খড়গপুরে সমন্বয়ের অভাব, প্রচারেই নামেনি প্রশাসন, প্রথম দিনেই ধাক্কা খেল লকডাউন, সময় বদলে রবিবার ফের রাস্তায় পুলিশ

105

নিজস্ব সংবাদদাতা: বুধবার টাস্ক ফোর্সের মিটিং শেষে খড়গপুর শহর বিধায়ক বলেছিলেন, মাইক নামবে রাস্তায় খড়গপুরবাসীকে জানাবে শুক্রবার থেকে শহরে শুরু হওয়া লক ডাউনের কথা। খড়গপুরে সমন্বয়ের অভাব, প্রচারেই নামেনি প্রশাসন, প্রথম দিনেই ধাক্কা খেল লকডাউন, সময় বদলে রবিবার ফের রাস্তায় পুলিশ 1বলা হবে আগামী ১৪দিন সকাল ৬টা থেকে বেলা ১০টা এবং বিকাল ৩টা থেকে সাড়ে ৫টা অবধি সময় বাদ দিয়ে বাকি সময় লক ডাউন থাকবে। কিন্ত বাস্তবে মাইক নামেনি।

পুলিশের পরিকল্পনা ছিল বৃহস্পতিবার বিকালে শহর জুড়ে বিভিন্ন বাজারে অভিযানে নামবে। লাঠি ঘুরিয়ে আর লিফলেট ছড়িয়ে জানিয়ে দেওয়া যাবে শুক্রবার থেকে শুরু লক ডাউন। কিন্তু বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে শুরু হওয়া ব্যাপক বৃষ্টি মানুষকে বাইরে বেরুতে দেয়নি। পুলিশও নামতে পারেনি। লাঠি আর লিফলেট থানাতেই থেকে গেছে, মানুষ জানতেই পারেনি খড়গপুরের নিজস্ব লকডাউনের কথা।

ফল যা হওয়ার তাই হয়েছে শুরুর দিনই মুখ থুবড়ে পড়েছে লক ডাউন। সকাল ১০টার পরে খড়গপুর টাউন আইসি রাজা মুখার্জী নিমপুরা মালঞ্চ বাজারে গিয়ে কিছু দোকানপাট বন্ধ করেছেন, লোকজনকে ঘরে ঢুকিয়েছেন বটে কিন্তু ইন্দা পুরাতন বাজার, কৌশল্যা, ঝাপেটাপুরে মানুষের ঢল নেমেছে। খড়গপুরে সমন্বয়ের অভাব, প্রচারেই নামেনি প্রশাসন, প্রথম দিনেই ধাক্কা খেল লকডাউন, সময় বদলে রবিবার ফের রাস্তায় পুলিশ 2 বেলা ১১টার পর খড়গপুর মহকুমা শাসক বৈভব চৌধুরী, জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী সামসুদ্দিন আহমেদরা ইন্দার রাস্তায় নেমেছেন তখন জন স্রোত।

আরও পড়ুন -  আসানসোলে শ্রমিকদের সর্বনাশের সুযোগ নিল লোভি জনতা, ৪ হাজার টাকার সাইকেল লুটে নিল ১০০ টাকায়

বৃহস্পতিবার সরকারি লকডাউন গেছে আর শনিবার ফের সরকারি লকডাউন মাঝের শুক্রবার মানুষ ঝাঁপিয়ে রাস্তায় নেমেছে। মানুষ জানেনই না যে শুক্রবার থেকে খড়গপুরের নিজস্ব লক ডাউন শুরু হয়েছে। ফলে জোর করা যায়নি। মানুষকে কোনও রকম বুঝিয়ে ময়দান ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন কর্তারা।
এদিকে সমস্যা শুরু হয়েছে সময় নিয়ে। দোকানদার, ব্যবসায়ীরা বলছেন তাঁরা দোকানই খোলেন ৯টায়। ১০টায় বাজার বন্ধ হলে তাঁরা কী করবেন ১ঘন্টার ব্যবসা করে?

আরও পড়ুন -  খড়গপুর পৌরসভা বয়কটে কর্মীরা, লাটে ওঠার মুখে নাগরিক পরিষেবা,শহর জুড়ে স্যানিটাইজেশনের দাবিতে বিক্ষোভ বিজেপির

গোলবাজারে জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ব্যবসায়ীরা পাইকারি বাজার করতে আসেন। তারা কি করবেন। এরপর বিকাল ৩টা থেকে সাড়ে ৫টা ওই টুকু সময় দোকান খুলতে আর বন্ধ করতেই সময় কেটে যাবে। গোলবাজারের ব্যবসায়ীরা ঠিক করে দোকান খুলবেন না।
পরিস্থিতির মুখে দাঁড়িয়ে সিদ্ধান্ত বদলেছে মহকুমা প্রশাসন। ঠিক হয়েছে সকাল ৬টা থেকে ১টা অবধি খোলা থাকবে দোকানপাট। খড়গপুর মহকুমা শাসক জানিয়েছেন, “ব্যবসায়ী দোকান বন্ধ করতে করতে দেড়টা বাজবে। রবিবার দুটোর সময় আমরা রাস্তায় নামব।”                ছবি গুলিতে শুক্রবারের শহর চিত্র

খড়গপুরে সমন্বয়ের অভাব, প্রচারেই নামেনি প্রশাসন, প্রথম দিনেই ধাক্কা খেল লকডাউন, সময় বদলে রবিবার ফের রাস্তায় পুলিশ 3