ফের সালুয়ার EFR এ বাড়ল সংক্রমন , করোনা খড়গপুর, মেদিনীপুরেও

948
ফের সালুয়ার EFR এ বাড়ল সংক্রমন , করোনা খড়গপুর, মেদিনীপুরেও 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: খড়গপুর সালুয়ায় Eastern Frontier Riffle বা EFR ব্যাটেলিয়ানে করোনা সংক্রমন ছড়ালো। ৩ রা অক্টোবরের আরটি/পিসিআর রিপোর্ট মোতাবেক সালুয়ার EFR হেড কোয়ার্টারের দুটি ব্যাটেলিয়ানের আবাসন এলাকায় দুই শিশু সমেত ৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন। অবশ্য আক্রান্তের মধ্যে সিংহভাগই ফার্স্ট ব্যাটেলিয়ানের। আক্রান্তের ৫জনই ওখানকার। সেকেন্ড ব্যাটেলিয়ানের মাত্র ১জন আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে। সেকেন্ড ব্যাটেলিয়নে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮বছরের এক গৃহবধূ।

ফার্স্ট ব্যাটেলিয়ানে ২৮ বছরের মা এবং তাঁর ২ বছরের শিশুকন্যা আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্ত একটি পরিবারের ৩৪বছর বয়সী গৃহবধূও। এছাড়াও ৩৫ ও ২৪ বছরের দুই যুবক এবং ৯ বছরের এক নাবালক আক্রান্ত হয়েছেন। উল্লেখ্য করোনা শুরুর মুখে রাজ্য সশস্ত্র বাহিনীর প্রশিক্ষণের সময় ভয়াবহ সংক্রমন ছড়িয়েছিল সালুয়াতে। নদিয়া থেকে আসা এক প্রশিক্ষনরত জওয়ানের কাছ থেকে আগুনের মত ছড়িয়ে পড়েছিল সংক্রমন। সেই সময় প্রায় ৯০ জন প্রশিক্ষনরত জওয়ান সহ শতাধিক প্রশিক্ষক, সালুয়ার আবাসিক, রাঁধুনি ইত্যাদিরা আক্রান্ত হয়ে পড়লে প্রশিক্ষন বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় রাজ্য পুলিশ।

ফের সালুয়ার EFR এ বাড়ল সংক্রমন , করোনা খড়গপুর, মেদিনীপুরেও 2

৩ রা অক্টোবরের আরটি/পিসিআর রিপোর্ট মোতাবেক এদিন খড়গপুরে সংক্রমনের হার অনেকটাই কম। IIT-Kharagpur ক্যাম্পসে এদিন মাত্র ২আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে যা গত ২দিনে প্রায় ২০জন ছিল। এদিনের রিপোর্ট অনুযায়ী ১৮ বছরের এক তরুণ ও ১৯ বছরের এক তরুণী আক্রান্ত বলে জানা গেছে।
খড়গপুর শহর ও শহরতলীতে এদিন আক্রান্ত মাত্র ১ডজনের মত। শহরের গোলবাজার, মালঞ্চ, মথুরাকাটি ও সিএমই গেট এলাকায় ২৪বছরের যুবতী এবং তিন মধ্য বয়সী ব্যক্তি আক্রান্ত হয়েছেন। শহর থেকে দুরে বেনাপুর এলাকার শঙ্করাচকে একই পরিবারের ৪০ ও ২৫ বছরের মহিলা আক্রান্ত হয়েছেন। গোপালীতেও ৩৪ ও ৩৩ বছরের এক দম্পত্তি আক্রান্ত। শ্যামেশ্বরপুর এলাকায় আক্রান্ত ৩৩ বছরের যুবক। গ্রামীন খড়্গপুরের লক্ষীচক মির্জাপুর এলাকায় ৪২ বছরের ব্যক্তি আক্রান্ত হয়েছেন।

আরও পড়ুন -  ডেবরায় মোবাইলের ব্যাটারি পাল্টাতে গিয়ে ঘটে গেল বিস্ফোরণ! সেকেন্ডের জন্য রক্ষা পেলেন অনেকে

মেদিনীপুর শহরেও এদিন আক্রান্তের সংখ্যা কম। শহরের রাঙামাটি ও নানুরচকে একই পরিবারের ২জন করে আক্রান্ত। রাঙামাটিতে ৪৭ বছরের মহিলা ও ৯ বছরের শিশু কন্যা আক্রান্ত। নানুরচকে আক্রান্ত ৩০ ও ২৫ বছরের দম্পত্তি। মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজের ৩৪ এবং ৩৯ বছরের দুই মহিলা স্বাস্থ্য কর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। শহরের আবাস এলাকায় মৃনালপল্লীতে আক্রান্ত ৪০বছরের যুবক ও ১১বছরের নাবালিকা। গেট বাজারে আক্রান্ত ৬৫বছরের বৃদ্ধা, শরৎপল্লীতে ৩৩বছরের মহিলা। এছাড়াও বসুধা আবাসনে ৫২ বছর এবং তাঁতিগেড়িয়াতে ৪৫বছরের দুই ব্যক্তি আক্রান্ত হয়েছেন।