প্রাক প্রতিপদেই মেদিনীপুর-খড়গপুরে পা রাখলেন করোনাসুর! মেদিনীপুরে এক দিনেই আক্রান্ত ৫০ ছুঁয়ে, খড়গপুরের উত্তরে ইন্দায় ফের সংক্রমন

1804
প্রাক প্রতিপদেই মেদিনীপুর-খড়গপুরে পা রাখলেন করোনাসুর! মেদিনীপুরে এক দিনেই আক্রান্ত ৫০ ছুঁয়ে, খড়গপুরের উত্তরে ইন্দায় ফের সংক্রমন 1
প্রাক প্রতিপদেই মেদিনীপুর-খড়গপুরে পা রাখলেন করোনাসুর! মেদিনীপুরে এক দিনেই আক্রান্ত ৫০ ছুঁয়ে, খড়গপুরের উত্তরে ইন্দায় ফের সংক্রমন 2

নিজস্ব সংবাদদাতা: এবার পাঁজি মেনে মর্ত্যে আসা হয়ে ওঠেনি মায়ের। নিয়ম মেনে দেবীপক্ষ শুরু হয়ে শেষ হয়ে গেছে কিন্তু মলমাসের ফাঁড়ায় মায়ের মর্ত্যে আগমনে বাধা পড়ে গিয়েছিল। মা তাই এক মাস লেটে আসছেন আর সেই আগমনী মতে শনিবার প্রতিপদে মর্ত্যে পা রাখবেন দেবী কিন্তু তার দু’দিন আগেই মেদিনীপুর শহরে প্রবল বিক্রমে পা রাখলেন করোনাসুর। ১৫ই অক্টোবর পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার আরটি/পিসিআর রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে শুধু মেদিনীপুর শহর ও সংলগ্ন এলাকায় প্রায় অর্ধশতাধিক আক্রান্ত হয়েছেন যা এযাবৎ কালের মেদিনীপুরে বৃহত্তম সংক্রমন বলা যেতেই পারে।

যদিও এই রিপোর্ট অনুযায়ী মেদিনীপুর শহরে আক্রান্ত প্রত্যেকের সঠিক বসবাসের উল্লেখ করা হয়নি তবুও যে টুকু আভাস মিলেছে তাতে পরিষ্কার যে মেদিনীপুর শহরের প্রায় সর্বত্রই নিজের অস্থিত্বের জানান দিয়েছেন করোনা অসুর।
আক্রান্তদের সঠিক অবস্থান জানা গেছে এমন কয়েকজনের মধ্যে রয়েছেন নজরগঞ্জ এলাকার ৭০ ও ৬৫ বছরের বৃদ্ধ দম্পত্তি। রাঙামাটি এলাকার ৬১ ও ৫৪ বছরের এক দম্পত্তি এবং তাঁদের ১৫বছরের মেয়ে। এছাড়াও রাঙামাটি এলাকায় এক ৬২ বছরের বৃদ্ধ আক্রান্ত হয়েছেন। শহরের পালবাড়ি এলাকাতেও আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩ ও ৩৪ বছরের আরও এক দম্পত্তি। পালবাড়ি এলাকাতে আরও এক ৩২ বছরের যুবক আক্রান্ত হয়েছেন।
শহরের বার্জটাউনে ৩২ বছরের এবং পুলিশ লাইনে ২৯বছরের দুই যুবক আক্রান্ত হয়েছেন।

প্রাক প্রতিপদেই মেদিনীপুর-খড়গপুরে পা রাখলেন করোনাসুর! মেদিনীপুরে এক দিনেই আক্রান্ত ৫০ ছুঁয়ে, খড়গপুরের উত্তরে ইন্দায় ফের সংক্রমন 3

গোলকুয়াচকে ৬৫ বৃদ্ধা এবং মিত্র কম্পাউন্ডে ৫৩ বছরের মহিলা আক্রান্ত হয়েছেন। নতুন বাজারে ৩৭ এবং বিদ্যুৎ দপ্তরে ৪০ বছরের দুই যুবক আক্রান্ত। কেরানিতলা এলাকায় খোঁজ মিলেছে ৩৪বছরের আক্রান্ত গৃহবধূর।
শহরে যে সব আক্রান্তের প্রকৃত অবস্থান জানা যায়নি তাঁদের মধ্যে রয়েছেন ৪ জোড়া দম্পত্তি এবং একটি পরিবারের ৪৩বছরের মা ও তাঁর ১৩বছরের ছেলে। দম্পত্তি যুগলের মধ্যে ২জোড়া ৪০বছরের নিচে, এক জোড়া ৫০ বয়সের মধ্যে এবং অন্য দম্পতি যুগল ৫৭ বছরের উর্দ্ধে । এ ব্যতিরেকে রয়েছে ১১জন আক্রান্ত যাঁদের বেশির ভাগ অংশই তরুন, বয়সসীমা ৪০বছরের নিচে।

শহর ঘেঁষা কালগাঙ এলাকায় ২জন আক্রান্ত হয়েছেন তবে ভয়াবহ সংক্রমন ঘটেছে গুড়গুড়িপালে যেখানে একই পরিবারের ৭ জন মোট ৮জন আক্রান্ত হয়েছেন। শহর থেকে মাত্র ১০কিলোমিটার দুরে গুড়গুড়িপালে আক্রান্ত ৭জনের ৬জনই মহিলা যার মধ্যে ২বছরের এক শিশু কন্যা রয়েছে । রয়েছে ১২ ও ১৫বছরের দুই কিশোরী, ২০বছরের যুবতী এবং ৩৮ বছরের ২গৃহবধূ।

অন্যদিকে খড়গপুর শহরের উত্তরে ইন্দা এলাকায় এদিন করোনাসুরের প্রবল দাপট চোখে পড়েছে। ১০জন আক্রান্তের চারজনই ইন্দা এলাকার। মধ্য ইন্দায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬০ বছরের বৃদ্ধ, ইন্দা গোয়ালাপাড়ায় ৩৪ বছরের যুবক, ইন্দা বামুনপাড়ায় ৩২বছরের যুবতী এবং ইন্দা শরৎপল্লী এলাকায় ৬৫বছরের বৃদ্ধ আক্রান্ত হয়েছেন। শহরের ভবানীপুরে ৪৯ বছরের এক ব্যক্তি আক্রান্ত হয়েছেন। মালঞ্চ বিবেকানন্দপল্লী ও বারবেটিয়া মদনমোহনপল্লীতে আক্রান্ত দুই যুবকেরই বয়স ৩১বছর। খড়গপুর মহকুমা হাসপাতালের আবাসনে ১৯ বছরের মেয়ের সাথে আক্রান্ত ৫৩ বছরের পিতাও। শহরের বাইরে খড়িয়াচটি সালুয়া এবং গেড়িয়াশুলিতে ৩৬ ও ৩০ বছরের ২যুবক আক্রান্ত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।