হাওড়ার জটু থেকে আসানসোলের পূর্ণ শশী; তৃণমূলে দল ছাড়ার হিড়িক অব্যাহত

373
হাওড়ার জটু থেকে আসানসোলের পূর্ণ শশী; তৃণমূলে দল ছাড়ার হিড়িক অব্যাহত 1

অশ্লেষা চৌধুরী: প্রার্থী তালিকা প্রকাশের পর থেকেই ক্রমশ লম্বা হচ্ছে বিক্ষুব্ধদের তালিকা। এবারে আর হুমকি বা চোখের জল নয়, সরাসরি দল ত্যাগ করে পদ্ম শিবিরে যোগদান তৃণমূলের বর্ষীয়ান নেতার। তিনি হলেন, শিবপুরের বিদায়ী বিধায়ক জটু লাহিড়ী।

শুক্রবার প্রার্থী তালিকা ঘোষণার সময় তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, বয়সের কারণে ৮০ বছরের উর্ধ্বে জটু লাহিড়ির মতো কয়েকজন বিধায়কদের টিকিট দেওয়া হচ্ছে না। যাঁদের টিকিট দেওয়া হচ্ছে না, তাঁদের জন্য বিধান পরিষদ তৈরি করা হবে বলেও দাবী করেন মমতা। কিন্তু টিকিট না পেয়ে ‘অপমানিত’ বোধ করেন শিবপুরের বিদায়ী বিধায়ক এবং সোজা বিজেপির কার্যালয়ে গিয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগ দেন তিনি। ভীষন ক্ষুদ্ধ হয়ে তিনি বলেন, ‘এই সরকার যত তাড়াতাড়ি যাবে, তত দেশের মঙ্গল হবে। তত দেশের কল্যাণ হবে। কারণ এই সরকার নীতি-নৈতিকতাহীন হয়ে গিয়েছে। আমাদের বাংলাকে ভিখিরি করে দিয়েছে।’

হাওড়ার জটু থেকে আসানসোলের পূর্ণ শশী; তৃণমূলে দল ছাড়ার হিড়িক অব্যাহত 2

ক্রিকেটার মনোজ তিওয়ারিকে তাঁর কেন্দ্র থেকে টিকিট দেওয়ায় শাসক শিবিরের প্রতি বঞ্চনার অভিযোগ তুলেছেন ৮৪ বছরের বিধায়ক। তাঁর বক্তব্য, তৃণমূলে অপমানিত বোধ করছেন তিনি। বঞ্চনার শিকার হয়ে আসছেন। ‘যদি তোর ডাক না শুনে কেউ আসে, তাহলে একলা চলো রে’ ডাক দিয়ে একাই তাই তিনি পদ্ম শিবিরে যোগ দিয়ে এসেছেন তাদের কার্যালয়ে গিয়ে। এমনকি তাঁর নিজের কার্যালয় থেকেও মমতা ও তৃণমূলের যাবতীয় ছবিও খুলে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

শিবপুর থেকে লড়াই করবেন কি না জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, তিনি কোনও স্বার্থ নিয়ে বিজেপিতে যোগ দেননি। বিজেপি টিকিট না দিলেও তাঁর কোনও ‘দুঃখ’ নেই। যদি বিজেপি ‘অপমান’ না করে তাহলে ‘জীবনের শেষদিন পর্যন্ত বিজেপি করে যাব’ বলেও জানান তিনি।

অপরদিকে, শারীরিক অসুস্থতার দোহাই দিয়ে আসানসোলের পুরো নিগম সহ শাসকু দলের বিভিন্ন পদ ছাড়লেন বর্তমান পুর প্রশাসনিক বোর্ডের সদস্য পূর্ণ শশী রায়। শনিবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে একথা জানান তিনি, যদিও এই মুহূর্তে পদ্ম শিবিরে যোগদানের কথা কিছু জানান নি তিনি। জিতেন্দ্র ঘনিষ্ট এই নেতা নির্বাচনের মুখে অকস্মাৎ পুর প্রশাসনিক বোর্ডের সদস্য পদ সহ দলের সঙ্গে সব সম্পর্ক কেন ছিন্ন করলেন, তা নিয়ে চলছে রাজনৈতিক মহলে জল্পনা, আর এই জল্পনায় ঘি ঢেলেছে এই পদত্যাগ নিয়ে জিতেন্দ্রর সামাজিক মাধ্যমে করা ‘খেলা শুরু’ পোস্ট নিয়ে।

প্রার্থী তালিকা প্রকাশের পর যেভাবে ভাঙন দেখা দিচ্ছে শাসক শিবিরে, তাতে একটাই আশঙ্কা রাজনৈতিক মহলের একাংশের মনে, তাসের ঘরের মত ভেঙে না পড়ে এই দল!