনে দাঁড়াতে পরামর্শ আবহাওয়া দপ্তরের

2423
বাংলার সব জেলাকে ছাড়িয়ে উষ্ণতার শীর্ষে খড়গপুর-মেদিনীপুর! ভয়ঙ্কর তাপপ্রবাহ চলবে বুধবার, ভোটের দিন সতর্কতা নিয়েই লাইনে দাঁড়াতে পরামর্শ আবহাওয়া দপ্তরের 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: খড়গপুর এবং মেদিনীপুরের এই মরশুমের এখনও অবধি সর্বোচ্চ উষ্ণ দিন চলে গেল মঙ্গলবার। এদিন ঘরের বাইরে বেলা ১২টা থেকে বিকাল সাড়ে চারটা অবধি যারা ছিলেন তাঁরা নাকে মুখে টের পেয়েছেন মারাত্মক সেই তাপ প্রবাহের। নিশ্চিতভাবেই ভেবেছেন মার্চের শেষেই যদি এই অবস্থা হয় তবে কী অবস্থা হতে চলেছে মে-জুন মাসে। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা গেছে মঙ্গলবার রাজ্যে সব থেকে বেশি গরম ছিল খড়গপুর ও মেদিনীপুর শহরে। সেখানে পারদ ৪৩ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড ছাড়িয়ে গেছে। যা স্বাভাবিকের থেকে ৮ ডিগ্রি বেশি। অর্থাৎ সাধারণ ভাবে এই সময়ে দুই শহরের তাপমাত্রা ৩৫ ডিগ্রি থাকার কথা।

যদিও এটাই শেষ নয়। ২৪ ঘন্টার মধ্যেই অর্থাৎ বুধবার এই তাপমাত্রা ৪৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড ছুঁয়ে যেতে পারে এমনই আশঙ্কা করা হয়েছে। বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আবহাওয়া উদ্যানের হিসাব অনুযায়ী এদিন মেদিনীপুর শহর সংলগ্ন এলাকায় প্রায় ৪২ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রা ধরা পড়েছে। অন্যদিকে খড়গপুর আইআইটি ক্যাম্পাস ওয়েদার রিপোর্ট বলছে এদিন দুপুর ২ টার সময় ক্যাম্পাসে সর্বোচ্চ তাপমান ছিল ৪২ডিগ্রি। বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয় বা আইআইটি ক্যাম্পাস মূল শহর থেকে বাইরে হওয়ায় হয়ত তাপমান কম অনুভূত হয়েছে কিছুটা কিন্তু দুই শহরের তাপমান তার চেয়ে বেশি অনুভূত হয়েছে যা কিনা বলছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর।

বাংলার সব জেলাকে ছাড়িয়ে উষ্ণতার শীর্ষে খড়গপুর-মেদিনীপুর! ভয়ঙ্কর তাপপ্রবাহ চলবে বুধবার, ভোটের দিন সতর্কতা নিয়েই লাইনে দাঁড়াতে পরামর্শ আবহাওয়া দপ্তরের 2

আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর বলছে খড়গপুর আর মেদিনীপুরের পর বুধবার জেলাগুলির দ্বিতীয় সর্বোচ্চ তাপমান ছিল বাঁকুড়ায়। সেখানে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৪২.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরপর ক্রমান্বয়ে পানাগড় ৪২.৬, আসানসোল ৪১.৮, হাওড়া ৪১.১ ও শ্রীনিকেতনে ৪০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। কলকাতার আলিপুরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মেদিনীপুর এবং খড়গপুরে এর আগে চলতি মরশুমের সর্বোচ্চ তাপমান ছিল ২৪শে মার্চ। সেদিন বিদ্যাসাগর বিদ্যালয়ের তাপমান যন্ত্রে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ধরা পড়েছিল ৪০.৪৬ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। পরের ২ দিন একটু নেমে ৩৯ ডিগ্রির ঘর ছুঁয়েছিল। পরের ৩দিন অর্থাৎ ২৬,২৭ এবং ২৮ শে মার্চ যা অনকেটাই কমে ৩৫ থেকে ৩৬ ডিগ্রির মধ্যে ছিল। তাপমাত্রা হঠাৎই বাড়তে শুরু করে ২৯শে মার্চ থেকে। ওইদিন ৪১.৬১ ডিগ্রি হয়ে যায়। এরপর মঙ্গলবার আরও বেড়ে ৪৩ ডিগ্রি। সঙ্গে প্রায় ২০কিলোমিটার বেগে বাতাস বয়েছে। ফলে আগুনের হলকা অনুভূত হয়েছে।
বুধবার আরও ১ডিগ্রি বেড়ে তা ৪৪ হয়ে যাবে বলে আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন।

এই পূর্বাভাস অনুসারে আগামী কয়েকদিনের পশ্চিমের জেলাগুলিতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৬ ডিগ্রি ছুঁতে পারে। আশঙ্কা বাড়িয়ে আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, আপাতত পশ্চিমের জেলাগুলিতে কালবৈশাখি বা ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। যার ফলে পশ্চিমের জেলাগুলিতে তাপপ্রবাহের সতর্কতা জারি করেছেন আবহাওয়াবিদরা। বৃহস্পতিবার, ১ এপ্রিল দ্বিতীয় দফায় ৩০টি বিধানসভা কেন্দ্রের নির্বাচন। মানুষকে সতর্কতা অবলম্বন করে ভোটদানের লাইনে দাঁড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন তাঁরা।